আর্জেন্টিনাকে দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে হলে যা যা করতে হবে।    ২০১৯-এ তিনশোর বেশি আসন পাবে বিজেপি!    নির্বংশ তৃণমূলে ২০১৯ এর পর বাতি দেওয়ার লোক থাকবে না : রাহুল সিনহা।    উস্কানিমূলক মন্তব্য ! সায়ন্তন বসুর বিরুদ্ধে মামলা রুজু করলো পুলিশ।    রাজ্য সরকারের নয়, কেন্দ্রের নিরাপত্তা রক্ষী নিতেই ইচ্ছুক মুকুল রায়।    আগেরবারের মত এবারেও শেষ মুহূর্তে বাতিল মুখ‍্যমন্ত্রীর চিন সফর, তবে কারণটা অদ্ভুত।     কোচবিহারে এলে দিলীপ ঘোষকে সাগরদিঘীর জলে দাঁড় করিয়ে রাখার হুঁশিয়ারি মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের।    তৃণমূল কংগ্রেস যে-ভাষা বোঝে আমরাও সেই ভাষায় বোঝাব : আবদুল মান্নান।    বধূ নির্যাতনের শিকার খোদ আলিপুরের মহিলা আইনজীবী ! গ্রেফতার স্বামী।    ২০১৯ সালে তৃণমূল দল আর বাংলায় থাকবে না : মুকুল রায়।    ঘি এর নামে কি খাচ্ছেন আপনারা ? জানতে দেখুন।     আপনার এ সপ্তাহ কেমন যাবে জেনে নিন আমাদের সাপ্তাহিক রাশিফল থেকে।
BREAKING NEWS:
  • আজকের বিশ্বকাপ ফুটবলের ফলাফল
  • ৬টার খেলায় ব্রাজিল- ২কোস্টারিকা_0
  • ৯টায় নাইজেরিয়া-২ আইসল্যান্ড-০
  • রাত ১২ টায় সার্বিয়া-১সুইজারল্যান্ড-২
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


ফিরছে বাংলার বক-নৃত্য

চিত্ত মাহাতো, ঝাড়্গ্রাম, ১২ জুন: বাংলার হারিয়ে যাওয়া প্রাচীন নৃত্য – শৈলীর অন্যতম বক-নৃত্য আবার ফিরছে এই বাংলায়। বঙ্গ লোক -সংস্কৃতির অভিনব নৃত্য ঘরানা ফের সফর শুরু করতে চলেছে।

