দু- একটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া ভাটপাড়া ও পানিহাটি পৌরসভার উপনির্বাচন মিটল শান্তিতে

আমাদের ভারত, ব্যারাকপুর, ২৬ জুন: আজ ভাটপাড়া পৌর সভার ৩ নং ওয়ার্ড ও পানিহাটি পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডে অনুষ্ঠিত হল উপ নির্বাচন।

প্রসঙ্গত, ভাটপাড়া পৌর সভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে বাম প্রার্থী গত পৌর নির্বাচনের আগে মারা যান ফলে স্থগিত হয় যায় ভোট গ্রহণ। অপর দিকে, পানিহাটিতে ৮ নম্বর ওয়ার্ডে নব নির্বাচিত কাউন্সিলর অনুপম দত্তকে গুলি করে খুন করে দুষ্কৃতীরা। যায় জন্য ওই ওয়ার্ডটি খালি হয়ে যায়। তাই পানিহাটির ওই ওয়ার্ডে আজ হল উপ নির্বাচন। আজ এই দুই ওয়ার্ডের উপ নির্বাচন ছিল মোটের ওপর শান্তিপূর্ণ।

পানিহাততে তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন অনুপম দত্তের স্ত্রী মীনাক্ষী দত্ত। এদিন তিনি সকালে নিজের স্বামীর ছবিতে মালা দিয়ে ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে পৌঁছে যান।এদিন সকালে ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের ভোটারদের উপস্থিতি স্বাভাবিক থাকলেও বেলা বাড়তেই ভোটারদের ভিড় হটাৎ উধাও হয়ে যায়।

এদিন এখানে রাজনৈতিক সৌজন্যতা দেখা গেল। ভোটগ্রহণ কেন্দ্র ঘুরে দেখার সময় সিপিআইএম প্রার্থী সুরজিৎ মুখার্জি ও তৃণমূল প্রার্থী মীনাক্ষী দত্ত সৌজন্য বিনিময় করেন। উভয় প্রার্থীরা উভয়কেই শুভ কামনা জানান ও শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। একসঙ্গে চা খান তারা।

অপর দিকে রবিবার সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণ ভাবে শুরু হয়েছিল ভাটপাড়া উপ নির্বাচন। কিন্তু বেলা বাড়তেই শুরু হয় গণ্ডগোল। ভাটপাড়া পৌর সভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে সেন্ট্রাল হিন্দু গার্লস স্কুলে ভোট শুরু হয়েছিল। এখানে সিপিএম ও বিজেপির বুথ এজেন্টদের অভিযোগ সকালে ভোট শুরু হতেই শুরু হয়ে গেছে ছাপ্পা ভোট দেওয়া। তাদের অভিযোগ, সকাল থেকেই তৃণমূলের কর্মীরা ফলস ভোট দেওয়া শুরু করেছে। তাদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলেও কোনো লাভ হয়নি। প্রশাসনকে বলা সত্বেও লাভ হচ্ছে না বলেই অভিযোগ করেন বাম ও বিজেপি এজেন্টরা।

এবার সেই অভিযোগের ভিত্তিতে প্রশাসন কড়া হতেই পুলিশ হাতে নাতে ধরে ফেললেন এক ভুয়ো ভোটারকে যিনি উপযুক্ত প্রমাণ ছাড়া ভোট দিতে এসে প্রশাসনের হাতে ধরা পড়ে যায়। এরপর তিনি ক্যামেরা দেখে দ্রুত চলে যান বুথ ছেড়ে। তবে এই সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেয় ভাটপাড়ার তৃণমূল নেতৃত্ব।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকদের সাথেও গন্ডগোলের সৃষ্টি হয়। পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দিলেও এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

আর এই পরিস্থিতির তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে
ভাটপাড়ার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ভোট লুঠের অভিযোগে অবশেষে বুথ থেকে এজেন্ট তুলে নিল সিপিআইএম। এদিন বাম নেতৃত্ব নির্বাচনী অধিকারিকের কাছে এই বিষয়ে স্মারকলিপি জমা দেন। ভাটপাড়া মোড়ে কিছুক্ষণ বিক্ষোভ দেখায় সিপিআইএমের নেতা-কর্মীরা। এদিন তারা পুনর্বিবেচনের দাবিও জানান।

এদিন বাম নেত্রী গার্গী চ্যাটার্জি বলেন, “আমরা তো ভোট বয়কট করিনি। সকাল থেকে আমরা কোনো ভোট বয়কট করিনি। সকাল থেকে তৃণমূল ভোট লুট করে যাচ্ছে। ওদেরকে ভোটার রা বয়কট করেছে।”

অপর দিকে ভাটপাড়া উপ নির্বাচন ঘিরে গণ্ডগোল শুরু হতেই ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি দেখে যান বিধায়ক পার্থ ভৌমিক। বাম ও বিজেপির তরফ থেকে ভাটপাড়া উপ নির্বাচনে ভুয়ো ভোটার ও ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ভাটপাড়া ৩ নং ওয়ার্ডে। আর এই খবর চাউর হতেই ঘটনাস্থলে আসে নৈহাটির বিধায়ক পার্থ ভৌমিক। তিনি বলেন, ভোট শান্তিপূর্ণ হচ্ছে সিপিএমের কাছে অভিযোগ করা ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই তাই ভোট নিয়ে অভিযোগ করছে। এদিন পার্থ ভৌমিক বলেন, “সিপিএম এখন শুধু কাগজে কলমে আছে। টিভির পর্দায় আছে। মানুষের পাশে ও সাথে নেই। ওরা জানে কোনো লাভ নেই ওদের, তাই এসব ছাপ্পার অভিযোগ তুলছে ।”

তবে সব মিলিয়ে ব্যারাকপুর মহকুমার এই দুই কেন্দ্রের উপ নির্বাচন শান্তি পূর্ণ ভাবেই মিটেছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here