চুঁচুড়া হাসপাতালে গুলিকান্ডে ধৃত পাঁচজনের ৭ দিনের পুলিশ হেফাজত

আমাদের ভারত, হুগলি, ৯ আগস্ট: চুঁচুড়া হাসপাতালে দুষ্কৃতিকে গুলি কান্ডে পাঁচজনকে গ্রেফতার করল চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেটের পুলিশ কর্তারা। মঙ্গলবার ধৃতদের চুঁচুড়ার বিশেষ আদালতে তোলা হয়। সোমবারই জলপাইগুড়ি থেকে ঘটনার মূল অভিযুক্ত সহ মোট চারজনকে গ্রেফতার করে চন্দননগর কমিশনাটের বিশেষ টিম। ধৃতরা হল বাবু পাল ও তাঁর সঙ্গী বাবাই বালা, শেখর দে, প্রসেনজিৎ ব্যাপারী ও মিন্টু চৌধুরী।

শনিবার ঘটনার সূত্রপাত। সেদিন সকালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য টোটন বিশ্বাস নামে এক কুখ্যাত দুষ্কৃতিকে চুঁচুড়া হাসপাতালে আনে পুলিশ। স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর জরুরি বিভাগ থেকে বেরতেই টোটনকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় অন্য দলের দুষ্কৃতীরা। গুলি লাগে টোটনের পেটে। চুঁচুড়া সদর হাসপাতালেই অস্ত্রপচার করে টোটনের পেট থেকে গুলি বের করা হয়। এরপর উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এই ঘটনার পর হাসপাতাল ঘিরে ফেলে পুলিশ। কিন্তু ততক্ষণে আগ্নেয়াস্ত্র ফেলে পালিয়ে যায় হামলাকারীরা। সেই ঘটনাতেই অবশেষে গ্রেফতার করা হল মূল অভিযুক্ত-সহ মোট ৫বজনকে। পুলিশ সূত্রে খবর, জলপাইগুড়ি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ লাগোয়া এলাকায় আত্মগোপন করেছিল তারা। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে জলপাইগুড়ি রওনা দেয় চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেটের একটি দল। কোতয়ালি থানার পুলিশের সহযোগিতায় গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্তদের। তাদের সকলের বাড়ি হুগলিতে।

এদিন ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চালিয়ে রাতেই কল্যাণী থেকে মন্টু চৌধুরী নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করে চুঁচুড়া থানার পুলিশ। ধৃত পাঁচজনকেই এদিন চুঁচুড়ার বিশেষ আদালতে তোলা হয়। এদিন সরকার পক্ষের আইনজীবী ধৃতদের ১০ দিনের জন্য পুলিশ হেফাজতের আবেদন জানালে বিচারক ৭ দিনের পুলিশ হেফাজত মঞ্জুর করেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here