বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ১৯শেই সাফ তৃণমূল : মোদী।    চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে জেলে যাবেন পার্থ : কৈলাশ বিজয়বর্গীয়    আমি বিজেপির ভয়ানক বিরোধী, কিন্তু এটা উকিলের চোখে ধরা পড়ছে মূর্তি টিএমসিপি ভেঙেছে : অরুণাভ ঘোষ।    মুখ্যমন্ত্রীর প্ররোচনায় নরসংহার শুরু করতে পারে তৃণমূল, রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি বিজেপির।    তৃণমূল বিদ্যাসাগরের মূর্তি যে ভেঙ্গেছে সেখানে পঞ্চ ধাতুর মূর্তি বানিয়ে দেব : ঘোষণা মোদীর।    সারদা নরদা নিয়ে বড় বড় কথা আর চিটফান্ডের মালিকের মাঠে সভা করছে প্রধানমন্ত্রী : মমতা।    কমিশনের নির্দেশ অমান্য ! স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে গরহাজির রাজীব কুমার।    এবার লালবাজারে ডাকা হতে পারেন অমিত শাহকে!    ক্ষুব্ধ ঝাড়গ্রামের নীরব অপেক্ষা ফলাফলের জন্য।    “নারী শিক্ষার দিশারীকে ভূ-লুন্ঠিত হতে হল বাঙালীদের হাতে, এর থেকে লজ্জা কি আছে?”: ক্ষোভ বীরসিংহবাসীর।    রানাঘাটের মত নিশ্চিত আসনেও সিঁদুরে মেঘ দেখছে তৃণমূল।    মহামিছিল করে ভাটপাড়ায় প্রচার শেষ করতে চান মদন।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    নির্বাচনের আগে ভোট পরিস্থিতি খতিয়ে দেখলেন বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।


বাংলায় নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে, সাংবাদিক বৈঠকে তোপ দাগলেন অমিত শাহ

আমাদের ভারত ডেস্ক,১৫ মে:বাংলায় নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে, এমনটাই অভিযোগ করলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। মঙ্গলবার কলকাতায় অমিত শাহের রোড শোকে কেন্দ্র করে ধুন্দুমার কান্ড ঘটে। বিজেপি ও তৃণমূল সমর্থকদের সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ও বিদ্যাসাগর কলেজ চত্বর। ভাঙ্গা হয় বিদ্যাসাগরের মূর্তি। এই মূর্তি ভাঙ্গার জন্য তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপি কর্মী সমর্থকদের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুললেও বিজেপি সভাপতি সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তৃণমূল কর্মীরাই মূর্তি ভেঙেছে। কলেজের গেট বন্ধ ছিল বিজেপির সমর্থক তো রাস্তাতেই ছিলেন। এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসনের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধেও তোপ লাগেন। তার অভিযোগ পশ্চিমবঙ্গের কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে।

অমিত শাহ বলেন, দেশের ১৬ টি রাজ্যে ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি। কোথাও নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনো হিংসার ঘটনা ঘটেনি। এমনকি ওড়িশা তেও ঘটেনি কোন হিংসার ঘটনা। তৃণমূল কংগ্রেসের কারণে শুধুমাত্র বাংলাতেই প্রতিটি দফায় হিংসা হয়েছে বলে অভিযোগ শাহের।

বিজেপি সভাপতির দাবি বাংলা থেকে ২৩এর বেশি আসন পাবে বিজেপি। মানুষ তৃণমূলকে প্রত্যাখ্যান করেছে। আর সে কারণেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে তৃনমূল কংগ্রেস। তিনি বলেন পশ্চিমবাংলায় নজিরবিহীন হিংসা হয়েছে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। একাধিকবার পুনর্নির্বাচনের দাবি করলেও কমিশন তা মানেনি। রাজনৈতিক সভা থেকে উস্কানিমূলক কথাবার্তা বললেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর কোন রকম বিধিনিষেধ আরোপ করেনি নির্বাচন কমিশন। তার কথায় পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of