হিন্দু অত্যাচারের প্রতিবাদে হিন্দু সন্ত্রাসবাদী সংগঠনকে বোমার প্রশিক্ষণ দেওয়ার অভিযোগ, ধৃত যুবক

100

সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা, ২৫ জানুয়ারি: দেশের একাধিক জঙ্গি কার্যকলাপের বোমা বানানোর প্রশিক্ষণ দিয়েছিল ওই যুবক। কিন্তু বরাবরই সে রয়ে গিয়েছে পুলিশের নাগালের বাইরে। কিন্তু চলতি সপ্তাহেই প্রতাপ হাজরা নামে ওই যুবককে কলকাতা থেকে গ্রেফতার করেছে মহারাষ্ট্র পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড বা এটিএস।

মহারাষ্ট্র পুলিশের অভিযোগ, জঙ্গি হামলার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে ওই যুবক। এছাড়া হিন্দু সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের বোমা বানানোর প্রশিক্ষণ দিত। তাঁরা জানিয়েছে, ২০১৭ সালে পুনের সানবার্ন মিউজিক ফেস্টিভ্যালে জঙ্গি হামলার পরিকল্পনা এবং ২০১৮ সালে নাল্লাসোপাড়ায় উদ্ধার হওয়া প্রচুর বিস্ফোরক ও অস্ত্রশস্ত্র, ওই দুই ঘটনায় ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল । ধৃতরা পুলিশকে জেরায় জানায়, প্রতাপই তাদের বোমা বানানোর প্রশিক্ষণ দিয়েছিল। এরপর থেকেই প্রতাপের খোঁজে রাজ্যে এবং ভিনরাজ্যে তল্লাশি শুরু করে মহারাষ্ট্র পুলিশ।

কিন্তু কেন মহারাষ্ট্রে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে বোমা বানানোর প্রশিক্ষণ দিত প্রতাপ? প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, ভবানী সেনা নামে একটি পৃথক হিন্দু সন্ত্রাসী গোষ্ঠী তৈরি করেছিল প্রতাপ। হিন্দুদের উপর অত্যাচার অথবা পশ্চিমী সংস্কৃতির অনুকরণ এবং নিষ্পেষণ মোটেই পছন্দ ছিল না এই গোষ্ঠীর। তাই হিন্দুদের উপর অত্যাচারের প্রতিবাদ করতেই
এই দুই হামলায় প্রত্যক্ষ মদত দিয়েছিল সে। এমনকি ২০১৫ সালে দক্ষিণ ২৪ পরগনার উস্থিতেও দাঙ্গার পিছনে সে যুক্ত ছিল বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। সে ঘটনার জন্য তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে সে জামিনে মুক্তি পায়।

সূত্রের খবর, তাকে ইতিমধ্যেই ট্রানজি়ট রিমাণ্ডে নিয়ে গেছে মহারাষ্ট্র পুলিশ। আপাতত ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত তাকে পুলিশি হেফাজতে রাখা হবে। একইসঙ্গে তাকে জেরা করে তার দলের আরও সাঙ্গ-পাঙ্গদের বিষয় জানার চেষ্টা করা হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here