বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    “ওদেরকে শাস্তি দেওয়ার সময় এসে গেছে” কংগ্রেসকে তোপ যোগগুরু রামদেব বাবার।    রাত পোহালেই রাজ্যে দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন।     দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি ও রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রে হবে ভোটগ্রহণ।    “টাকার থলি নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে আরএসএসের দালালরা” অভিযোগ মমতার।    সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলে ছয় মাসের মধ্যেই বিধানসভা ভোট করাব বললেন আলুয়ালিয়া।    ঝাঁটা হাতে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে এলাকা ছাড়া করার নিদান রাজ্যের মন্ত্রীর।    কান্দিতে অধীর গড়ে দাঁড়িয়ে কংগ্রেস ও বিজেপিকে তোপ মমতার।    নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য “ইউনিক কালার কোডিং” ব্যবস্থা।    আরও কড়া হল কমিশন, দুবের মাথায় বসল নতুন পর্যবেক্ষক।    অমিত, যোগীর জোড়া ফলায় মমতাকে ঘায়েলের চেষ্টা বিজেপির।    জয়ের প্রচারে আমতায় রাজনাথ সিং।    ঘাটালে একা কুম্ভ ভারতী।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    ভোটের দিনগুলোয় কেন্দ্রীয় নেতাদের এনে কিস্তিমাত করতে কৌশল বিজেপির।


তৃণমূল নেতা রীতেশ রায়ের দেহ উদ্ধার হগলীর দাদপুরে, সন্দেহ শ্বাস রোধ করে খুন

আমাদের ভারত, হুগলী, ১১ ফেব্রুয়ারি: কাঁথির তৃণমূল নেতা রীতেশ রায়ের দেহ উদ্ধার হগলীর দাদপুরে। সন্দেহ তাঁকে শ্বাস রোধ করা হয়েছে।

‌গত আট তারিখে চূঁচুড়া হরিপাল সাতেরো নং রুটের দাদপুর থানার তালচিনান এলাকা থেকে এক অজ্ঞাত পরিচয় ব‍্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার হয়। পরিচয় জানা না যাওয়ায় ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ চূঁচুড়া হাসপাতালে মর্গে রাখা আছে।
এদিকে পূর্ব মেদিনীপুরের মারিসদা থেকে নিখোঁজ তৃণমূল নেতা রীতেস রায়ের নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে সারা রাজ্যের বিভিন্ন থানায় খোঁজ খবর শুরু করতেই দাদপুরের দেহ উদ্ধারের বিষয়টি মারিসদা থানায় জানানো হয়।
রীতেশের পরিবারকে মৃতদেহের ছবি দেখানো হলে তাঁরা সন্দেহ করেন দেহটি সম্ভবত রীতেশেরই। গত দশ তারিখে দাদপুর থানা থেকে মারিশদা থানায় ছবি পাঠাবার পর পরিধান বস্ত্র থেকে পরিবারের লোক চিহ্নিত করেন যে উনি রীতেশ রায়।
মারিশদা থানার বেতালিয়া সমবায় সমিতির চেয়ারম‍্যান ছিলেন মৃত রীতেশ রায় এবং ১৯৯৮ সাল থেকেই তৃণমূল করছেন বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে।
সোমবার সকালেই হুগলীর দাদপুরে পৌছে যান রীতেশের পরিবার। দেহ সামনে থেকে দেখিয়ে তাঁর ছেলে শনাক্ত করেন মৃতদেহ রীতেশের। বেলার দিকে হাসপাতালে জড়ো হন হুগলীর তৃণমূল কর্মীরা। পরে মৃতদেহ পূর্ব মেদিনীপুর নিয়ে যাওয়া হবে।
এই নিয়ে ইতিমধ্যেই বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of