যেকোন রকম বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ৩ হাজারের বেশি অ্যান্টি ট্যাংক মিসাইল কিনতে পারে ভারত ফ্রান্স থেকে।     কংগ্রেসের ইস্তেহারে রামমন্দির যুক্ত হলে আমরা তাদের সমর্থনের কথা ভাবতে পারি : ভিএইচপি।    বিজেপির বিরুদ্ধে কংগ্রেসের প্রার্থী হতে পারেন করিনা কাপুর।    মমতা নয় রাহুলকেই নেতা দেখতে চান তারা, ব্রিগেডের পরেই জানালেন তেজস্বী, স্টালিনরা।     একসময় কাগজ কুড়াতেন আজ চণ্ডীগড়ের মেয়র এই বিজেপি নেতা।    ব্রিগেডে খরচের উসুল তুলতে ব্যর্থ তৃণমূল, সোশ্যাল মিডিয়ায় মোদিকে হারিয়েই সন্তুষ্ট।    মালদায় অমিত শাহ-যোগীর সভা সফল করার জন্য বিজেপির তিন প্ল্যান।    ব্রিগেডের সভার বদলে আসানসোলে সভা করবে প্রধানমন্ত্রী, জানালেন দিলীপ ঘোষ।    জম্মু-কাশ্মীরে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে বিজেপি , দাবি রাম মাধবের।    জয়নগরে অমিত শাহের সভার আগেই রাস্তাঘাট তৃণমূলের দখলে।    লোকসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে সফরে জিটিএর প্রতি মুক্তহস্ত মমতা।    ডুয়ার্সে চিতাবাঘের চামড়া সহ আটক পাঁচ চোরাচালানকারী।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    বিজেপি নেতার মাতৃবিয়োগে সমবেদনা জানাতে দুর্গাপুরে রাজ্যপাল।


আর্থিক বাধা কাটিয়ে কলেজে ভর্তি হওয়াই দায় অধ্যাপক হতে চাওয়া দীপঙ্করের

আমাদের ভারত, গোসাবা, ১৩ জুন: নুন আনতে পান্তা ফুরানো পরিবার। দক্ষিণ ২৪ পরগণার সুন্দরবনের গোসাবা তিন নম্বর গ্রামের বাসিন্দা কিঙ্কর কামিলার বড় ছেলে দীপঙ্কর সেই দারিদ্রতাকে উপেক্ষা করে এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় সমগ্র গোসাবা ব্লকের মধ্যে সেরা নম্বর পেয়ে সকলকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় গোসাবা আর আর ইন্সটিটিউশানের ছাত্র দীপঙ্কর কামিলা ৪৪৭ নম্বর পেয়েছে। ইংরেজি বাদ দিয়ে সমস্ত বিষয়েই লেটার মার্কস পেয়েছে কলা বিভাগের এই ছাত্র। দীপঙ্করের স্বপ্ন বড় হয়ে কলেজের অধ্যাপক হয়ে শিক্ষকতা করার। কিন্তু এই প্রবল দারিদ্রতার মধ্যে সেটা কিভাবে সম্ভব তা জানেন না কেউ। কলেজে ভর্তির জন্য এখনো প্রয়োজনীয় অর্থ যোগাড় হয়নি। তাই পরিবার চাইছে কোন এক হ্যামলিনের বাঁশিওয়ালাকে।

দক্ষিণ ২৪ পরগণার গোসাবা থানার অন্তর্গত তিন নম্বর গ্রামে নদীর পাড়ে মাটির বাড়িতে বাস করে দীপঙ্কর। বাবা কিঙ্কর কামিলা সারাদিন সাইকেল ভ্যান চালিয়ে কখনো মাটি কেটে কোন রকমে সংসার চালান। কিঙ্কর বাবু অসুস্থ হলে বা অন্য কোথাও গেলে সংসারের হাল ধরতে দীপঙ্করকেও মাঝে মধ্যে ভ্যান চালাতে হয়। এত সব প্রতিবন্ধকতা কাটিয়েও এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় সুন্দরবন এলাকার মধ্যে সেরা রেজাল্ট করেছে সে। প্রায় নব্বই শতাংশ নম্বর পেয়েছে সে। কোন গৃহশিক্ষক ছাড়াই ছেলে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় এত ভালো রেজাল্ট করায় খুশি কিঙ্কর বাবু। দীপঙ্করের ভালো রেজাল্টে খুশি এলাকার সাধারণ মানুষজনও। খুশি তার স্কুলের শিক্ষকরাও। কিন্তু বড় হয়ে কলেজে অধ্যাপনা করার যে স্বপ্ন দীপঙ্কর দেখছে তা আদৌও পূরণ হবে কিনা তা জানেন না কেউই।  

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of