প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনা প্রকল্প চালু হয়েছে কি না জানতে চাইল বিজেপি

স্নেহাশিস মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ২৮ এপ্রিল:
“প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনা প্রকল্প” চালু হয়েছে কি না এবং হলে কোথায় কোথায় হয়েছে এবং না হলে কি কারণে হয়নি ও কবে থেকে চালু হবে তা বিজেপি জানতে চাইল নাকাশিপাড়া সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিকের কাছে।

করোনা মোকাবিলায় লকডাউনের সময় দেশের গরিব দুঃস্থ মানুষদের খাবার সরবরাহের উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় সরকার “প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনা প্রকল্প” সারাদেশে কার্যকর করার কথা ঘোষণা করেছিলেন। এই প্রকল্পের আওতায় দেশের কোটি কোটি গরিব মানুষ বিনামূল্যে আগামী তিন মাস মাথাপিছু ৫ কেজি করে চাল ও গম পাবেন। এছাড়াও প্রতি পরিবারপিছু মাসে এক কেজি করে ডাল বিনামূল্যে এই পরিবারগুলিকে দেওয়া হবে বলে কেন্দ্রীয় সরকার লকডাউনের সময়ই ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু নাকাশিপাড়া বিজেপি মন্ডলের তরফে অভিযোগ, কেন্দ্রীয় সরকারের এই প্রকল্পের সুফল এখনো পর্যন্ত নাকাশিপাড়ার দুঃস্থ পরিবারগুলির কাছে এসে পৌঁছয়নি। এই ব্যর্থতার জন্য নাকাশিপাড়া বিজেপি মন্ডল রাজ্য প্রশাসনকেই দায়ী করছে।

এছাড়া বুধবার বিজেপি মণ্ডলের ডেপুটেশনে বিভিন্ন দাবিগুলোর মধ্যে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনা প্রকল্পে কোন কোন শ্রেণির রেশন কার্ড হোল্ডার কি অনুপাতে খাদ্যশস্য পাবেন তা ব্লক অফিসে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে এবং সংশ্লিষ্ট রেশন দোকানে সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিকের স্বাক্ষর সহ টাঙ্গানোর দাবি করেন।ডিজিটাল রেশন কার্ড যারা পাননি তাদের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের এই প্রকল্প পাওয়ার কি কি ব্যবস্থা রাজ্য প্রশাসনের তরফে করা হয়েছে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। এছাড়াও কোনও অবস্থাতেই রাজনৈতিক দলের জনপ্রতিনিধিরা যেন প্রধানমন্ত্রী অন্ন যোজনা প্রকল্পে বিশেষ সুবিধা না নিতে পারে তা ব্লক আধিকারিককে ডেপুটেশনের মাধ্যমে জানানো হয়।

নদিয়া জেলার বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রঞ্জন অধিকারী জানান, প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ প্রকল্পের মাধ্যমে যে ৫ কেজি চাল গরিব মানুষদের দেওয়ার কথা তা গত এপ্রিল মাস থেকে দেওয়ার কথা ছিল।কিন্তু এই মাসে যে রেশন সামগ্রী রাজ্য সরকার মানুষকে দেয় তাতে কোনো অতিরিক্ত মাল দেওয়া হয়নি।যে রেশনিং ব্যবস্থায় মানুষকে রেশন দেওয়া হয়েছে তার সঙ্গে যদি মাথাপিছু এই পাঁচ কেজি অতিরিক্ত চাল দেওয়া হতো তাহলে গরিব মানুষদের ঘরে খাবারের এই সংকট দেখা দিত না। পাশাপাশি রাজনৈতিক কারণে বহু মানুষকে এই সংকটের সময় তাদের পাশে দাঁড়াতে হয়েছে, আর সেটা নিয়ে রাজনৈতিক বিতর্ক হয়েছে। বিজেপির সাংসদদেরও ত্রাণ বিলি করতে দেওয়া হয়নি। অপরদিকে রেশন ব্যবস্থা যেখানে আছে শাসক দল সেখান থেকে প্রতিটা রেশন ডিলারের কাছ থেকে ত্রাণের নাম করে তোলাবাজির হিসাবে রেশন ডিলারের থেকে বস্তা বস্তা চাল নিজেদের ঘরে তুলেছে। এই জিনিসগুলো তারা কোথা থেকে পেল? তারা গরিব মানুষদের রেশন সামগ্রী কম দিয়ে ক্ষতিপূরণ করেছে। অর্থাৎ গরিব মানুষদের পেট দুদিক থেকেই কাটা গেছে। প্রথমত রেশনে কম মাল পেল, দ্বিতীয়তঃ যাদের প্রয়োজন নেই এই দুঃস্থ মানুষদের সেই সমস্ত মাল চুরি করে নিয়ে নেতাকর্মীদের পেট ভরানো হল। এই বিষয়কে কেন্দ্র করে আজ ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছে। আগামী দিনের নদিয়া জেলার সমস্ত পৌরসভা পঞ্চায়েতে আমরা এই ডেপুটেশন দেব।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here