“তেলেঙ্গানায় ১৯ জন করোনা মৃত্যুর পেছনে তাবলিগি জামাতের সমাবেশ দায়ী”

আমাদের ভারত, ১৯ এপ্রিল :
ইতিমধ্যেই তাবলিগি জামাতের জামায়েত থেকে ফেরা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের খুঁজে বের করে তাদের করোনা পরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। সবকটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলেই এই নির্দেশ পৌঁছেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে রোহিঙ্গাদের অনেকেই তাবলিগি জামাতের সদস্যদের সংস্পর্শে এসেছে এবং তাদের মাধ্যমে দেশের অন্যান্য প্রান্তে সংক্রমণ ছড়িয়েছে। গতকালই সরকার জানিয়েছিল দেশে করোনা আক্রান্তের ৩০% এর জন্য দায়ী নিজামুদ্দিনের জমায়েত। এবার তেলেঙ্গানায় ১৯ জন করোনায় মৃত্যুর জন্য তাবলিগি জামাতের সমাবেশকেই দায়ী করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কিষান রেড্ডি।

শনিবার একটি ইংরেজি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, তাঁরা খবর পেয়েছেন তেলেঙ্গানায় এমন অনেক দেহ সৎকার করা হয়েছে যাদের সঙ্গে সরাসরি তাবলিগি জামাতের সংযোগ ছিল। কিন্তু তারা প্রশাসনকে কিছুই জানায়নি। সেই সংখ্যা কমপক্ষে ১৯।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরোধ করেন, “যাদের সঙ্গে ওই সমাবেশের যোগ রয়েছে তারা এগিয়ে এসে প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। সরকার দায়িত্ব নিয়ে তাদের করোনা টেস্ট করাবে। সরকার সকল দেশবাসীর জীবন বাঁচাতে চায়। তাদের ও তাদের পরিবারেরও জীবন বাঁচাতে চায়। সংক্রমণ রুখতে তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে।”

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানান তেলেঙ্গানা পুলিশ ১৩ জন রোহিঙ্গাকে ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করেছে যারা দিল্লি নিজামের সমাবেশে গিয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এর আগেই তাবলিগি জামাতের সমাবেশে যোগ দেওয়া ৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল তেলেঙ্গানাতে। নিজামুদ্দিনের ঘটনার পরই এই মারন ভাইরাসের সংক্রমণ সারা দেশ জুড়ে বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ে ব্যাপক হারে।

এদিকে রোহিঙ্গাদের অনেকেই তাবলিগি জামাতের ধর্মীয় জমায়েতে অংশগ্রহণকারীদের কাছাকাছি এসেছে। ফলে তাদের মাধ্যমে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের মধ্যেও করোনা ভাইরাস ভয়াবহ আকার নিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেই জন্যই রোহিঙ্গাদের পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সমস্ত রাজ্যের পুলিশ প্রধানদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হায়দ্রাবাদ দিল্লী, তেলেঙ্গানা, পাঞ্জাব, জম্মু ও মেওয়াঠে যেখানে রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে সেখানে বিশেষ সর্তকতা জারি করা হয়েছে। এমনও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রোহিঙ্গাদের অনেকেই নিজামুদ্দিনের ধর্মীয় জমায়াতের অংশগ্রহণের পর আর শিবিরে ফেরেননি। তাদেরও খুঁজে বের করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here