যেকোন খবরের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatnews@gmail.com    এই বছরই দ্বিতীয় বার লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে চলেছেন মোদী, জানেন কি কেন।    আদিবাসী শিশুদের নতুন জামাকাপড় দিল হিন্দু সংহতি।    ধুনুচি নাচ থেকে পেটপুরে ভুরিভোজ, পুজোয় মেতে উঠেছে আট থেকে আশি।    “লোকসভা নির্বাচনের আগে চালু হবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো”: বাবুল সুপ্রিয়।    পুজো স্পেশাল শপিং অফার চালু করল স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া।    পুজোর মধ্যেও রাজনৈতিক সংঘর্ষ, গুড়াপে আক্রান্ত বিজেপি, বাড়ি ভাঙ্গচুর, আগুন।    ট্যাংরার গুদামে ভয়াবহ অাগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ৫টি ইঞ্জিন।    কল্যাণী হাইওয়েতে বেপরোয়া গতির বলি বাইক আরোহী।    ট্রেনে এবার ঝাঁকুনি ফ্রি সফর।    মেদিনীপুরে শিল্পের উন্নত পরিকাঠামো গড়তে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগ।    র‍্যাফটিং করতে গিয়ে তিস্তার জলে তলিয়ে মৃত্যু ভিন রাজ্যের মহিলার।    ভাড়াটিয়ার পরকীয়ায় বাধা দিয়ে সোনারপুরে খুন বাড়ির মালিক।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    পুজোর মরসুমে বালুরঘাটে জমে উঠেছে রমরমা জুয়ার আসর।
BREAKING NEWS:
  • আজ মহানবমী।
  • সকাল থেকেই মন্ডপে মন্ডপে ভীড়।
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


তেলির ঘর থেকে রাজদরবারে

সম্রাট গুপ্ত, কলকাতা, ১৬ মে: জন্ম তেলির ঘরে,  ১৮৩৮-এ। মাত্র ৪৬ বছরে স্বীকৃতি পেয়েছিলেন রূপকথার মত। পড়াশোনা ওরিয়েন্টাল সেমিনারিতে। ইংরেজি শেখেন ডিএল রিচার্ডসনের কাছে। ছিলেন হিন্দু মেলার অন্যতম উদ্যোক্তা। কলকাতায় তাঁর মত আর কোনও বাঙালি সাংবাদিকের মূর্তি আছে কি না, জানা নেই। আগামী ২৪ জুলাই পূর্ণ হবে ভুলতে বসা এই স্মরণীয় সাংবাদিকের ১৮০ বছর। উল্লেখ্য, এ বছর ২৩ মে পূর্ণ হচ্ছে বাংলা সংবাদপত্রের ২০০ বছর।
নাম কৃষ্ণদাস পাল(১৮৩৮-১৮৮৪)। বক্তা এবং সাংবাদিক হিসাবে নাম করেন। ‘হিন্দু প্যাট্রিয়ট’-এর সম্পাদক ছিলেন বেশ ক’বছর। কাগজটিকে সমীহ করতেন ব্রিটিশরা। প্রথমে ব্রিটিশ ইন্ডিয়া অ্যাসোসিয়েশনের সহকারী সম্পাদক এবং পরে (১৮৭৪-১৮৮৪) সম্পাদক ছিলেন। ১৮৬৩-তে হন জাস্টিস অফ পিস এবং মিউনিসিপাল কমিশনার। ১৮৭২-এ বিধান পরিষদের সদস্য (এমএলসি)।১৮৭৮ সালে ওনাকে The Most Eminent Order of the Indian Empire, Companion (C.I.E.) উপাধিতে অলঙ্কৃত করা হয় । ১৮৮৩-তে  হন  ভাইসরয় কাউন্সিলের সদস্য। ১৮৭৭-এ পান রায়বাহাদুর উপাধি।
মাত্র ৪৬ বছর বেঁচেছিলেন কৃষ্ণদাস পাল। লর্ড রিপন লিখেছেন, “হিজ ইনটেলেকচুয়াল অ্যাটেনমেন্টস ওয়্যার অফ এ হাই অর্ডার, হিজ রিহ্টোরিক্যাল গিফ্টস ওয়্যার অ্যাকনোলেজড বাই অল হু ওয়্যার এনহান্সড হোয়েন অ্যড্রেসিং বাই হিজ থরো মাস্টারি ওভার দি ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ।“
বহুমুখী প্রতিভার এই বাঙালি সাংবাদিকের পূর্ণমূর্তি আছে মধ্য কলকাতায়। এর আবরণ উণ্মোচন করেন লর্ড এলগিন। সহকর্মী সাংবাদিক গৌতম বসুমল্লিক জানিয়েছেন, ১৮৯৪-এর ৬ মার্চ হ্যারিসন রোড ও কলেজ স্ট্রিটের সংযোগস্থলে এক এক বিরাট অনুষ্ঠান করে মূর্তিটি স্থাপন করা হয়। ওই মূর্তি স্থাপনের মধ্যে দিয়ে প্রথম কোনও ভারতীয় সাংবাদিকের স্মৃতিরক্ষার সূচনা হয় এই শহরে। শ্বেতপাথরের ওই মূর্তিটি তৈরি হয়েছিল ইংল্যান্ডে,নির্মাতা ব্রিটিশ ভাস্কর নেলসন ম্যাকলিন। স্কটল্যান্ডের গ্রানাইট পাথরের পাদপীঠ-সহ মূর্তিটি তৈরি করতে সে যুগে খরচ হয়েছিল চোদ্দ হাজার টাকা। পুরো টাকাটাই এসেছিল কৃষ্ণদাসের ভারতীয় ও ব্রিটিশ অনুরাগীদের দানে।
হরিশচন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর পর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের উদ্যোগে‘হিন্দু পেট্রিয়ট’-এর সম্পাদক হন কৃষ্ণদাস। ভারতীয়দের রাজনৈতিক অধিকার অর্জনের পক্ষে সওয়াল করে গিয়েছেন তাঁর বিভিন্ন সম্পাদকীয় রচনায়। কর্মজীবনের স্বীকৃতি হিসেবে ব্রিটিশ শাসকদের কাছ থেকে ‘রায় বাহাদুর’ ও‘কম্পেনিয়ান অফ দি অর্ডার অফ দি ইন্ডিয়ান এম্পায়ার’ (সি আই ই) উপাধি পেলেও নীতিগত কারণে ‘রাজা’উপাধি গ্রহণে অস্বীকৃত হন এই নির্ভীক সাংবাদিক।
নিম্ন-বর্গীয় তেলী সম্প্রদায় থেকে সদর্পে বাঙালী শিক্ষিত সম্প্রদায়ের মধ্যমণি হয়ে উঠেছিলেন যিনি, সেইকৃষ্ণদাস পালের কথা আজক’জন জানেন?

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of