যেকোন খবরের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatnews@gmail.com    এই বছরই দ্বিতীয় বার লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে চলেছেন মোদী, জানেন কি কেন।    আদিবাসী শিশুদের নতুন জামাকাপড় দিল হিন্দু সংহতি।    ধুনুচি নাচ থেকে পেটপুরে ভুরিভোজ, পুজোয় মেতে উঠেছে আট থেকে আশি।    “লোকসভা নির্বাচনের আগে চালু হবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো”: বাবুল সুপ্রিয়।    পুজো স্পেশাল শপিং অফার চালু করল স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া।    পুজোর মধ্যেও রাজনৈতিক সংঘর্ষ, গুড়াপে আক্রান্ত বিজেপি, বাড়ি ভাঙ্গচুর, আগুন।    ট্যাংরার গুদামে ভয়াবহ অাগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ৫টি ইঞ্জিন।    কল্যাণী হাইওয়েতে বেপরোয়া গতির বলি বাইক আরোহী।    ট্রেনে এবার ঝাঁকুনি ফ্রি সফর।    মেদিনীপুরে শিল্পের উন্নত পরিকাঠামো গড়তে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগ।    র‍্যাফটিং করতে গিয়ে তিস্তার জলে তলিয়ে মৃত্যু ভিন রাজ্যের মহিলার।    ভাড়াটিয়ার পরকীয়ায় বাধা দিয়ে সোনারপুরে খুন বাড়ির মালিক।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    পুজোর মরসুমে বালুরঘাটে জমে উঠেছে রমরমা জুয়ার আসর।
BREAKING NEWS:
  • আজ মহানবমী।
  • সকাল থেকেই মন্ডপে মন্ডপে ভীড়।
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


ঘরেতে অভাব, তবুও শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন দেখছে সৌকত

আমাদের ভারত, আউশগ্রাম, বর্ধমান, ১৩জুন:
অনটনের সঙ্গে লড়েই সফল সৌকত পাল। সব প্রতিবন্ধকতাই হার মেনেছে উচ্চ মাধ্যমিকের এই কৃতীর কাছে। সৌকত ভেদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। এবার তার প্রাপ্ত নম্বর ৪৩৬। বাবা বিভাষ পাল মৃৎ শিল্পীর কাজ করেন। মা সুলেখাদেবী গৃহবধূ। আর অন্যের বাড়িতে মুড়ি ভাজার কাজ করে উপার্জিত অর্থ সৌকতের পড়াশোনা কাজে লাগান ঠাকুমা হাসিদেবী। সৌকতের এই রেজাল্টে খুশি স্কুলের পড়ুয়া থেকে শিক্ষকরা।
স্কুলের শিক্ষক উত্তম দেবাংশী বলেন, সৌকত বরাবর মেধাবী হিসেবে পরিচিত। শুধু এ বছর নয়, মাধ্যমিক পরীক্ষাতেও সে স্কুলের সর্ব্বোচ্চ নম্বর পেয়েছিল। ফলে বাড়তি আনন্দ, গর্ব হচ্ছে। আমরা ওকে সর্বোতভাবে সাহায্য করার চেষ্টা করি। ছেলের এই সাফল্যে খুবই খুশি সৌকতের পরিবার।

সৌকতের জানিয়েছে, তার পছন্দের বিষয় হল ফিজিক্স। বিশ্বভারতীতে ফিজিক্স অনার্সে ভর্তি হওয়ায় তার ইচ্ছা। আর পরবর্তীতে পিএচডি করে শিক্ষকতা করাই তার স্বপ্ন, যাতে ভবিষ্যতে দরিদ্র পড়ুয়াদের পাশে থাকতে পারে। এবার সৌকতের প্রাপ্ত নম্বর ফিজিক্সে ৮৫, অঙ্কে ৯৬, কেমেষ্ট্রিতে ৮২, ইংরেজিতে ৯০ ও বায়োলজিতে ৮৩। এই রেজাল্টের জন্য শিক্ষকদের ভূমিকা অতুলনীয় বলেই জানিয়েছে সৌকত। তার গৃহশিক্ষকরাও বেতন না নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান সৌকতের উচ্চ শিক্ষায় যাতে সমস্যা না হয়, সেটা দেখার আশ্বাস দিয়েছেন আউসগ্রাম ২নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। পরিবারের একমাত্র রোজগেরে সৌতকের বাবা প্রশাসনিক সহযোগিতার আবেদন জানিয়েছেন। যাতে সৌকতকে উচ্চ শিক্ষিত করা যায়। এখন দেখার সৌকতের উচ্চশিক্ষায় কি অন্তরায় হয়ে দাড়াবে দারিদ্রতা ?

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of