জয় কিষান, জয় জওয়ান, জয় বিজ্ঞানের পর মোদী জুড়লেন জয় অনুসন্ধান

আমাদের ভারত, ১৫ আগস্ট: ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসের লালকেল্লা থেকে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী। জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে দেশবাসীকে স্বাধীনতা দিবসের অভিনন্দন জানান। বলেন, নতুন উদ্যমে এগিয়ে যাবার সময় এখন। লালবাহাদুর শাস্ত্রী ও অটল বিহারী বাজপেয়ীর মন্ত্রকে আর এক কদম এগিয়ে নিয়ে যেতে ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসে মোদীর সংযোজন জয় অনুসন্ধান। উন্নয়নশীল থেকে উন্নত দেশের শিখরে পৌঁছে দিতে দেশবাসীর কাছে “জয় কিষান, জয় জওয়ান, জয় বিজ্ঞান, জয় অনুসন্ধান” এর মতো নয়া মন্ত্র তুলে ধরলেন আজ।

আজ মোদী কৃতজ্ঞতা জানালেন, গান্ধিজী, নেতাজী সুভাষচন্দ্র, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, স্বামী বিবেকানন্দ, ঝাঁসির রাণী লক্ষ্মীবাঈ, বাবাসাহেব আম্বেদকর, বীর সাভারকার এর মতো অগনিত দেশভক্তদের। তিনি বলেন, অনেক অনেক সংঘর্ষের মধ্যে দিয়ে এই স্বাধীনতার প্রাপ্তি হয়েছে। আছ সারা বিশ্বের কাছে ভারতের গণতন্ত্র সর্বজনবিদিত। ভারত গণতন্ত্রের ধাত্রীভূমি।

তিনি বলেন, আগামী ২৫ বছর দেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বড় সংকল্প নিয়ে এগোতে হবে। তবেই দেশবাসীর সমস্ত স্বপ্ন পূরণ হবে। তিনি পাঁচটি সংকল্প বেঁধে দেন দেশবাসীর কাছে।
এক, ভারতের বিকাশ,
দ্বিতীয় সংকল্প দাসত্ব থেকে মুক্তি,
তৃতীয় সংকল্প উত্তরাধিকার নিয়ে গর্ব,
চতুর্থ সংকল্প ঐক্যবদ্ধ থাকার শপথ,
পঞ্চম সংকল্প নাগরিক কর্তব্য অবিচল থাকা। মোদী বলেন, তাঁর লক্ষ্য আগামী ২৫ বছরের মধ্যে উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত হতে হবে ভারতকে। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে দেশের মহিলারা তাই তাদের প্রতি বিশেষ সম্মান প্রদর্শন দরকার। তিনি বলেন নারী শক্তির পাশে থাকা অত্যন্ত জরুরী।

লালকেল্লা থেকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি আবারও আত্মনির্ভর হওয়ার ডাক দেন। তিনি বলেন, লালবাহাদুর শাস্ত্রী “জয় জওয়ান জয় কিষান” এর মন্ত্র দিয়েছিলেন। অটল বিহারী বাজপেয়ী এর সাথে “জয় জওয়ান জয় কিষান জয় বিজ্ঞান” যোগ করেছিলেন।আর এবার অমৃত মহোৎসবের অমৃত কালে তাতে যোগ হবে জয় অনুসন্ধান। তাই আজ থেকে এই মন্ত্র হলো “জয় জওয়ান জয় কিষান জয় বিজ্ঞান জয় অনুসন্ধান”। কারণ অনুসন্ধান মানুষকে পূর্ণতার দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। আত্মনির্ভরশীল হবার সাহস যোগায়। তাই আগামী দিনে ভারতকে উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত দেশ হতে অনুসন্ধানে জোর দিতে হবে।

একই সঙ্গে আজ তিনি পরিবারবাদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরব হন। তার মতে ভারত তার স্বপ্ন পূরণ থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে কারণ দুর্নীতি ও পরিবারবাদ তার বেড়ি হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই এগিয়ে যেতে এই দুই শৃঙ্খলকে সরাতে হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here