বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    পাকিস্তানকে জবাব দিতে আরব সাগরে নামানো হলো আইএনএস বিক্রমাদিত্য ও নিউক্লিয়ার সাবমেরিন।    মুম্বই স্টেশনে ফুটব্রিজ ভেঙে হত ৫, আহত ৩০।    তৃণমূলে বড় ধাক্কা, বিজেপিতে যোগ দিলেন অর্জুন সিং।    বিজেপিই রাজ্যের ভবিষ্যৎ, তাই অনেকেই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন : দিলীপ ঘোষ।    লড়বেন কী, ঘরেই বিড়ম্বনায় বিজেপির নতুন কৃষ্ণ-অর্জুন।    অর্জুন সিং দু’লক্ষের বেশি ভোটে হারবে দীনেশ ত্রিবেদির কাছে: অভিষেক।    বাংলার মানুষ উন্নয়ন দেখে ৪২ এ ৪২ উপহার দেবে : অপরূপা পোদ্দার।    প্রয়াত বিধায়ককে শ্রদ্ধা জানিয়ে রাজনীতির আঙিনায় সত্যজিত জায়া।     মুকুলের পথ ধরেই কি বিজেপিতে এবার ছেলে শুভ্রাংশু!    সমঝোতা না হলে রাজ্যে একাই লড়বে কংগ্রেস, সাফ জানালেন সোমেন মিত্র।    লোকসভা ভোটে বিপ্লব নয়, বালুরঘাটে অর্পিতার সেনাপতি হচ্ছে বাচ্চু ও শঙ্কর।    জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বৈঠক এড়ালেন অর্জুন ঘনিষ্ঠ ২২ জন কাউন্সিলার।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    বিদেশে বর্ণবিবাদের শিকার হলেন বলিউডের এই অভিনেত্রী!


ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনের যৌথ সংবাদ সম্মেলন বাংলাদেশে

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বাংলাদেশের ১৭টি ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনের যৌথ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে। 

আমাদের ভারত ডেস্ক, ঢাকা : গত ০৪/০৮/২০১৭ ডিআরইউ তে দেশের সরকার, রাজনৈতিক দল ও জোট এবং নির্বাচন কমিশনের কাছে সংবাদ সম্মেলন থেকে ৫-দফা দাবী উপস্থাপন করেন সংগঠনের সমন্বয়কারী এ্যাড. রানাদাশ গুপ্ত। উপস্থাপনকৃত দাবিগুলো নিম্নরুপ :

১. কোন রাজনৈতিক দল বা জোট আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে এমন কাউকে মনোনয়ন দেবেন না যারা অতীতে বা বর্তমানে জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে বা রাজনৈতিক নেতৃত্বে থেকে সংখ্যালঘু স্বার্থবিরোধী কোন প্রকার কর্মকান্ডে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষে জড়িত ছিলেন বা আছেন। এমন কাউকে নির্বাচনে প্রার্থী দেয়া হলে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী সে সব নির্বাচনী এলাকায় তাদের ভোটদানে বিরত থাকবে বা ভোট বর্জন করবে।

২. যে রাজনৈতিক দল বা জোট নির্বাচনী ইশতেহারে প্রাণের দাবী ঐতিহাসিক ৭দফার পক্ষে নির্বাচনী অংগীকার ঘোষণা করবে এবং সংখ্যালঘুদের স্বার্থ ও অধিকার নিশ্চিতকরণে সুস্পষ্ট প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করবে সে দল বা জোটের প্রতি সংখ্যালঘুদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

৩. আদিবাসীদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতকরণসহ জনসংখ্যার আানুপাতিক হারে সংসদে ধর্মীয় জাতিগত সংখ্যালঘুদের আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতকরণে রাজনৈতিক দল ও জোটসমূহকে দায়িত্ব নিতে হবে।

৪. নির্বাচনের পূর্বাপর ধর্মীয় জাতিগত সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনে ধর্ম ও সাম্প্রদায়িকতার ব্যবহার, মন্দির, মসজিদ, গীর্জা, প্যাগোডাসহ ধর্মীয় সকল উপাসনালয়কে নির্বাচনী কর্মকান্ডে ব্যবহার, নির্বাচনী সভাসমূহে ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক বক্তব্য প্রদান বা কোনরুপ প্রচার নিষিদ্ধকরণের পাশাপাশি তা ভঙ্গের দায়ে সরাসরি প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিল সহ অন্যুন তাকে একবছরের কারাদন্ড ও অর্থদন্ডের বিধান রেখে নির্বাচনকে নির্বাচনী আইনের যুগোপযোগী সংস্কার করতে হবে।

৫. নির্বাচনের পূর্বেই সরকারকে সংখ্যালঘু মন্ত্রনালয় ও জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন, সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রনয়ন, অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পন আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন, সমতলের আদিবাসীদের জন্যে ভূমি কমিশন গঠন, বর্ণবৈষম্য বিলোপ আইন প্রনয়ন এবং পার্বত্য ভূমিবিরোধ নিস্পপ্তি কমিশন আইনের বাস্তবায়নসহ পার্বত্য শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে রোডম্যাপ ঘোষণা করতে হবে।

# সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের ১৭টি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of