যেকোন খবরের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatnews@gmail.com    ফ্রিতে ৫০ লাখ স্মার্টফোন আর জিও সিম।    ফেসবুকে মুখ্যমন্ত্রীর অশালীন ছবি প্রচার,  গ্রেফতার শালবনীর যুবক।    “তৃণমূল বিরোধী শূন্য পঞ্চায়েত গড়তে চাইছে বলেই এত গণ্ডগোল”, বললেন দিলীপ ঘোষ।    আমডাঙা কাণ্ডে রাজস্থান থেকে গ্রেফতার সিপিএম নেতা জাকির।    এবার ভেঙে খসে পড়তে শুরু করল জ্বলন্ত বাগরি মার্কেট।    বীরভূমে আদিবাসী ছাত্রীর ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষকের দ্রুত বিচার চাইলেন লকেট।    তিন সপ্তাহের মধ্যে এসএসসির সম্পূর্ণ মেধাতালিকা প্রকাশের নির্দেশ হাইকোর্টের।    সারদা মামলায় বিধাননগরের প্রাক্তন গোয়েন্দা কর্তা অর্ণব ঘোষকে তলব সিবিআইয়ের।    বাগরি মার্কেটের সিঁড়ি, বাথরুমও ব্যবসায় লিজ, জার্মানি থেকেও ক্ষোভ মুখ্যমন্ত্রীর।    বালুরঘাটে কাজের দিনেও সরকারি অফিসে মদ-মাংসের আসর, আতঙ্কিত দপ্তরের এক মহিলা কর্মী।    হিলিতে ভোগের খিচুড়ির ভাগাভাগি নিয়ে সিভিক ভলান্টিয়ারকে বেধড়ক মার এনভিএফের।    কুলতলিতে রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা, প্রহৃত চিকিৎসক।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    দেড়বছর পর জামিন পেলেন উদ্বাস্তু আন্দোলনের নেতা সুবোধ বিশ্বাস।    ডিভোর্স না দেওয়ায় স্ত্রীকে খুনের চেষ্টা চিকিৎসক স্বামীর, গ্রেফতার অভিযুক্ত।    গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে পাহাড়ে ফের পোস্টার, সিঁদুরে মেঘ দেখছে পাহাড়বাসী।    দিলীপ ঘোষের উপর হামলার প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে পথ অবরোধ কর্মসূচি বিজেপির।    হোয়াটসঅ্যাপে খুব গুরুত্বপূর্ণ তিনটি পরিবর্তন হতে চলেছে।    এবার ভাঁজ করে রাখতে পারবেন আপনার স্মার্টফোন।
BREAKING NEWS:
  • বিজেপি রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষ
  • আক্রান্ত। গাড়ি ভাঙচুর।
  • কর্মী সহ বিজেপি ছাড়লেন লক্ষ্মণ শেঠ
  • কলকাতার বাগরি মার্কেটে আগুন
  • দীর্ঘ সময় পরও জ্বলছে আগুন
  • দমকলের ৩০টি ইঞ্জিন আগুন নেভাচ্ছে
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


সাইবার দুনিয়ায় জেহাদি প্রচারে নয়া আতঙ্ক

আমাদের ভারত, কলকাতা, ১০ জুলাই: সাইবার দুনিয়ায় ছড়িয়েছে নয়া আতঙ্ক। জেহাদি প্রচার সহ নিজেদের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদানে তারা সাহায্য নিচ্ছে ডার্ক ওয়েবের। এমনটাই গোয়েন্দা সূত্রের খবর। এছাড়াও বিভিন্ন অ্যাপস ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ‘প্রটেক্টিভ টেক্সট’ চালাচালি করে জঙ্গিরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করে, যা পুলিশ বা গোয়েন্দা সংস্থাগুলির নজরদারির আওতায় সহজে আসে না।

সাইবার ক্রাইম বিশেষজ্ঞ ও আইনজীবী অচিন্ত্য মন্ডল বলেন, ‘সাইবার দুনিয়াকে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়। একটি সারফেস ওয়েব যা সবার জন্য উন্মুক্ত অন্যটি ডার্ক ওয়েব। সাধারণ মানুষ যেটা ব্যবহার করেন তা সারফেস ওয়েব। এটি সবার জন্য উন্মুক্ত। এখান থেকে আপনি যেকোন তথ্যই খুঁজে নিতে পারেন। সারফেস ওয়েবের নিচে বা আড়ালে যা থাকে তা হচ্ছে ডিপ ওয়েব বা ডার্ক ওয়েব। যার তথ্য সাধারণ ভাবে জানা সম্ভব নয়। এই ইন্টারনেটের এই অংশে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করে। কিন্তু এটির সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জঙ্গিরা অবাধে তথ্য আদান-প্রদান করে।’

তিনি আরও বলেন,‘যেকোন ইলেট্রনিক গ্যাজেট থেকে ডার্ক ওয়েবে ঢুকে কাজ করলে সেখানে ভারচুয়াল লোকেশন তৈরী হয়। যার ফলে কোথা থেকে এটি অপারেট হচ্ছে তা চিহ্নিত করা যায় না। ‘টোর’নামে ব্রাউজারসহ আরও কিছু ব্রাউজার আছে, যেগুলো ইনস্টল করলে ব্যবহারকারি পরিচয় গোপন হয়ে যায়। ডার্ক ওয়েবে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনগুলোর সাইট রয়েছে। সেখানেই চলে তথ্য আদান-প্রদান ও নির্দেশ দেওয়ার কাজ। এছাড়াও জঙ্গিরা ধরা পড়লে দ্রুত যাতে তথ্য নষ্ট করে দিতে পারে তার সফটওয়ারও তাদের কাছে থাকে।’ গোয়েন্দাদের মতে, টেলিগ্রাম, থ্রিমা অ্যাপস, উইকার অ্যাপস ব্যবহার করে জঙ্গিরা। প্রটেক্টেট টেক্সট নামে একটি সাইটের মাধ্যমেও তারা যোগাযোগ করে থাকে। তবে টেলিগ্রাম তাদের কাছে জনপ্রিয় বেশি।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of