কম্পিউটার শেখানোর আছিলায় ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের অভিযোগ স্কুলের শিক্ষা কর্মীর বিরুদ্ধে

কুমারেশ রায়, আমাদের ভারত, মেদিনীপুর, ২০ সেপ্টেম্বর: স্কুলে কম্পিউটার শেখানোর আছিলায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন অত্যাচারের এবং ধর্ষণের অভিযোগ উঠল স্কুলের শিক্ষা কর্মীর বিরুদ্ধে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, চন্দ্রকোনা ব্লকের মনোহরপুর শ্রী রামকৃষ্ণ হাই স্কুলের শিক্ষাকর্মী দিলীপ প্রামানিক ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে কম্পিউটারে বাংলা ও ইংরেজি টাইপ শেখানোর শেখানোর প্রস্তাব দেয়। দিলীপের বাড়ি মনোহরপুরে এবং ওই ছাত্রীরও বাড়ি একই গ্রামে। স্কুল বন্ধ হলেও সে ওই ছাত্রীকে বিকেলে স্কুলে কম্পিউটার শিখতে আসতে বলে। সেই কথা মত প্রতিদিন বিকেলে ছাত্রীটি স্কুলে দিলীপের কাছে কম্পিউটার শিখতে যেত। এখন স্কুল বন্ধ থাকায় স্কুল থাকতো ফাঁকা। কম্পিউটার শেখানোর সময় দিলীপ ওই ছাত্রীর সাথে নানা রকম অশালীন আচরণ করতে শুরু করে এবং যৌন অত্যাচার শুরু করে বলে অভিযোগ। সে ছাত্রীটিকে ভয় দেখায়, মুখ খুললে সোশ্যাল মিডিয়ায় তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে দেবে বলে ভয় দেখায়। এতোদিন ছাত্রীটি ভয় পেয়ে কিছু বলেনি, কিন্তু ১৯ সেপ্টেম্বর বিকেলে যৌন অত্যাচারের সাথে দিলীপ মেয়েটিকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। মেয়েটি চিৎকার শুরু করে এবং ছুটে বেরিয়ে আসে। ছাত্রীটি বাড়িতে এসে সবকিছু বলে দেয়। এলাকার লোকজন স্কুল ঘেরাও করে এবং স্কুলে তালা লাগিয়ে দেয়। দিলীপ কোনও রকমে পালিয়ে যায়। এলাকার মানুষজন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু করে।

পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, দিলীপ এখনো পলাতক। নির্যাতিতা মেয়েটির ২০ সেপ্টেম্বর মেডিকেল টেস্ট হবে। দিলীপের সন্ধানে পুলিশ তল্লাশি শুরু করেছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here