যেকোন খবরের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatnews@gmail.com    এই বছরই দ্বিতীয় বার লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে চলেছেন মোদী, জানেন কি কেন।    আদিবাসী শিশুদের নতুন জামাকাপড় দিল হিন্দু সংহতি।    ধুনুচি নাচ থেকে পেটপুরে ভুরিভোজ, পুজোয় মেতে উঠেছে আট থেকে আশি।    “লোকসভা নির্বাচনের আগে চালু হবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো”: বাবুল সুপ্রিয়।    পুজো স্পেশাল শপিং অফার চালু করল স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া।    পুজোর মধ্যেও রাজনৈতিক সংঘর্ষ, গুড়াপে আক্রান্ত বিজেপি, বাড়ি ভাঙ্গচুর, আগুন।    ট্যাংরার গুদামে ভয়াবহ অাগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ৫টি ইঞ্জিন।    কল্যাণী হাইওয়েতে বেপরোয়া গতির বলি বাইক আরোহী।    ট্রেনে এবার ঝাঁকুনি ফ্রি সফর।    মেদিনীপুরে শিল্পের উন্নত পরিকাঠামো গড়তে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগ।    র‍্যাফটিং করতে গিয়ে তিস্তার জলে তলিয়ে মৃত্যু ভিন রাজ্যের মহিলার।    ভাড়াটিয়ার পরকীয়ায় বাধা দিয়ে সোনারপুরে খুন বাড়ির মালিক।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    পুজোর মরসুমে বালুরঘাটে জমে উঠেছে রমরমা জুয়ার আসর।
BREAKING NEWS:
  • আজ মহানবমী।
  • সকাল থেকেই মন্ডপে মন্ডপে ভীড়।
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


ভোটের লাইনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে বচসার জের, বাড়ি ভাংচুর করে অস্ত্রের কোপ

আমাদের ভারত, পুরুলিয়া, ১৫ মে: ভোট পরবর্তী হিংসা অব্যহত পুরুলিয়ায়। সোমবার বিকেলে ভোটের লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে বচসার জের মঙ্গলবার বার গড়াল। ভোটের দিনের বচসার জেরে বুধবার বাড়ি ঢুকে অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠলো তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। হামলায় তিন জন গ্রামবাসী গুরুতর জখম হন। ঘটনাটি ঘটে পুরুলিয়া মফস্বল থানার চেপড়া গ্রামে। স্থানীয়ভাবে জানা গিয়েছে, গত কাল ভোটের সময় গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বচসা হয় এলাকার সিপিএম কর্মী সেক মোহাম্মদ হুসেন, সেক হাফিজউদ্দিন ও সেক সালিম সহ কংগ্রেস ও অন্যান্য সিপিএম কর্মীদের সঙ্গে। ওই দিন রাত্রে সিপিএম ওই কর্মীদের বাড়িতে গিয়ে এক প্রস্থ হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। রাত্রের পর এদিন সকাল ন’টা নাগাদ তৃণমূল আশ্রিত ওই দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে চেপড়া গ্রামে সিপিএম কর্মীদের বাড়িতে ঢুকে হামলা চালানো অভিযোগ ওঠে। হামলার প্রতিহত করতে গিয়ে তিন জন সিপিএম কর্মী আহত হন। তাঁদের মাথায়, মুখে ও শরীরের অংশে টাঙ্গি ও লাঠি দিয়ে মারা হয়। হামলার ঘটনায় গ্রামের অধিকাংশ ছুটে আসতেই দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তিন জন সিপিএম কর্মীকে পুরুলিয়া দেবেন মাহাতো সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার অন্যতম প্রত্যক্ষদর্শী হাফিজ নাজিউদ্দিন বলেন, ‘এদিন সকালে গ্রামে ৪০-৫০ জনের একটি সশস্ত্র দুষ্কৃতীর দল এসে বাড়িতে ঢুকে ভাংচুর চালায়। বাড়ি থেকে টেনে এনে টাঙ্গি দিয়ে কোপ মারে সেক মোহাম্মদ হুসেন, সেক সালিমের মাথায়। বাদ দেয় নি বৃদ্ধ সেক হাফিজউদ্দিনকেউ। তাঁকে প্রাণে মারার চেষ্টা চালায় তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা।’ এই ঘটনার সঙ্গে দলের কেউ যুক্ত নয় বলে তৃণমূলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of