বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    “ওদেরকে শাস্তি দেওয়ার সময় এসে গেছে” কংগ্রেসকে তোপ যোগগুরু রামদেব বাবার।    রাত পোহালেই রাজ্যে দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন।     দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি ও রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রে হবে ভোটগ্রহণ।    “টাকার থলি নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে আরএসএসের দালালরা” অভিযোগ মমতার।    সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলে ছয় মাসের মধ্যেই বিধানসভা ভোট করাব বললেন আলুয়ালিয়া।    ঝাঁটা হাতে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে এলাকা ছাড়া করার নিদান রাজ্যের মন্ত্রীর।    কান্দিতে অধীর গড়ে দাঁড়িয়ে কংগ্রেস ও বিজেপিকে তোপ মমতার।    নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য “ইউনিক কালার কোডিং” ব্যবস্থা।    আরও কড়া হল কমিশন, দুবের মাথায় বসল নতুন পর্যবেক্ষক।    অমিত, যোগীর জোড়া ফলায় মমতাকে ঘায়েলের চেষ্টা বিজেপির।    জয়ের প্রচারে আমতায় রাজনাথ সিং।    ঘাটালে একা কুম্ভ ভারতী।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    ভোটের দিনগুলোয় কেন্দ্রীয় নেতাদের এনে কিস্তিমাত করতে কৌশল বিজেপির।


“২০১৪-র চেয়েও বড় ঝড় আসছে, কংগ্রেসের চেয়ে তিন গুণ বেশি আসন পাবে বিজেপি”

আমাদের ভারত ডেস্ক,১৪ এপ্রিল: ২০১৪-র থেকেও ২০১৯ এ বেশি আসন পাবে বিজেপি। জম্মুতে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে এমনটাই দাবি করেছেন নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর দাবি ২০১৪ থেকেও বিজেপির তরফ আর বেশি জোরদার হাওয়া বইছে। মোদী বলেন, প্রথম দফার ভোটে ভারতের মানুষ প্রমাণ করে দিয়েছে গণতন্ত্র কতটা শক্তিশালী। তারা আরও দাবি বিজেপি কংগ্রেসের থেকে তিনগুণ আসন বেশি পাবে।

মোদী বলেন জম্মু-কাশ্মীরের জন্য পৃথক প্রধানমন্ত্রী কথা বলে বিরোধীরা ভয় দেখাচ্ছে জনগণকে। উল্লেখ্য ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা কয়েকদিন আগে পৃথক কাশ্মীরে পৃথক প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির কথা বলেছিলেন। থএক্ষেত্রে কংগ্রেসের অবস্থান স্পষ্ট করতে বলেন মোদী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন কাশ্মীরের পণ্ডিতরা কংগ্রেসের নীতির জন্যই কাশ্মীর ছেড়ে চলে গেছেন। নিজেদের ভিটেমাটি সমস্ত ছেড়ে বাধ্য হয়েছেন কাশ্মীরের পণ্ডিতরা চলে যেতে কংগ্রেসের দুর্বল দুর্নীতির কারণে। তার আরও অভিযোগ ভোট ব্যাংকের রাজনীতি করতে গিয়েই কাশ্মীরি পণ্ডিতদের ইস্যুতে নজর দেয়নি কংগ্রেস ও তার সহযোগী দলগুলি।

তার এদিনের বক্তৃতায় ৮০ শতাংশই ছিল দেশের নিরাপত্তা, সেনার বীরত্ব ও জাতীয়তাবাদ কেন্দ্র করে। তিনি প্রশ্ন তোলেন সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বা এয়ার স্ট্রাইকের কথা শুনে কেন ভয় পায় কংগ্রেস? কেন দেশের সেনার উপর ভরসা রাখেনি কংগ্রেস? ১৯৬২ সালের পুনরাবৃত্তির ভয়ে কংগ্রেস সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কোনদিন বড় পদক্ষেপ নেয়নি।

এদিন তিনি ন্যাশনাল কংগ্রেস কনফারেন্স ও পিডিপিকে হুঁশিয়ার করে বলেন, তাদের জানা উচিত জম্মু কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ। মোদী বলেন ৩৭০ এবং ৩৫-এ অনুচ্ছেদ নিয়ে কার্যত হুঁশিয়ারি দিয়ে মোদী বলেন দেশের এই দুই বিধানের বিরোধিতা করেছিলেন। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী। আর এই চৌকিদার দেশের অখন্ডতা বজায় রাখবেই যেকোনো মূল্যে।তিনি মুফতি ও আব্দুল্লাহ পরিবারকে আক্রমন করে বলেন এদের জন্য কাশ্মীরের তিনটি জেনারেশন নষ্ট হয়েছে। তার দাবি এই পরিবারগুলি ভূস্বর্গ থেকে সড়লে তবেই কাশ্মীরের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of