ছৌ-ঘরানার এই নৃত্য সৃজনীটি হল, একটি বিশালাকৃতির বকের নৃত্য ব্যাঞ্জনার বিচ্ছুরণ। যা বাংলার লোকশিল্পের গৌরবকে একদিন অন্যমাত্রা দিয়েছিল। সালটা ছিল ১৯৮৫। ভারতের প্রধান মন্ত্রী রাজীব গান্ধী সস্ত্রীক উপস্থিত
রয়েছেন দিল্লির আপনা উৎসবে। মঞ্চে বাউল গানের পরেই ডাক পড়ল বাংলার বক নাচের। সাদা কাপড় আর কাগজে মোড়া বাঁশের ছাঁচের বিশাল বকটির মাথা ঠোট নাড়তে নাড়তে মঞ্চের দিকে এগিয়ে আসা দেখে অভিভুত হয়ে যান প্রধানমন্ত্রী। নৈসর্গিক আলোক সরণির মধ্য দিয়ে বকটি মঞ্চে হাজির হতেই সমবেত দর্শকমণ্ডলীর কৌতূহল আছড়ে পড়তে লাগল। এই সময় গর্জে উঠল ভোলা কালিন্দীর সানাই ও লবেন মুরমু এবং ত্রিলোচন মাহাতোর ঢোল-বাদ্যের ঐক্যতান। তাদের সমবেত বাজনার তালে তালে যখন বকের ভেতর ঢুকে থাকা বংকিম রায় বকটিকে ছৌ-ঘরানার বিশেষ শৈলীতে আগুপিছু নাচাতে লাগল তখন স্বয়ং রাজীব গান্ধী, সনিয়া গান্ধী সহ নাটমঞ্চের সামনে সমবেত হাজার হাজার দর্শকের তুমুল করতালিতে মুখরিত হয়ে ওঠে গোটা উৎসব প্রাঙ্গন। সেদিন বক- নৃত্যের নৃত্য পরম্পরার অভিনবত্ব দেখে সকল দর্শকের থেকে বেশি মুগ্ধ হয়েছিলেন সস্ত্রীক প্রধান মন্ত্রী রাজীব গান্ধী। এক ঘন্টার অনুষ্ঠান তারা তাড়িয়ে উপভোগ করার পর আপ্লুত প্রধানমন্ত্রী ও সোনিয়া গান্ধী বক- নৃত্যের ৪ জন শিল্পী ভোলা কালিন্দী, বংকিম রায়, ত্রিলোচন মাহাতো ও লবেন মুরমুর সঙ্গে করমর্দন করেন এবং মঞ্চে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে ছবি তলেন।
পরের দিন তাদের সঙ্গে একই টেবিলে সস্ত্রীক লাঞ্চ করেন মুগ্ধ প্রধানমন্ত্রী। প্রথমদিন বক নৃত্যের নিপুণতায় অভিভুত হয়ে আপনা উৎসবে প্রতিদিন বক-নৃত্য পরিবেশন করার জন্য উৎসব কমিটি ঝাড়্গ্রামের জয়পুর গ্রামের দলটিকে দিল্লিতে একমাস রেখে দিয়েছিল।

তার পর ১৩৯৩ সালের ৭ পৌষ শান্তি নিকেতনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১২৫ তম জন্ম বর্ষ পুর্তি উৎসবে এই দলের বক – নাচ পরিবেশিত হয়েছিল।
সেদিন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন কবিগুরুর স্নেহধন্য শান্তিদেব ঘোষ ও রবীন্দ্র অনুরাগী উপাচার্য নিমাই সাধন বসু। তারা বক-নৃত্যের ললিত ভঙ্গিমার ভূয়সী প্রশংসা করেন। সেদিন বক-নৃত্য দেখেন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু এবং তথ্য সংস্কৃতি মন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য।

আটের দশকে রবীন্দ্র সদনে পর পর
কয়েক বছর নৃত্য পরিবেশিত হয়।
তারপর আর্থিক সংকট ও নানা প্রতিবন্ধকতায় বন্ধ হয়ে যায় এই ঐতিহ্যপূর্ণ লোক সংস্কৃতির গুরুত্ববাহী অংশটি। এতদিন পর আবার তাদের খুঁচিয়ে তুলেছে ভেতরে ভেতরে গুমরাতে থাকা নৃত্য পরিবেশনের কাকুতি। তাই জাদুঘরের মতো গোয়ালঘরে তিন দশক টাঙিয়ে রাখা বকের কাঠামো নামিয়ে এবার ফের বকটিকে সাজিয়ে তুলছেন বংকিম রায়। সানাই বাদক ভোলা কালিন্দী বছর দুয়েক আগে মারা গেছেন। তার বদলে সানাইয়ে সুর ভাঁজছেন পাঁড়ু কালিন্দী। চামড়া পাল্টে ঢাকে নতুন করে বোল তুলছেন ত্রিলোচন মাহাতো ও লবেন মুরমু।

সুতরাং বাংলার লোক নৃত্যের আঙ্গিনায় খুব শীঘ্রই যে বক নৃত্য ফিরতে চলেছে তার পদ ধ্বনি শোনা যাচ্ছে।

loading...

Leave a Reply

Be the First to Comment!

avatar
  Subscribe  
Notify of