আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatnews@gmail.com    ‍অযোধ‍্যার রামমন্দির নির্মাণের জন‍্য সংসদে বিল আনতে চলেছে বিজেপি, জানালেন বিজেপি মন্ত্রী।    লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির সহানুভূতির ভোট আটকাতেই কি ‘বাজপেয়ী ভালো মোদীর চেয়ে’ বোঝাতে চাইছেন বিরোধীরা।    প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ীর স্মরণ সভায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানাবে রাজ্য বিজেপি।    বীরভূমের তিন বিজেপি নেতার নিরাপত্তায় কেন্দ্রীয় বাহিনী।    বিজেপি কর্মীর পরিবারের সদস্যদের দলে যোগ দেওয়াতে গিয়ে পুরুলিয়া ছাড়লেন অপমানিত তৃণমূল সাংসদ ডাঃ শান্তনু সেন।    চিত্র গুপ্ত নয়, আধুনিক কালে মরণ খাতা লেখেন রফিকুল মণ্ডল!    “সাম্প্রদায়িক বিজেপিকে রুখতে পশ্চিমবঙ্গের মহিলারাই যথেষ্ট” : চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।    ‘বাংলাকে কাশ্মীর হতে দেব না’! শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার দাবি উঠল হিন্দু সংহতির সভায়।    নারদ তদন্তে ‘ভুয়ো কোম্পানি’-র তথ্য দিয়েছেন রত্না! আয়কর বিভাগকে চিঠি ইডির।    শিলিগুড়ির ১৫ বছরের কিশোরীর অঙ্গে পুনর্জীবন ৩ টি প্রাণের।    প্রকাশিত হল রাজ্যে গ্রুপ-ডি নিয়োগের ফলাফল।    মুম্বই থেকে মুর্শিদাবাদে বাড়ি ফেরার পথে বারাকপুরে ট্রেনে মৃত্যু রেলযাত্রীর।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    গড়িয়ায় আক্রান্ত অভিনেতা, সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের।    অক্ষয় ফের কমেডি ছবিতে ফিরছেন ‘হেরা ফেরি’-৩ নিয়ে।    প্রেমে পড়েছেন শ্রাবন্তী, গুঞ্জন টলিপাড়ায়।    ছোটে নবাব স‌ইফ আলি খানের জন্মদিন পালন হল একেবারে নবাবীয়ানায়।    বাহুবলীর প্রভাসকে দেখা যাবে ‘সাহো’ ছবিতে।    অসুস্থ কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়, ভর্তি এসএসকেএমে।    ধর্মঘটের জেরে বন্ধ হতে চলেছে বাংলার টেলি সিরিয়াল।
BREAKING NEWS:
  • আটলবিহারী বাজপেয়ীর অন্তিম যাত্রা
  • শেষ শ্রদ্ধা জানাতে অগনিত মানুষ রাস্তায়
  • রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সম্পন্ন অন্ত্যেষ্টি ক্রীয়া।
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


