দিলীপ ঘোষকে পরিযায়ী পাখি বলে কটাক্ষ অজিত মাইতির

জে মাহাতো, আমাদের ভারত, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২৭ জুন: দিলীপ ঘোষরা পরিযায়ী পাখি, মাঠে ঘাটে নেমে কাজ করেন না তাই তাদের করোনা হয় না, শনিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে এভাবেই কটাক্ষ করলেন তৃণমূলের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সভাপতি অজিত মাইতি। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, দিলীপবাবু তিনদিন ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর সফরে আছেন। এরই মাঝে তিনি খড়্গপুরকে তৃণমূল করোনা হাবে পরিণত করেছে বলে মন্তব্য করেন। খড়্গপুর পুরসভার বিদায়ী উপপুরপ্রধান করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ওই মন্তব্য করেছিলেন। আবার তৃণমূল নেতাদের সংস্রবে আসা প্রায় একশো জনের কোয়ারেন্টাইনে থাকা নিয়েও দিলীপ ঘোষ প্রশ্ন তোলেন। যদিও তাদের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

শনিবার বিজেপি ও কেন্দ্রীয় সরকারের নীতিহীনতার প্রতিবাদে ডাকা সাংবাদিক সম্মেলনে অজিতবাবু দিলীপবাবুকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ওদের সবেতেই আপত্তি। কেন্দ্রীয় সরকারেরই পাঠানো কিটে করোনা পরিক্ষা হচ্ছে। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও প্রশ্ন তুলছেন দিলীপ বাবুরা। অজিতবাবু বলেছেন, দিলীপবাবুরা মাঠে ঘাটে ঘুরে কাজ করেননি। কলকাতার ঘরে বসেই সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি দিয়ে দায়িত্ব সেরেছেন। তাই তাদের করোনাও হয়নি। সাধারণ মানুষের দুঃখ দুর্দশার সাথী হতে গিয়ে কোনও কোনও তৃণমূল নেতাকর্মী করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তাতে কি এসে যায়। চিকিৎসাতে তারা সুস্থও হয়ে উঠছেন। দিলীপবাবুর মতো তারা পরিযায়ী পাখি নন। এদিন কেন্দ্রীয় সরকারের বিদেশ নীতি থেকে শুরু করে অস্বাভাবিক হারে পেট্রোল ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি সব বিষয়েই বিজেপির সমালোচনা করেছেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি ও জেলা কো অর্ডিনেটর দীনেন রায়। অজিত মাইতি সিপিএমেরও সমালোচনা করে বলেন, ৩৪ বছর শাসন করার পর বাংলায় দল গুটিয়ে  বিজেপির কাছে বন্ধকী হয়ে গেছে। বিজেপির বিরুদ্ধে তাদেরও রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করা উচিত। তবে সিপিএম যদি হাত-পা গুটিয়ে বসে থাকে তবে তৃণমূল  একাই বিজেপির মোকাবিলা করবে।

একই ইস্যুতে এদিন ঝাড়গ্রাম জেলাতেও সাংবাদিক সম্মেলন করেন তৃণমূল জেলা সভাপতি বীরবাহা সোরেন টুডু। ঝাড়গ্রাম ফেডারেশন হলে ডাকা ওই সভায় তিনিও কেন্দ্রীয় সরকার ও বিজেপির ভ্রান্ত নীতির সমালোচনা করেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here