লকডাউন উপেক্ষা করে তাস ও জুয়া, বাধা দেওয়ায় পুলিশের উপর হামলা

আমাদের ভারত, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, ১ এপ্রিল: লকডাউনকে উপেক্ষা করে চায়ের দোকানে চলছিল দেদার তাস ও জুয়া খেলার আসর। সেই খবর পেয়ে জীবনতলা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তা বন্ধ করতে গেলে পুলিশের উপর চড়াও হন স্থানীয় মানুষজন। পুলিশের গাড়ি ভাঙ্গচুরের পাশাপাশি তাদের বেধড়ক মারধর করা হয়। এই ঘটনায় এক এএসআই সহ পাঁচ পুলিশকর্মী গুরুতর জখম হয়েছেন। মঙ্গলবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে জীবনতলা থানার চন্ডীবাড়ি গ্রামে।

লকডাউনকে সফল করতে প্রথম দুদিন লাঠি হাতে তুলে নিয়েছিল পুলিশ। পুলিশের লাঠির ভয়ে দোকানপাট, রাস্তাঘাটে ভিড় কমতে শুরুও করেছিল। কিন্তু পুলিশের সেই লাঠি বন্ধ হতেই লকডাউনকে মানছেন না অনেকেই। এই ছবি সব থেকে বেশি ধরা পড়ছে গ্রাম গঞ্জে। বহু মানুষ এই লকডাউন মানছেন না সেখানে। গ্রামে, রাস্তার মোড়ে মোড়ে এখনো দুবেলা খোলা থাকছে চায়ের দোকান। আর সেই চায়ের দোকানে তাস, জুয়ার ঠেকের পাশাপাশি চলছে দেদার আড্ডা। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ক্যানিং ২ ব্লকের অন্তর্গত দেউলি ১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার চন্ডীবাড়ি গ্রামে এই ধরণের আড্ডা চলার খবর পেয়ে এএসআই গাজী মোস্তাফা কয়েকজন পুলিশকর্মীকে সাথে নিয়ে সেখানে যান। সেখানে গিয়ে চায়ের দোকান বন্ধ করার নির্দেশ দেন তিনি। পাশাপাশি তাস, জুয়া খেলা বন্ধ করে সকলকে নিজের নিজের বাড়ি চলে যেতে বলেন ঐ পুলিশকর্মী। অভিযোগ, সেই সময় অভিযুক্তরা পুলিশের নির্দেশ মানতে রাজি না হলে, পুলিশের সাথে তাদের বচসা বেধে যায়। এরপরেই পুলিশকর্মীদের কিল, চড়, ঘুষি মারা হয় বলে অভিযোগ। পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট ছুঁড়ে ভাঙ্গচুর করা হয় গাড়ি।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। সেই খবর পেয়ে জীবনতলা থানার বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়। আহত পুলিশকর্মীদের উদ্ধার করে মটেরদিঘি ব্লক প্রাথমিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় চিকিৎসার জন্য। এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কাউকে আটক বা গ্রেফতার করতে পারেনি জীবনতলা থানার পুলিশ। তবে অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here