যেকোন রকম বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ৩ হাজারের বেশি অ্যান্টি ট্যাংক মিসাইল কিনতে পারে ভারত ফ্রান্স থেকে।     কংগ্রেসের ইস্তেহারে রামমন্দির যুক্ত হলে আমরা তাদের সমর্থনের কথা ভাবতে পারি : ভিএইচপি।    বিজেপির বিরুদ্ধে কংগ্রেসের প্রার্থী হতে পারেন করিনা কাপুর।    মমতা নয় রাহুলকেই নেতা দেখতে চান তারা, ব্রিগেডের পরেই জানালেন তেজস্বী, স্টালিনরা।     একসময় কাগজ কুড়াতেন আজ চণ্ডীগড়ের মেয়র এই বিজেপি নেতা।    ব্রিগেডে খরচের উসুল তুলতে ব্যর্থ তৃণমূল, সোশ্যাল মিডিয়ায় মোদিকে হারিয়েই সন্তুষ্ট।    মালদায় অমিত শাহ-যোগীর সভা সফল করার জন্য বিজেপির তিন প্ল্যান।    ব্রিগেডের সভার বদলে আসানসোলে সভা করবে প্রধানমন্ত্রী, জানালেন দিলীপ ঘোষ।    জম্মু-কাশ্মীরে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে বিজেপি , দাবি রাম মাধবের।    জয়নগরে অমিত শাহের সভার আগেই রাস্তাঘাট তৃণমূলের দখলে।    লোকসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে সফরে জিটিএর প্রতি মুক্তহস্ত মমতা।    ডুয়ার্সে চিতাবাঘের চামড়া সহ আটক পাঁচ চোরাচালানকারী।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    বিজেপি নেতার মাতৃবিয়োগে সমবেদনা জানাতে দুর্গাপুরে রাজ্যপাল।


ঘরেতে অভাব, তবুও শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন দেখছে সৌকত

আমাদের ভারত, আউশগ্রাম, বর্ধমান, ১৩জুন:
অনটনের সঙ্গে লড়েই সফল সৌকত পাল। সব প্রতিবন্ধকতাই হার মেনেছে উচ্চ মাধ্যমিকের এই কৃতীর কাছে। সৌকত ভেদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। এবার তার প্রাপ্ত নম্বর ৪৩৬। বাবা বিভাষ পাল মৃৎ শিল্পীর কাজ করেন। মা সুলেখাদেবী গৃহবধূ। আর অন্যের বাড়িতে মুড়ি ভাজার কাজ করে উপার্জিত অর্থ সৌকতের পড়াশোনা কাজে লাগান ঠাকুমা হাসিদেবী। সৌকতের এই রেজাল্টে খুশি স্কুলের পড়ুয়া থেকে শিক্ষকরা।
স্কুলের শিক্ষক উত্তম দেবাংশী বলেন, সৌকত বরাবর মেধাবী হিসেবে পরিচিত। শুধু এ বছর নয়, মাধ্যমিক পরীক্ষাতেও সে স্কুলের সর্ব্বোচ্চ নম্বর পেয়েছিল। ফলে বাড়তি আনন্দ, গর্ব হচ্ছে। আমরা ওকে সর্বোতভাবে সাহায্য করার চেষ্টা করি। ছেলের এই সাফল্যে খুবই খুশি সৌকতের পরিবার।

সৌকতের জানিয়েছে, তার পছন্দের বিষয় হল ফিজিক্স। বিশ্বভারতীতে ফিজিক্স অনার্সে ভর্তি হওয়ায় তার ইচ্ছা। আর পরবর্তীতে পিএচডি করে শিক্ষকতা করাই তার স্বপ্ন, যাতে ভবিষ্যতে দরিদ্র পড়ুয়াদের পাশে থাকতে পারে। এবার সৌকতের প্রাপ্ত নম্বর ফিজিক্সে ৮৫, অঙ্কে ৯৬, কেমেষ্ট্রিতে ৮২, ইংরেজিতে ৯০ ও বায়োলজিতে ৮৩। এই রেজাল্টের জন্য শিক্ষকদের ভূমিকা অতুলনীয় বলেই জানিয়েছে সৌকত। তার গৃহশিক্ষকরাও বেতন না নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান সৌকতের উচ্চ শিক্ষায় যাতে সমস্যা না হয়, সেটা দেখার আশ্বাস দিয়েছেন আউসগ্রাম ২নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। পরিবারের একমাত্র রোজগেরে সৌতকের বাবা প্রশাসনিক সহযোগিতার আবেদন জানিয়েছেন। যাতে সৌকতকে উচ্চ শিক্ষিত করা যায়। এখন দেখার সৌকতের উচ্চশিক্ষায় কি অন্তরায় হয়ে দাড়াবে দারিদ্রতা ?

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of