গোটা একটা দশক নষ্ট হয়ে গেছে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতিতে, কংগ্রেসকে তুলোধোনা মোদীর

আমাদের ভারত, ১৪ মে: কংগ্রেসের চিন্তন শিবিরে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিজেপি ও নরেন্দ্র মোদী সরকারের সমালোচনায় মুখর হয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী। শুক্রবার তার পাল্টা জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী। কংগ্রেসের পরিবারতন্ত্রকে কটাক্ষ করে মোদী বলেন, গোটা একটা দর্শক নষ্ট হয়ে গিয়েছে স্বজনপোষণ, নীতি গ্রহণের অক্ষমতা ও দুর্নীতিতে।”

মোদী দাবি করেছেন, বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পরই দেশের যুবদের উদ্ভাবনী শক্তির উপর ভরসা তৈরি হয়েছে এবং স্টার্টআপ সংস্থা চালু করার জন্য যথাযথ পরিবেশ তৈরি হয়েছে। রাজস্থানের উদয়পুরে চিন্তন শিবিরের আয়োজন করেছে কংগ্রেস। দলের ভেতরে যাবতীয় সমস্যার সমাধান ও সাংগঠনিক পরিবর্তনের জন্য এই চিন্তন শিবির‌। এই শিবিরের প্রথম দিনেই প্রধানমন্ত্রী মোদী ও বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে তিনি ধর্মীয় মেরুকরণ, গোটা দেশে হিংসার পরিবেশ তৈরি করার অভিযোগ করেছেন। একই সঙ্গে কংগ্রেস নেত্রী অভিযোগ করেছেন, দেশের আসল সমস্যাগুলি থেকে সাধারণ মানুষের নজর সরাতেই ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে বিজেপি।

কিন্তু কংগ্রেস নেত্রীর এই দোষারোপ শুনে চুপ করে থাকেননি নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে মধ্যপ্রদেশের স্টার্টআপ কনক্লেভের উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৪ সালে দেশে মাত্র ৩০০-৪০০ স্টার্টআপ সংস্থা ছিল। কিন্তু শেষ আট বছরের স্বীকৃত স্টার্টআপ সংস্থার সংখ্যায় ৭০ হাজার পেরিয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বরাবরই নতুন কিছু করার একটি আগ্রহ রয়েছে ভারতীয়দের মধ্যে। তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে উদ্ভাবনের সময় সেটা দেখা গেছে। নতুন সংস্থা তৈরির জন্য যে পরিবেশ পরিকাঠামো সমর্থন প্রয়োজন তা ছিল আগে। আমরা দেখেছি কিভাবে স্বজনপোষণ, নীতি গ্রহণের অক্ষমতা ও দুর্নীতিতে গোটা একটা দশক নষ্ট হয়ে গেছে। আমাদের যুব প্রজন্মের চোখে নতুন স্বপ্ন রয়েছে। নতুন কিছু তৈরি করার জন্য আগ্রহ রয়েছে। কিন্তু আগের সরকারের কোন স্বচ্ছ নীতি না থাকায় তারা বিভ্রান্তই হত।” তিনি বলেন, বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশের যুব প্রজন্মের মধ্যে উদ্ভাবনী শক্তিকে জাগিয়ে তোলা হয়েছে। নতুন চিন্তা ধারা উদ্ভাবনে শিল্পের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। মোদী বলেন, “প্রথমে আমরা পরিকাঠামোর উন্নয়নের বিনিয়োগ করেছি। নতুন নতুন চিন্তাভাবনাকে বাস্তবে পরিণত করতে যা কিছু সাহায্যের প্রয়োজন তা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আমাদের কারণেই স্টার্টআপ শুধুমাত্র মেট্রো শহর গুলির মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। স্টার্টআপের ক্ষেত্রে ভারত আজ বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম দেশ।” একই সঙ্গে কংগ্রেস আমলের তুলনায় গত আট বছরে দেশ যে ব্যাপক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গেছে তারও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here