করোনায় রামপুরহাটে আরও এক যুবকের মৃত্যু, আক্রান্ত অনেক

আশিস মণ্ডল, রামপুরহাট, ৩০ জুলাই: রামপুরহাট স্বাস্থ্য জেলায় আরও যুবকের মৃত্যু হল। এনিয়ে রামপুরহাটে মহকুমায় পাঁচ জনের মৃত্যু হল। অন্যদিকে রামপুরহাট স্বাস্থ্য জেলায় বুধবার নতুনভাবে ২৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। সাপ্তাহিক সম্পূর্ণ লকডাউনে ছিল শুনশান। তবে লকডাউনের বিধি ভঙ্গকারীদের সবক শেখাতে গিয়ে আক্রান্ত হন রামপুরহাট থানার এক সাব ইনস্পেক্টর।

যত দিন যাচ্ছে রামপুরহাট মহকুমা জুড়ে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। বুধবার ভোরের দিকে রামপুরহাট কোভিড হাসপাতালে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি মুরারইয়ে। দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সার আক্রান্ত ছিলেন ওই যুবক। মুম্বাইয়ের ক্যান্সার হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছিল। কয়েকদিন আগে তাকে মুম্বাই থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে এসে কলকাতায় ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে দিন তিনেক আগে ভর্তি করা হয় রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। দিন তিনেক আগে তার কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট আসার পর তাকে রামপুরহাটের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এদিকে রামপুরহাট স্বাস্থ্য জেলায় এদিন ২৯ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। তার মধ্যে রামপুরহাট পুরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের হাটতলায় ১১ জন। ৮ নম্বর ওয়ার্ডে রয়েছেন পাঁচ জন। কোচবিহারের দিনহাটা এবং কলকাতার বিধাননগরের একজন করে রয়েছে। তারা কর্মসূত্রে রামপুরহাটে থাকতেন। এছাড়া রামপুরহাট ১ নম্বর ব্লক, ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লক, মুরারই ১ নম্বর ব্লকে বাকিরা রয়েছেন।
এদিকে সপ্তাহের তৃতীয় দিন সম্পূর্ণ লকডাউন বীরভূম জেলা ছিল শুনশান। দুপুরের দিকে রামপুরহাটের রামরামপুর গ্রামের কাছে এক যুবক বিধি ভেঙে রাস্তায় বের হওয়ায় তাকে মারধর করে পুলিশ। বাড়ির কাছেই ছেলেকে মারছে দেখে ছুটে যান যুবকের মা। অভিযোগ পুলিশ তার মাকেও লাঠি দিয়ে আঘাত করে। এরপরেই ওই যুবক ক্ষেপে গিয়ে পুলিশের গায়ে হাত তোলে। সে সময় পুলিশ ফিরে যায় থানায়। পরে প্রচুর পুলিশ নিয়ে গিয়ে ওই বাড়িতে হানা দেয়। কিন্তু অভিযুক্ত যুবককে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। তবে এনিয়ে মুখখুলতে চাননি কোন পুলিশ কর্তা।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here