সহজ হলো বৈষ্ণোদেবী দর্শন, ১২ ঘন্টার পথ ৮ ঘন্টায় পৌঁছে দেবে বন্দে এক্সপ্রেস,

সহজ হলো বৈষ্ণোদেবী দর্শন, ১২ ঘন্টার পথ ৮ ঘন্টায় পৌঁছে দেবে বন্দে এক্সপ্রেস,

আমাদের ভারত, ৩ অক্টোবর:বৃহস্পতিবার দিল্লি কাটারা বন্দে এক্সপ্রেসের আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা সূচনা করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। আগেই ট্রেনের ট্রায়াল হয়েছিল। আজ থেকে চালু হল ট্রেনের পরিষেবা। ট্রেনটির নাম দেওয়া হয়েছে শ্রী বৈষ্ণো দেবী কাটরা।

পরীক্ষামূলক যাত্রা সময় বন্দে এক্সপ্রেসের গতি ছিল ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার। কিন্তু যাত্রী নিয়ে বন্দে এক্সপ্রেস ছুটবে ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার। দিল্লি থেকে কাটারা যেতে সময় লাগত ১২ ঘন্টা। কিন্তু বন্দে এক্সপ্রেসে গন্তব্যে পৌঁছাবে মানুষ মাত্র ৮ ঘণ্টায়।

বন্দে এক্সপ্রেস প্রথম চালু হয়েছিল দিল্লি বারানসি রুটে। ২০২২ এর মধ্যে মোট ৪০ টি বন্দে এক্সপ্রেস শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে রেল মন্ত্রকের।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল বলেন ২০২২ সালের ১৫ ই আগস্টের মধ্যে রেলের সাহায্যে দেশের কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী পর্যন্ত সংযুক্ত করার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে অমিত শাহ বলেন, “রেল তার গতি, স্কেল এবং সেবার নীতিগুলি কে মাথায় রেখেই নির্ধারিত লক্ষ্যে এগোচ্ছে। শাহ আরো বলেন, “আমি গর্বিত যে এই মেডি ইন ইন্ডিয়া ট্রেনটি আজ এখান থেকে যাত্রা শুরু করলো”।

বৈষ্ণোদেবী কাটারা ট্রেনের রয়েছে ১৬ টি কোচ। প্রতিটি কোচে থাকছে প্রতিবন্ধী সহায়ক টয়লেটের ব্যবস্থা। প্রতিটি কোচে থাকবে পৃথক প্যান্ট্রিকার। রয়েছে সিসিটিভির নজরদারির ব্যবস্থা। দুটি ড্রাইভার কার দুটি এক্সিকিউটিভ চেয়ার কার এবং ১২ টি চেয়ার কোচ থাকবে। কোচে থাকা এলইডি স্ক্রিনে পরবর্তী স্টেশনের নাম ফুটে উঠবে এবং তার সম্পর্কে তথ্য জানানো হবে। মেট্রোর মতো প্রতিটি ট্রেনের দরজায় স্বয়ংক্রিয়। ট্রেন ছাড়ার পর দরজা নিজেই বন্ধ হয়ে যাবে। কোনরকম যান্ত্রিক ত্রুটি মেরামত করতে ১৫ থেকে ২০ জনের টেকনিক্যাল থাকবে বন্দে এক্সপ্রেসে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − 6 =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.