নির্মম ভাবে এক বৃদ্ধকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ মদ্যপ যুবকের বিরুদ্ধে, আশঙ্কাজনক অবস্থায় শান্তিপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

স্নেহাশীষ মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ১৯ মে: মদ্যপ যুবকের হাতে গুরুতর জখম ৬৭ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ। ইট দিয়ে মাথা থেঁতলে দেওয়ার অভিযোগ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধ। ঘটনাটি শান্তিপুর রেল স্টেশন সংলগ্ন নীলমণি মার্কেটের।

অভিযোগ, শান্তিপুর হরেকৃষ্ণ পল্লী এলাকার যুবক অমল হালদার তার দলবল, আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে প্রতিদিনই ওই মার্কেটে মদ্যপ অবস্থায় তাণ্ডব চালায়, এবং ওই মার্কেটের একাধিক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে জোরপূর্বক টাকা চায়। ব্যবসায়ীরা টাকা দিতে রাজি না হলে তাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এমনকি প্রাণে মারার হুমকি পর্যন্ত দেয়। ওই যুবকের প্রতিদিনের তাণ্ডবে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেন ওই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। বুধবার ওই মার্কেটের সমস্ত ব্যবসায়ীরা অভিযুক্ত অমল হালদারের বিরুদ্ধে একটি মাচ পিটিশন সংগ্রহ করছিল, সেই সময় খবর পায় অমল হালদার। তারপরেই তার দলবল নিয়ে এসে হামলা চালায় ওই ব্যবসায়ীদের উপর। অভিযোগ, ওই মার্কেটের সহ-সভাপতি ৬৭ বছর বয়সী যোগেশ শিকদারকে বেধড়ক মারধর করে। এখানেই শেষ নয়, ইট দিয়ে তার মাথায় মেরে মাথা থেতলে দেয়। এছাড়াও শরীরের অন্যান্য অংশে বেধড়ক মারধর করে। ঘটনাস্থল থেকে অন্যান্য ব্যবসায়ীরা গুরুতর জখম যোগেশ শিকদারকে শান্তিপুর হাসপাতালে নিয়ে যায় চিকিৎসার জন্য।

জানা যায় গুরুতর আশঙ্কাজনক অবস্থায় শান্তিপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আক্রান্ত যোগেশ শিকদার। অভিযোগের সুরে ব্যবসায়ীরা বলেন, অভিযুক্ত অমল হালদারের প্রতিদিনের তাণ্ডবের ঘটনায় শান্তিপুরের বিধায়ক ব্রজকিশোর গোস্বামীকে জানাবে বলেই আজ তারা মাচ পিটিশন সংগ্রহ করছিলেন। তখনই মদ্যপ অবস্থায় দলবল নিয়ে আচমকা হামলা করে অমল হালদার। এই ঘটনায় অভিযুক্ত অমল হালদারের বিরুদ্ধে শান্তিপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে নীলমণি মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। এছাড়াও ব্যবসায়ীদের পুলিশের কাছে আর্জি, অবিলম্বে অভিযুক্ত অমল হালদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিক পুলিশ। না হলে তার তাণ্ডব আর কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। যদিও আজকের এই ঘটনা শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ককে লিখিতভাবে জানাবেন ওই ব্যবসায়ীরা এমনটাই জানা যায় ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here