বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ১৯শেই সাফ তৃণমূল : মোদী।    চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে জেলে যাবেন পার্থ : কৈলাশ বিজয়বর্গীয়    আমি বিজেপির ভয়ানক বিরোধী, কিন্তু এটা উকিলের চোখে ধরা পড়ছে মূর্তি টিএমসিপি ভেঙেছে : অরুণাভ ঘোষ।    মুখ্যমন্ত্রীর প্ররোচনায় নরসংহার শুরু করতে পারে তৃণমূল, রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি বিজেপির।    তৃণমূল বিদ্যাসাগরের মূর্তি যে ভেঙ্গেছে সেখানে পঞ্চ ধাতুর মূর্তি বানিয়ে দেব : ঘোষণা মোদীর।    সারদা নরদা নিয়ে বড় বড় কথা আর চিটফান্ডের মালিকের মাঠে সভা করছে প্রধানমন্ত্রী : মমতা।    কমিশনের নির্দেশ অমান্য ! স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে গরহাজির রাজীব কুমার।    এবার লালবাজারে ডাকা হতে পারেন অমিত শাহকে!    ক্ষুব্ধ ঝাড়গ্রামের নীরব অপেক্ষা ফলাফলের জন্য।    “নারী শিক্ষার দিশারীকে ভূ-লুন্ঠিত হতে হল বাঙালীদের হাতে, এর থেকে লজ্জা কি আছে?”: ক্ষোভ বীরসিংহবাসীর।    রানাঘাটের মত নিশ্চিত আসনেও সিঁদুরে মেঘ দেখছে তৃণমূল।    মহামিছিল করে ভাটপাড়ায় প্রচার শেষ করতে চান মদন।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    নির্বাচনের আগে ভোট পরিস্থিতি খতিয়ে দেখলেন বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।


অর্জুনের সঙ্গে না ‘দিদি’র, জেলা তৃণমূলে সন্দেহ প্রকট, বিলি মিষ্টিও

চিন্ময় ভট্টাচার্য

আমাদের ভারত, ১৪ মার্চ: অর্জুন সিংয়ের বিজেপিতে যোগদানে, উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে পরস্পরকে নিয়ে সন্দেহ তুঙ্গে। জেলায় সামনের সারিতে না-থেকেও অর্জুন সিং উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন অঞ্চলের তৃণমূল কর্মীদের কাছে ‘গডফাদার’ হয়ে উঠেছিলেন। সেই তিনিই দল বদলে গেরুয়া উত্তরীয় পরায়, স্বভাবতই জেলা তৃণমূলের নেতা ও কর্মীরা হতবাক। কারা দলবদলের পরও অর্জুন অনুগামী, কারা প্রকৃতই এখনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে, তাই নিয়ে পরস্পরের প্রতি সন্দিগ্ধ জেলা তৃণমূলের নেতা-কর্মীরাই।

এই দলবদলের পর থেকেই বৃহস্পতিবার ভাটপাড়া, কাঁকিনাড়া, জগদ্দল-সহ বিভিন্ন অঞ্চলের অর্জুন অনুগামীরা অকাল হোলিতে মেতে উঠেছেন। আবির মাখামাখির সঙ্গে চলছে দেদার মিষ্টি বিতরণ। বেশ কয়েকটি তৃণমূল পার্টি অফিসের পতাকাও বদলে গেরুয়া হয়ে গিয়েছে৷ শ্যামনগরের বাসুদেবপুর মোড়ে বিজেপির পার্টি অফিসটি ১১ ডিসেম্বর দখল করেছিল তৃণমূল৷ বৃহস্পতিবার এই সুযোগে তা পুনরুদ্ধার করেন বিজেপি নেতা অরুণ ব্রহ্ম। তিনি জানান,অর্জুন সিং দলে আসায় ব্যারাকপুরে বিজেপির শক্তি নিশ্চিতরূপে বাড়ল। যার সুবাদে এবার ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র কার্যত বিজেপিরই হয়ে গিয়েছে বলেই অরুণ ব্রহ্মের দাবি।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of