বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ১৯শেই সাফ তৃণমূল : মোদী।    চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে জেলে যাবেন পার্থ : কৈলাশ বিজয়বর্গীয়    আমি বিজেপির ভয়ানক বিরোধী, কিন্তু এটা উকিলের চোখে ধরা পড়ছে মূর্তি টিএমসিপি ভেঙেছে : অরুণাভ ঘোষ।    মুখ্যমন্ত্রীর প্ররোচনায় নরসংহার শুরু করতে পারে তৃণমূল, রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি বিজেপির।    তৃণমূল বিদ্যাসাগরের মূর্তি যে ভেঙ্গেছে সেখানে পঞ্চ ধাতুর মূর্তি বানিয়ে দেব : ঘোষণা মোদীর।    সারদা নরদা নিয়ে বড় বড় কথা আর চিটফান্ডের মালিকের মাঠে সভা করছে প্রধানমন্ত্রী : মমতা।    কমিশনের নির্দেশ অমান্য ! স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে গরহাজির রাজীব কুমার।    এবার লালবাজারে ডাকা হতে পারেন অমিত শাহকে!    ক্ষুব্ধ ঝাড়গ্রামের নীরব অপেক্ষা ফলাফলের জন্য।    “নারী শিক্ষার দিশারীকে ভূ-লুন্ঠিত হতে হল বাঙালীদের হাতে, এর থেকে লজ্জা কি আছে?”: ক্ষোভ বীরসিংহবাসীর।    রানাঘাটের মত নিশ্চিত আসনেও সিঁদুরে মেঘ দেখছে তৃণমূল।    মহামিছিল করে ভাটপাড়ায় প্রচার শেষ করতে চান মদন।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    নির্বাচনের আগে ভোট পরিস্থিতি খতিয়ে দেখলেন বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।


নদিয়ায় পুলিশ লাইনে চলল গুলি, মৃত ১

স্নেহাশিস মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ১৪ মার্চ: নদিয়ার কৃষ্ণনগর পুলিশ লাইনে চলল গুলি। ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হোমগার্ড দেবশ্রী ঘোষ দালালের (৩৫)। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সকালে ইভিএম ডিউটিতে যোগ দেওয়ার আগে কৃষ্ণনগর পুলিশ লাইনে বন্দুকে গুলি ভরার সময় হঠাৎই একটি গুলি ফায়ার হওয়ার শব্দ হয়। গুলির শব্দ শুনে অন্যান্যরা ছুটে এসে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে হোমগার্ড দেবশ্রী ঘোষ। পেটে গুলি লাগা দেবশ্রীকে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকতে দেখে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কৃষ্ণনগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে সেখানেই চিকিৎসা চলাকালীন মৃত্যু হয় তার। মৃত দেবশ্রীর দাদা বিপ্লব ঘোষ বোনের মৃত্যুর তদন্তের দাবি করেন প্রশাসনের কাছে।

দেবশ্রীর স্বামী অমিত দালাল জানান, ২০১৮ সালের অক্টোবরে তার স্ত্রী পুলিশের হোম গার্ডে চাকরি পান। এখন একবছরও হয়নি। গত ফেব্রুয়ারি মাসে চাপরা থানা থেকে পুলিশ লাইনে এসছিল। ওর একটা ১১ মাসের মেয়ে আছে। সামনের এপ্রিলের ৩ তারিখে ওর জন্মদিন।

দাদা বিপ্লব ঘোষ বলেন , আমি কাজেই ছিলাম। এসে দেখলাম বোন বেঁহুশ হয়ে পরে আছে। পরে শুনলাম একজনের মারফৎ যে অন্য একজনের বন্দুক থেকে গুলি ছিটকে গিয়ে প্রথমে বেঞ্চে লেগে ওর হাতে লাগে পরে সেটা পেটে গিয়ে লাগে।ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পুলিশ মহলে। কিভাবে ও কার বন্দুক থেকে গুলি চলল তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে কোতোয়ালি থানার পুলিশ।

Comments are closed.