যেকোন রকম বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম : amaderbharatdesk@gmail.com    তেলেঙ্গানায় ক্ষমতায় আসতে চন্দ্রশেখরকে সমর্থনের প্রস্তাব বিজেপির, শর্ত একটাই ত্যাগ করতে হবে ওয়াইসিকে।    অধ্যাদেশ জারি করে রাম মন্দির নির্মাণের দাবিতে গেরুয়া স্রোত রাজধানীতে।    “সংখ্যালঘু ভোটের জন্য হিন্দু বিদ্বেষী বাংলাদেশি ধর্মগুরুকে সভা করার অনুমতি দিয়েছে রাজ্য”: দিলীপ।    প্রাক্তন কেএলও লিঙ্কম্যানদের তৃণমূলে যোগদান।    কেন চোলাই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না? মন্ত্রিসভার বৈঠকে ক্ষুব্ধ মমতা।    লোকসভার আগে রাজ্যে ৭ হাজার নতুন শিক্ষক পদে নিয়োগ সরকারের।    “বিজেপির রাজ্য গুজরাট, বিহারে মদ নিষিদ্ধ তবে এই বাংলায় কেন তা হচ্ছে না “: মুকুল।    ভুয়ো কল সেন্টার খুলে বিদেশে কোটি টাকার প্রতারণা, পাকড়াও ৪ যুবক।    “শাসক দলের রক্তক্ষয়ী রাজনীতি”: নদিয়ায় বিজেপির রক্তদান শিবির।    আইনজীবী খুনের ঘটনাতেও উঠে আসছে পরকীয়া তত্ত্ব, আটক স্ত্রী।    রোগীমৃত্যুর জেরে বাঙুর হাসপাতালে ভাঙচুর, মারধর চিকিৎসকদের, আটক ৮।    বাড়ি থেকে সংগ্রহশালা, পরিবর্তন হতে চলেছে রাজ কাপুরের জন্মভিটে।    আজ আপনার কেমন যাবে জেনে নিন।    বিয়ের পর প্রথম দীপিকা প্রসঙ্গে মুখ খুললেল রণবীর।


অজানা জ্বরের মড়ক থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

আমাদের ভারত, পূর্ব মেদিনীপুর, ১০ আগস্ট : অজানা জ্বরে মৃত্যুর খবর মাঝে মাঝে শোনা যায়। সাধারণ রক্ত পরীক্ষায় কোনও জীবানু পাওয়া যায় না। ফলে সঠিক রোগ নির্ণয়ের অভাবে রোগীর মৃত্যু ঘটে। স্ক্রাব টাইফাস এরকমই একটি অজানা জ্বর। ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া বা এনকেফ্যালাইটিসের মত এই রোগের বহিঃপ্রকাশ জ্বর। এই জ্বর সাধারণ জ্বরের ওষুধে কমে গেলেও আবার ঘুরে ঘুরে আসে এবং সঠিক চিকিৎসা না হলে পেটে বুকে জল জমে শিশুর মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে।
রক্তে ডেঙ্গু বা ম্যালেরিয়ার জীবানু না থাকা সত্বেও অনেকেই অজানা জ্বরে মারা যায়। স্ক্রাব টাইফাস একধরণের ছোট মাকড়সা বা ছারপোকার মত একধরনের পোকার কামড় থেকে সৃষ্টি। এই স্ক্রাব টাইফাস জ্বর সৃষ্টিকারি পোকামাকড় ইঁদুরের মাধ্যমে মানুষের দেহে সংক্রামিত হয়। বিশেষ করে শিশুদের। রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে এই স্ক্রাব টাইফাস রোগ ধরার মত কোনও ল্যাবরেটরি এখনো পশ্চিমবঙ্গে নেই।
সম্প্রতি কোলাঘাটের এক চিকিৎসক এই রোগে আক্রান্ত বেশ কয়েকজন শিশুকে সুস্থ করে তুলেছেন। শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ প্রবীর ভৌমিক জানিয়েছেন, সম্প্রতি দীর্ঘদিন জ্বরে আক্রান্ত একটি শিশু কিছু লক্ষণ দেখে তাঁর সন্দেহ হওয়ায় তিনি ওই শিশুর রক্ত মুম্বই পাঠান। সেখানকার রিপোর্টে এই স্ক্রাব টাইফাস রোগের জীবানুর সন্ধান পাওয়া যায়। তারপর থেকে আরো বেশ কয়েকজন শিশু পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে তার কাছে চিকিৎসা করিয়ে ভাল হয়েছে। এদের মধ্যে ১৫ জন শিশুর দেহে এই রোগের জীবানুর দেখা মিলেছে। এই মারণ রোগ যাতে মড়কের আকার না নেয় তাই ডাঃ ভৌমিক তার কাছে সেরে ওঠা শিশু ও তার পরিবারের লোকেদের একত্রিত করে এলাকার মানুষকে সচেতন করার অনুরোধ জানান।

এই স্ক্রাব টাইফাস রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসারত বা ভাল হয়ে যাওয়া শিশুর মায়েরা জানিয়েছেন, তাদের শিশু দীর্ঘদিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত ছিল, ডাঃ ভৌমিকের চিকিৎসায় তাদের সন্তান ভাল হয়েছে।

এই স্ক্রাব টাইফাস রোগ সঠিকভাবে নির্নয় করে চিকিৎসা না হলে ক্রমাগত এটা মড়কের আকার ধারণ করতে পারে তাই চাই সচেতনতা। সঠিকভাবে চিকিৎসা করলে অজানা জ্বরে আর কোনও রোগীকে মরতে হবে না।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of