ময়ূরেশ্বরে শান্তিপূর্ণ পুনর্নির্বাচন হলেও ভোট পড়ল ৫০ শতাংশেরও কম

আমাদের ভারত, রামপুরহাট, ১৬ মে: বীরভূমের ময়ূরেশ্বরে শান্তিপূর্ণ পুনর্নির্বাচন হলেও ভোট পড়েছে ৫০ শতাংশেরও কম। বিরোধী দলের প্রার্থী ও এজেন্ট ছাড়াই শান্তিপূর্ণ পুনর্নির্বাচন হল বীরভূমের ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের দুটি বুথে। দুটি গ্রামেই ছিল আতঙ্কের পরিবেশ। বিরোধী দলের কর্মী সমর্থকেরা বুথ মুখো হননি। দুপুর পর্যন্ত ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকে দুটি বুথে ভোট শান্তিপূর্ণভাবে হলেও মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছিল যথেষ্ট।
ঝিকড্ডা গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৪ নম্বর আসনের ৫১/২ পারকাটা গ্রামের বুথে বুধবার সকাল থেকেই শাসক দলের লোকজন ঢুকতে শুরু করে। এদিন সকালে আউদা গ্রামের জনা পঁচিশের শাসক বাহিনী সাইকেলে তৃণমূলের পতাকা লাগিয়ে পারকাটা গ্রামের দিকে ঢোকার চেষ্টা করে। কর্তব্যরত পুলিশ অফিসার তাদের বাধা দেন। কিন্তু পরক্ষণেই মোবাইলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেয়ে বহিরাগত তৃণমূল কর্মীদের গ্রামে ঢোকার ছাড়পত্র পায়। গ্রামে ঢুকে তারা ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের ২০০ মিটারের আশেপাশে ঘোরাফেরা করতে থাকে। বুথ থেকে কিছুটা দূরে সোঁজ গ্রামের রাস্তায় শাসক দলের লোকজন সশস্ত্র অবস্থায় পাহাড়া দেয়। ফলে ওই গ্রাম থেকে বিরোধীদের কোন ভোটার বুথে যেতে পারেনি। সকাল ৯ টা নাগাদ সোঁজ গ্রামের কাছে দুটো বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়। ফলে সোঁজ গ্রামের ভোটাররা বুথ মুখো হননি।
সোমবার পঞ্চায়েত ভোটের দিন ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের ঝিকড্ডা গ্রাম পঞ্চায়েতের ৯ নম্বর আসনে ৪৬/১ বুঁইচা এবং ১৪ নম্বর আসনের ৫১/২ নম্বর বুথে সন্ত্রাসের অভিযোগ ওঠে। ওই দিন সকাল ১০ টা ১০ মিনিট নাগাদ ১০৯ টি ভোট পড়ার পর ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে তিনটি বোমা ফাটে। এর পরেই আতঙ্কে ছোটাছুটি শুরু করেন ভোটাররা। সেই সময় শাসক দলের লোকজন বুথে ঢুকে ছাপ্পা দিতে শুরু করে বলে অভিযোগ। ঘটনার কিছুক্ষণ পর বিরোধীরা বুথ চত্বরে জমায়েত হতে শুরু করলে শাসক দলের দুষ্কৃতীরা পিছু হঠে। সেই সুযোগে বিরোধীরাও ছাপ্পা মারে বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে সেখানে যান ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সুদীপ্ত সাঁতরা ও ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের জয়েন্ট বিডিও দেবজ্যোতি বড়াল। তাদের সামনে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। তারপরেই পুনর্নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন। অন্যদিকে সিঙ্গারি পারকাটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শাসক দলের লোকজন ছাপ্পা দিচ্ছিল। বিরোধীরা প্রতিবাদ করলে দুষ্কৃতীরা ব্যালট বাক্স পুকুরে ফেলে দেয়। ফলে সেখানেও পুনর্নির্বাচন  হচ্ছে। বুধবার সকালে পারকাটা গ্রামে গিয়ে দেখা গেল লম্বা লাইন। গোটা গ্রাম ঘিরে রেখেছে শাসক দলের লোকজন। বুথের ভিতর শুধুমাত্র তৃণমূলের দুজন এজেন্টকে দেখা যায়। বিরোধীদের ধারে কাছে দেখা যায়নি। ওই আসনের  বিজেপি প্রার্থী সুকুমার  দাস সোমবার  থেকে গ্রামছাড়া। শুধু বিজেপি প্রার্থীরাই নন,তাদের সমর্থকদেরও দেখা মেলেনি। সুকুমারের নিকট আত্মীয় বলেন, সোমবার রাত থেকে পুলিশ  ও শাসক দলের ভয়ে বাড়ি ছাড়া পুরুষেরা। আমাদেরও নজরবন্দি করে রেখেছে পুলিশ ও শাসক দলের কর্মীরা। ফলে আমরা ভোট দিতে যাব না। বুঁইচা গ্রামের বুথের বাগদি পাড়ার বাসিন্দারা বলেন, দুষ্কৃতীরা যেভাবে বোমাবাজি করল তাতে ভোট দিতে যাব কোন সাহসে। আমাদের নিরাপত্তা কোথায়? এক বয়স্ক ভোটার বললেন এমন ভোট আগে কখনো দেখিনি। যদিও এদিন সকাল থেকে রামপুরহাট মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মিথুন দে’র নজরদারিতে ভোটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। এলাকার মানুষের বক্তব্য প্রথম দিন এই নিরাপত্তা থাকলে পুনর্নির্বাচন করতে হত না। দুটি বুথের মধ্যে ৫১/২ ৫৬ শতাংশ এবং ৪৬/১ বুথে ৩৫ শতাংশ ভোট পড়েছে।

Leave a Reply

Be the First to Comment!

avatar
  Subscribe  
Notify of