ঝাড়গ্রামে লোধা সম্প্রদায় ভুক্ত মানুষজনের বাড়ি মেরামতের আবেদন

জে মাহাতো, ঝাড়গ্রাম, ১৫ অক্টোবর: বাম আমালে তৈরী হওয়া লোধা সম্প্রদায় ভুক্ত মানুষজনের বাড়িগুলিতে ফাটল ধরেছে। পাশাপাশি বাড়ির ছাদের চাঙ্গড়ও খসে পড়ছে। যার ফলে ঘরগুলির আবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে গেছে যে, যেকোন মুহূর্তে ভেঙ্গে পড়ে বড় বিপদ হতে পারে।

ঝাড়গ্রাম জেলা প্রশাসন জেলা জুড়ে শবর মানুষদের উন্নয়নের জন্য একাধিক প্রকল্প গ্রহন করেছে। অর্থনৈতিক মানোন্নয়ন থেকে শুরু করে সামজিকভাবে তাদের প্রথম সারিতে তুলে আনার নানা প্রয়াশ নিয়েছে প্রশাসন।লোধাদের নিয়ে তৈরি হয়েছে শতাধিক স্বনির্ভর গোষ্ঠী।সমবায় সমিতিও গঠিত হয়েছে। এত কিছুর মধ্যেও ঝাড়গ্রাম শহরের শবর পাড়াগুলিতে বাম জামানায় তৈরি ঘরগুলির অবস্থা খুবই সঙ্গিন। সেই ঘরগুলির যাতে সংস্কার করা হয় তার জন্য ঝাড়গ্রাম শহরের কদমকানন ইউনাইটেড ক্লাবের পক্ষ থেকে তালিকা দিয়ে ঝাড়গ্রামের জেলা শাসকের দফতরে এবং লোধা সেলের সদস্যর কাছে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। পাশাপাশি বেশ কিছু নতুন ঘর যাতে শবর মানুষদের জন্য করে দেওয়া হয় তার জন্য এবং শবর পাড়ার রাস্তা ঢালাই করে দেওয়ার আবেদন করা হয়েছে।
ঝাড়গ্রাম পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের শিরিষ চক এবং মাঝেরপাড়া এলাকায় প্রায় সত্তরটি ঘর সংস্কারের আবেদন করা হয়েছে। এছাড়াও ওই এলাকার শবর পাড়ায় একটি রাস্তা ঢালাই করার আবেদন রয়েছে।

ঝাড়গ্রামে বাম পুরবোর্ডের সময় দুটি পর্যায়ে ইনটিগ্রটেড হাউসিং অ্যান্ড স্লাম ডেভলপমেন্ট প্রোগ্রামের আধীন ঝাড়গ্রাম শহরের তিনটি এলাকায় লোধাদের জন্য শাতাধিক বাড়ি নির্মিত হয়েছিল। তার মধ্যে ঝাড়গ্রাম শহরের সব থেকে বড় শবর পাড়া কদমকানন এলাকায় সব থেকে বেশি ঘর নির্মিত হয়েছিল। অভিযোগ, বাড়িগুলি তৈরির পর থেকে তা সংস্কারের জন্য আর কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। দরিদ্র শবর দিন আনি দিন খান মানুষগুলি তাদের সেই ঘর মেরামত করতে পারেননি। ফলে তারা সেই ভাঙ্গাচোরা ঘরেই বসবাস করছে বা খড়, ত্রিপলের ছাউনি দেওয়া ঘরে বাস করছে।

এই বিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা লোধা সেলের সদস্য খগেন্দ্রনাথ মান্ডি বলেন, “ওদের আবেদেন আমি মহকুমা শাসকের কাছে পৌছে দেব। আমরা আশা সরকার যখন এত কাজ করছে তখন লোধাদের ঘর সংস্কার হবে।” এই বিষয়ে ঝাড়গ্রাম পুরসভা প্রশাসন সুবর্ন রায় বলেন, “আমরা গত বছর লোধা মানুষদের জন্য আঠেরোটি নতুন বাড়ি করে দিয়েছিলাম। তাই আমরা গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে যা করার তাই করব।’’ কদমকানান ইউনাইটেড ক্লাবের সম্পাদক প্রান্তিক মৈত্র বলেন, রাজ্য সরকার শবর মানুষদের আর্থিক এবং সামাজিক মানোন্নয়নের জন্য প্রচুর কাজ করছে। আমরা আশাবাদি শবর মানুষদের ঘর গুলিও দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করবে প্রাশাসন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here