বাড়িতে মিটিং করায় কাস্তে ও মুগুর দিয়ে বিজেপি কর্মীদের মারধর, আহত ৩

বাড়িতে মিটিং করায় কাস্তে ও মুগুর দিয়ে বিজেপি কর্মীদের মারধর, আহত ৩

আমাদের ভারত, উত্তর ২৪ পরগনা, ১৫ এপ্রিল :
বিজেপি কর্মীরা বাড়ির ছাদে বসে মিটিং করায় ধারাল কাস্তে ও বাঁশের মুগুর নিয়ে তাড়া করে মারধর করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কর্মীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় বিজেপির তিন কর্মী আহত হন। এদের মধ্যে একজনকে বাঁশের মুগুর দিয়ে আঘাত করে তার মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। রবিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার গোপালনগর থানার বৈরামপুর এলাকায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুটি কাস্তে ও একটি বাঁশের মুগুর উদ্ধার করে। আহতরা হলেন অরুণ বিশ্বাস, মহাদেব বিশ্বাস, বিকাশ সরকার। এদের মধ্যে গুরুত্বর জখম অরুণ বিশ্বাস। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা করে ছেড়ে দেওয়া হয়।

স্থানীয় সূত্রের খবর, আহত অরুণ বিশ্বাসের বাবা সত্যচরণ বিশ্বাস দীর্ঘ দিন ধরেই বিজেপি দলের সঙ্গে যুক্ত। ভোটের দিন ঠিক হওয়ার পর থেকেই বিজেপি কর্মীসমর্থকরা তাঁর বাড়িতে যাতাযাত করে। শনিবার রাতে সত্যচরণ বিশ্বাসের বাড়ির ছাদে বিজেপি কর্মীরা মিটিং করে। এই মিটিংয়ে গ্রামের অধিকাংশ মানুষ উপস্থিত ছিল। তৃণমূল কর্মীরা এই খবর পেয়ে, রবিবার রাতে সত্যচরণবাবুর ছেলে অরুণ বিশ্বাস সহ বিজেপির বেশ কয়েক জন কর্মীকে রাস্তায় আটকায় স্থানীয় তৃণমূল নেতা অজয় সাঁতরা, নীলরতন সাঁতরা ও জয়দেব সাঁতরা। তাদের হুমকি দেয় এই এলাকায় কারও বাড়িতে ও রাস্তায় বিজেপির মিটিং মিছিল করা যাবে না। গ্রামের সবাইকে তৃণমূল করতে হবে। এর প্রতিবাদ করতেই তৃণমূলের নেতারা বিজেপি কর্মীদের উপর কাস্তে ও বাঁশের মুগুর নিয়ে চড়াও হয়। পালানোর চেষ্টা করলে তাদেরকে তাড়া করে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। বাঁশের মুগুরের আঘাতে অরুণ বিশ্বাসের মাথা ফেটে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকে। খবর পেয়ে গ্রামবাসীরা ছুটে গেলে অভিযুক্তরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

বিজেপি নেতা বাবলু বিশ্বাস বলেন, তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে এলাকা জুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। অভিযোগের ১২ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি গোপালনগর থানার পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।  
 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + 6 =