বিশ্বকাপে ফুটবল মাঠে বরাবর‌ই স্বপ্রতিভ ছিলেন ক্রোট প্রসিডেন্ট।    ফরাসীদের বিশ্বকাপ জয়, আনন্দে মাতল চন্দননগর।    বিশ্বকাপের মহারণে মাঠে সাক্ষী থাকলেন মহারাজ।    সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ তিনটি ট্রলার সহ ১৯ মৎস্যজীবী।    মা মাটি মানুষের সরকার সিন্ডিকেটের ইচ্ছাতেই চলছে : মোদী।    কৃষকদের উন্নতির জন্য বিজেপির অাগে কেউ এত ভাবেনি : মোদী।    মেটিয়াবুরুজে দুর্ঘটনায় মৃত বাবা-মেয়ে, প্রতিবাদে ১০টি গাড়িতে ভাঙচুর ক্ষুব্ধ জনতার।    তৃণমূলের জুলুম থেকে আর কয়েক মাসের মধ্যেই মিলবে মুক্তি : মোদী।     হাতজোড় করে স্বাগত জানালেন মমতা! ধন্যবাদ জানালেন মোদী।    মোদীর সভায় চাঁদোয়া ভেঙ্গে অাহত ৩০।    পুলিশের বাধায় প্রধানমন্ত্রীর সভায় যেতে পারলেন না অনেকে, খড়্গপুরে বিজেপি কর্মীদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ।    বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার সিভিক ভলান্টিয়ার।    বজবজে ভাইস চেয়ারম্যান অনুগামীদের বিরুদ্ধে বিজেপি কর্মীদের মারধর,বাড়ি ভাঙ্গচুরের অভিযোগ।    আপনার দিনটি কেমন যাবে জেনে নিন আমাদের দৈনিক রাশিফল থেকে।    চিৎপুরের যাত্রাপাড়ায় বিশেষ গিমিক টেলিভিশন সিরিয়ালের জুটি।    মস্তিষ্কের পুষ্টিতে সুপ অপরিহার্য, বলছেন খাদ্য বিশেষজ্ঞরা।
BREAKING NEWS:
  • ২০১৮ বিশ্বকাপ ফুটবলে জয়ী ফ্রান্স।
  • ফাইনালে ফ্রান্স-৪ ক্রোয়েশিয়া-২
  • তৃতীয় স্থানের খেলায় বেলজিয়াম জয়ী
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


গঙ্গাজল বোতলে করে বৈতরণী পার করছে ডাক বিভাগ

আমাদের ভারত ডেস্ক,৮সেপ্টম্বর : পুজো করতে বসেছেন আর দেখলেন গঙ্গাজল নেই। ভাবছেন কি করবেন। চিন্তা নেই কাছের পোস্ট অফিসে পেয়ে যাবেন গঙ্গাজল। ৫০০ মিলি গঙ্গাজলের বোতলের দাম মাত্র ২২ টাকা। হৃষিকেশ কিংবা গঙ্গোত্রীর এই ‘পবিত্র গঙ্গাজল’ বিক্রি করে লাভের মুখ দেখছে ভারতীয় ডাক বিভাগ। বিক্রিও হচ্ছে ভাল। এমনকি চাইলে এখন থেকে গঙ্গাজল ডাকযোগে বাড়ি বসে কেনা যাচ্ছে, যা ভারতের যে কোনো জায়গায় ঘরেও পৌঁছে যাবে।

প্রসঙ্গত, গঙ্গা নদী হিন্দুদের কাছে অত্যন্ত পবিত্র। পূজো তবে ডাকযোগে শুধু গঙ্গাজলই নয়, সারাদেশের বিখ্যাত মন্দিরগুলোর পূজার প্রসাদও এখন থেকে কেনা যাচ্ছে। প্রতিযোগিতার মুখে পড়ে ডাকবিভাগকে তুলে ধরতে নানা পদক্ষেপ করছে নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তারই সংযোজন পোস্ট অফিসে গঙ্গাজল বিক্রি। ফলে গঙ্গাজলের খোঁজে দৌড়ঝাঁপ, পাড়া-প্রতিবেশীর উপরে নির্ভর করার দিন শেষ। আপাতত, এলাকার পোস্ট অফিসে গেলেই পাবেন হৃষিকেশের বিশুদ্ধ গঙ্গাজল।
সামনেই পুজোর মরসুম। দশ দিন ধরে চলবে দেবী দুর্গার আরাধনা। তাঁর পর কালী পুজো, কোজাগরী লক্ষী পুজো, ছট পুজো। সব পুজোরই অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ গঙ্গা জল। ফলে পুজো মরসুমে গঙ্গা জল বিক্রি করে ভালই লাভের আশায় রয়েছে ডাক বিভাগ। এমনিতেই প্রতিদিন দুই থেকে তিন বোতল  বিক্রি করে ডাকঘর। ভারতে ১লক্ষ‍ ৫৪ হাজার  ৮৮২ ডাকঘর। প্রতিটি ডাকঘর পিছু মাত্র দুটি বোতল দিনে বিক্রি হলেও সেই অঙ্ক দাঁড়ায় ৬৮ লক্ষ ১৪ হাজার ৮০৮ টাকা দৈনিক। ফলে এই বিপুল লাভে উচ্ছ্বসিত খোদ ডাক বিভাগ।

loading...

Leave a Reply

Be the First to Comment!

avatar
  Subscribe  
Notify of