বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    ১৯শেই সাফ তৃণমূল : মোদী।    চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে জেলে যাবেন পার্থ : কৈলাশ বিজয়বর্গীয়    আমি বিজেপির ভয়ানক বিরোধী, কিন্তু এটা উকিলের চোখে ধরা পড়ছে মূর্তি টিএমসিপি ভেঙেছে : অরুণাভ ঘোষ।    মুখ্যমন্ত্রীর প্ররোচনায় নরসংহার শুরু করতে পারে তৃণমূল, রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি বিজেপির।    তৃণমূল বিদ্যাসাগরের মূর্তি যে ভেঙ্গেছে সেখানে পঞ্চ ধাতুর মূর্তি বানিয়ে দেব : ঘোষণা মোদীর।    সারদা নরদা নিয়ে বড় বড় কথা আর চিটফান্ডের মালিকের মাঠে সভা করছে প্রধানমন্ত্রী : মমতা।    কমিশনের নির্দেশ অমান্য ! স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে গরহাজির রাজীব কুমার।    এবার লালবাজারে ডাকা হতে পারেন অমিত শাহকে!    ক্ষুব্ধ ঝাড়গ্রামের নীরব অপেক্ষা ফলাফলের জন্য।    “নারী শিক্ষার দিশারীকে ভূ-লুন্ঠিত হতে হল বাঙালীদের হাতে, এর থেকে লজ্জা কি আছে?”: ক্ষোভ বীরসিংহবাসীর।    রানাঘাটের মত নিশ্চিত আসনেও সিঁদুরে মেঘ দেখছে তৃণমূল।    মহামিছিল করে ভাটপাড়ায় প্রচার শেষ করতে চান মদন।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    নির্বাচনের আগে ভোট পরিস্থিতি খতিয়ে দেখলেন বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে।


হুগলী জেলার পর্যটনে বাড়তি গুরুত্ব, ঘোষণা গৌতম দেবের

আমাদের ভারত, হুগলী, ৭নভেম্বর: রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব আজ হুগলী জেলার পর্যটন ক্ষেত্র গুলো ঘুরে দেখেন। প্রথমে তিনি চন্দননগরের ওয়ান্ডারল্যান্ড পার্কে যান সেখান থেকে নিউ দিঘা পর্যটন কেন্দ্র ঘুরে শ্রীরামপুর ডেনিস হেটিটেজ বিল্ডিং দেখেন। সেখান থেকে মাহেশ মন্দির ও রথ দেখতে যান।ফুরফুরা ও আঁটপুরের মঠও ঘুরে দেখেন মন্ত্রী।রাতে চুঁচুড়ায় হুগলী জেলা সার্কিট হাউসে রাত্রি বাস করবেন পর্যটন মন্ত্রী। আগামী কাল যাবেন বলাগড়ের সবুজদ্বীপ।হুগলী জেলার পর্যটনে আরো কিছু করার ভাবনায় পর্যটন কেন্দ্র গুলোকে ঢেলে সাজাতে উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার। চন্দননগর ওয়ান্ডারল্যান্ড পার্কে আধুনিক সুবিধা যুক্ত একটি চারতলা বিল্ডিং তৈরী করা হবে তার প্ল্যান রেডি হয়েছে।কনফারেন্স হল ও ৩০ টি ঘর থাকবে এই বিল্ডিং এ।শ্রীরামপুরে ডেনিসদের অনেক স্থাপত্য রয়েছে।ইতিমধ্যেই কোর্ট চত্বরে যেখানে গভর্নর হাউস ছিল সেই ভবনকে নতুন ভাবে সাজানো হয়েছে।একটি রেস্তোরাঁ করা হয়েছে।ছটি ঘরে হোম স্টের ব্যবস্থা রয়েছে।ডেনিসদের চার্চ সহ অন্যান্য স্থাপত্যের রক্ষণাবেক্ষণেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, মুখ্যমন্ত্রী চাইছেন গঙ্গাপারের সৌন্দর্য্যকে মানুষের কাছে আরো আকর্ষনীয় করতে। সেই মত কাজ হচ্ছে। হুগলীতে এমন অনেক জায়গা আছে যেখানে পর্যটন হতে পারে। সেগুলোকে আমরা দেখে নিয়ে যেগুলো পুরানো আছে সেগুলোকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে চাইছি।
মাহেশ ফুরফুরা আঁটপুরের জন্যও কিছু ভাবনা রয়েছে পর্যটন দপ্তরে জানান মন্ত্রী।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of