আর্জেন্টিনাকে দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে হলে যা যা করতে হবে।    ২০১৯-এ তিনশোর বেশি আসন পাবে বিজেপি!    নির্বংশ তৃণমূলে ২০১৯ এর পর বাতি দেওয়ার লোক থাকবে না : রাহুল সিনহা।    উস্কানিমূলক মন্তব্য ! সায়ন্তন বসুর বিরুদ্ধে মামলা রুজু করলো পুলিশ।    রাজ্য সরকারের নয়, কেন্দ্রের নিরাপত্তা রক্ষী নিতেই ইচ্ছুক মুকুল রায়।    আগেরবারের মত এবারেও শেষ মুহূর্তে বাতিল মুখ‍্যমন্ত্রীর চিন সফর, তবে কারণটা অদ্ভুত।     কোচবিহারে এলে দিলীপ ঘোষকে সাগরদিঘীর জলে দাঁড় করিয়ে রাখার হুঁশিয়ারি মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের।    তৃণমূল কংগ্রেস যে-ভাষা বোঝে আমরাও সেই ভাষায় বোঝাব : আবদুল মান্নান।    বধূ নির্যাতনের শিকার খোদ আলিপুরের মহিলা আইনজীবী ! গ্রেফতার স্বামী।    ২০১৯ সালে তৃণমূল দল আর বাংলায় থাকবে না : মুকুল রায়।    ঘি এর নামে কি খাচ্ছেন আপনারা ? জানতে দেখুন।     আপনার এ সপ্তাহ কেমন যাবে জেনে নিন আমাদের সাপ্তাহিক রাশিফল থেকে।
BREAKING NEWS:
  • আজকের বিশ্বকাপ ফুটবলের ফলাফল
  • ৬টার খেলায় ব্রাজিল- ২কোস্টারিকা_0
  • ৯টায় নাইজেরিয়া-২ আইসল্যান্ড-০
  • রাত ১২ টায় সার্বিয়া-১সুইজারল্যান্ড-২
{"effect":"slide-h","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}


বাঘ আতঙ্কে ভুগছে বাঁকুড়া, বন্ধ জঙ্গল লাগোয়া অঙ্গনওয়ারী কেন্দ্র, বাঘের প্রভাব স্কুল গুলিতেও

আমাদের ভারত, বাঁকুড়া, ১৩ মার্চ: বাঘ মামার হদিশ নেই। তিনি আছেন কোথায় কেউ জানে না। কিন্তু সেই বাঘমামারই ভয়ে আপাতত বন্ধ হয়ে গেলো অঙ্গনওয়ারী কেন্দ্র। জঙ্গল লাগোয়া গ্রামের প্রাথমিক স্কুলগুলিতেও ছাত্র ছাত্রী আর শিক্ষকের উপস্থিতির সংখ্যাও হাতে গোনা। বাঁকুড়ার সিমলাপালের নেকড়াতাপল গ্রামের এই মূহুর্তের ছবি এটাই।


গত কয়েকদিন ধরে বাঘের আতঙ্কে দিন কাটছে বাঁকুড়ার জঙ্গল মহলের সিমলাপাল-সারেঙ্গা ব্লক এলাকার বাসিন্দাদের। বাঘের খোঁজ না মিললেও সিমলাপাল ও সারেঙ্গার জঙ্গল লাগোয়া এলাকার মাঠে মাঠে ও গ্রামের পথে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে বাঘের পায়ের ছাপ। বাড়ির পাশেই এই ঘটনায় যথেষ্ট আতঙ্কে জঙ্গল মহলবাসী। আর এই আতঙ্ক নিয়েই সোমবার থেকে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক পরীক্ষা। পরীক্ষাকেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষা শেষে নিরাপদে বাড়ি ফেরা নিয়েই এখন চরম আতঙ্কে পরীক্ষার্থী থেকে অভিভাবক সকলেই।

যে এলাকায় বাঘের পায়ের ছাপ দেখতে পাওয়া গিয়েছিল সেই সিমলাপালের পিঠাবাঁকড়া গ্রাম থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে নেকড়াতাপল গ্রাম। সোমবার থেকেই গ্রামের একমাত্র অঙ্গনওয়ারী কেন্দ্রটি বাঘের ভয়ে তালা দেওয়া বলেই দাবী গ্রামবাসীদের। এমনকি গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় আশি জন ছাত্র ছাত্রীর মধ্যে উপস্থিতির হার মাত্র ছয়। শিক্ষকদের উপস্থিতিও নগন্য। শুধুমাত্র একজন শিক্ষক হাজির হয়েছেন বিদ্যালয়ে। শিক্ষক ছাত্রের উপস্থিতি না হওয়া নিয়ে মুখ খুলতে অনীহা স্কুলে একমাত্র উপস্থিত শিক্ষক পূর্ণচন্দ্র সোরেণের।
তবে ছাত্র ছাত্রী প্রত্যেকের চোখেমুখেই আতঙ্কের ছাপ। ছাত্রছাত্রীদের দাবি বাঘ মামার ভয়েই অনেকে স্কুলে আসেনি। অভিভাবকরাই পাঠাতে চাননি তাদের শিশু সন্তানদের। ঐ স্কুলে হাজির হওয়া ছাত্র সুগত হাঁসদা, সোমনাথ সোরেণ বলেন, বাঘের ভয় তো একটা আছেই । তবুও স্কুলে এসেছি। বাবা মায়েরাই পৌঁছে দিয়ে গেছে বলেও তারা জানায়।
সিমলাপালের দুবরাজপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পিঠাবাঁকড়া, নেকড়াতাপল, জামবনি, বালিঝুরঝুরি, পুঁটিয়াদহ, চাঁদপুর জঙ্গলঘেরা গ্রাম গুলির ছাত্র ছাত্রীদের অবস্থা আরো করুণ।

প্রত্যেককেই প্রায় দু’কিলোমিটার জঙ্গল পথ পেরিয়ে টিউশান বা স্কুল-কলেজে যাতায়াত করতে হয়। বাঘের আতঙ্ক দেখা দেওয়ায় চরম সমস্যায় পড়েছেন তারা। এই জঙ্গলঘেরা পথে অভিভাবকদের সঙ্গে নিয়ে টিউশান যাওয়ার সময়ই দেখা এলাকার বাসিন্দা কলেজ পড়ুয়া অর্চনা দত্ত, রেশমী নন্দীদের সাথে। তারা বলেন, বাঘের ভয়ে একা একা যেতে তো ভয় করছেই। কিন্তু সামনেই পরীক্ষা। স্কুল কলেজ, টিউশন তো এই মূহুর্তে কামাই করাই চলবেনা। তাই অভিভাবকরাই এখন ভরসা। একই কথা শোনালেন স্থানীয় জামবনি গ্রামের অভিভাবক বলরাম দত্তও। তিনি বলেন, এলাকায় যেখানে বাড়ির পাশেই জঙ্গলে বাঘের পায়ের ছাপ দেখতে পাওয়া গেছে। সেখানে আতঙ্কমুক্ত থাকি কি করেবলুন তো ? স্কুল, কলেজ বাড়ির ছেলেমেয়েদের বাইরে পাঠাতে ভয় পাচ্ছি। এই আতঙ্ক থেকে মুক্তি দিতে এলাকার পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানিয়েছেন তিনি। এখন দেখার বনদপ্তর ও পুলিশ প্রশাসন কতটা সজাগ থেকে এলাকার আপামর মানুষকে কবে নিরাপত্তা দিতে পারে। প্রশ্ন থেকেই গেছে।

loading...

Leave a Reply

Be the First to Comment!

avatar
  Subscribe  
Notify of