বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, অভিযোগ খুনের

আমাদের ভারত, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, ৩০ জুলাই:
দক্ষিণ ২৪ পরগনার সাগর থানার অন্তর্গত ঘোরামারা দ্বীপের হাটখোলা এলাকায় এক বিজেপি কর্মী তথা স্থানীয় বুথ সম্পাদক গৌতম পাত্রের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। বৃহস্পতিবার সকালে উদ্ধার হয় গৌতমের ঝুলন্ত মৃতদেহ। এলাকার বিজেপি নেতাদের দাবি, বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে গৌতমের দেহ। যদিও বিজেপির এই অভিযোগ মানতে নারাজ তৃণমূল। তৃণমূলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন স্থানীয় বিধায়ক বঙ্কিম হাজরা।

স্থানীয় সুত্রের খবর, গত কয়েকদিন আগে স্থানীয় এক মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে গৌতমের বিরুদ্ধে। সেই কারণে এলাকায় শালিশি সভা বসানো হয়েছিল বলে দাবি স্থানীয়দের। বিজেপির দাবি ঘোড়ামারা দ্বীপে আমফান নিয়ে দুর্নীতির প্রতিবাদে যে আন্দোলন চলছে তার প্রথম সারিতে রয়েছে গৌতম। কিছুদিন আগে এ বিষয়ে স্থানীয় পঞ্চায়েত অফিস ঘেরাও করেছিল বিজেপি। সেখানেও গৌতম নেতৃত্ব দিয়েছিল। সেই কারণে পরিকল্পিত ভাবে গৌতমকে বদনাম করা হয়। সেই কারণে খুনও করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন এলাকার বিজেপি নেতৃত্ব।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিজেপি নেতা অভিজিৎ দাস বলেন, “ পরিকল্পনা করেই খুন করা হয়েছে আমাদের দলের সক্রিয় কর্মীকে। এর পিছনে তৃণমূলের হাত রয়েছে। আমরা এ বিষয়ে সঠিক তদন্ত করে দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি”। 

যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করে সাগরের বিধায়ক বঙ্কিম হাজরা বলেন, “ সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। এই ঘটনায় তৃণমূলের কোনও হাত নেই। তৃণমূলকে বদনাম করার জন্যই বিজেপি মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে”।

এদিন সকালে সাগর থানার পুলিশ যখন ঘটনার খবর পেয়ে সেখানে মৃতদেহ উদ্ধার করতে যান তখন এলাকার বিজেপি কর্মীরা বাধা দেয়। পুলিশ মৃদু লাঠি চার্জ করে দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়। বৃহস্পতিবার বিকেলে গৌতম পাত্রকে খুনের প্রতিবাদে সাগর থানার সামনে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। পুলিশ একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।   

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here