বিজেপির অভিনন্দন যাত্রাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা সোনারপুরে

6

আমাদের ভারত, সোনারপুর, ১১ ফেব্রুয়ারি: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের স্বপক্ষে বিজেপির ডাকে মঙ্গলবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার সোনারপুর থেকে হরিনাভি মোড় পর্যন্ত পালিত হয় অভিনন্দন যাত্রা। আর সেই অভিনন্দন যাত্রাকে কেন্দ্র করেই এলাকায় যথেষ্ট উত্তেজনা ছড়ায়। এই যাত্রাকে কেন্দ্র করে বিজেপি ও তৃণমূল দুপক্ষের মধ্যে বচসা ও হাতাহাতি বেধে যায় সোনারপুর থানার বৈকুণ্ঠপুর মোড়ের কাছে। বিশাল পুলিশ বাহিনী শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে সক্ষম হয়। কিন্তু অভিনন্দন যাত্রা শেষে বৈকুণ্ঠপুর মোড়ের কাছে বিজেপির একটি প্রচারের গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙ্গচুর করার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

এদিন বিজেপি নেতা মুকুল রায়, জয়প্রকাশ মজুমদার, শর্বরী চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ সোনারপুর মোড় থেকে শুরু হয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের সমর্থনে অভিনন্দন যাত্রা। বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব থেকে শুরু করে জেলা সভাপতি হরিকৃষ্ণ দত্ত সকলেই মিছিলে পা মেলান। মিছিল কিছুটা এগোতেই বৈকুণ্ঠপুর মোড়ের কাছে বিজেপি কর্মীদের উদ্দেশ্যে কটুক্তি করতে থাকেন তৃণমূল কর্মীরা। সেই ঘটনার প্রতিবাদ করলে দুপক্ষের মধ্যে বচসা থেকে শুরু করে হাতাহাতি বেধে যায়। এর ফলে উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। পুলিশের সামনেই সমস্ত ঘটনাটি ঘটে। পরে বিশাল পুলিশবাহিনী পরিস্থিতি সামাল দেয়। যাতে আর কোথাও কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেই কারণে বিজেপির এই মিছিলকে কার্যত স্কট করে হরিনাভি মোড়ের দিকে নিয়ে যায় পুলিশ। এদিনের এই কর্মসূচিতে প্রায় দশ হাজার বিজেপি কর্মী সমর্থক যোগ দিয়েছিলেন। বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ শেষ হয় এই কর্মসূচি। কর্মসূচি শেষ হলে বিজেপি কর্মীদের একটি প্রচারের গাড়ি বৈকুণ্ঠপুর মোড় দিয়ে যখন ফিরছিল তখন সেই গাড়ির উপর তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা হামলা করে বলে অভিযোগ। ভেঙ্গে দেওয়া হয় গাড়িটি। সোনারপুর থানার পুলিশ গিয়ে গাড়িটি উদ্ধার করে।

বিজেপি নেতা মুকুল রায় বলেন, “ এরাজ্যে গণতন্ত্র নেই। আর সেই কারণেই বিজেপি মিটিং, মিছিল করার কথা বললেই অনুমতি দেওয়া হয় না। মিটিং, মিছিলে হামলা করা হয়। আজও তাই হয়েছে। পুলিশ নীরব দর্শক। পুলিশের সামনেই সব ঘটনা ঘটছে”।

যদিও এলাকার তৃণমূল নেতৃত্ব দাবি করেছেন, বিজেপির মিছিল যাওয়ার সময় তাদের দলীয় পতাকা ছিঁড়ে দিয়েছিল, সেই ঘটনার প্রতিবাদ করায় তাদের কর্মীদের উপর চড়াও হয় বিজেপির কর্মীরা। লাঠি দিয়ে মারধরও করে। এই নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা থাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বৈকুণ্ঠপুর এলাকায়।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here