পিকের টিমের সদস্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখিয়েও ভুল স্বীকার করলেন ব্লক নেতারা

কুমারেশ রায়, আমাদের ভারত, মেদিনীপুর, ১৭ সেপ্টেম্বর : গতকাল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনার দুই ব্লকে তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক কমিটি পরিবর্তন করার পর চন্দ্রকোনায় তৃণমূল কর্মী ও নেতাদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। জগজিৎ সরকারকে ওই ব্লকের নতুন সভাপতির পদ দেওয়া হয়। নতুন ব্লক সভাপতির নাম ঘোষণার পর চন্দ্রকোনায়  গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে আসে। বুধবার চন্দ্রকোনা ২ ব্লকের তৃণমূল ব্লক পার্টি অফিসের সামনে কয়েক হাজার কর্মী বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। তাদের সাথে নেতারাও ছিলেন। শুধু তাই নয়, বুথ সভাপতি থেকে শুরু করে বেশ কয়েকজন নেতা ইস্তফা পত্র দেন। দুপুরে পিকের টিম সমাধানের চেষ্টা করলেও কোনো সমাধান সূত্র মেলেনি, বরং পিকের টিম বিক্ষোভের মুখে পড়ে।তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ কর্মীরা পিকের টিমের সদস্যদের ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান।

এর ফলে চন্দ্রকোনা তৃণমূল পার্টি অফিসের সামনে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। নতুন ব্লক সভাপতি জগজিৎ সরকারের নাম শোনার পর চন্দ্রকোনার দাপুটে তৃণমূল নেতা রামকৃষ্ণ রায় ও সঞ্জিত মিদ্দার অনুগামীরা জগজিতকে অযোগ্য বলে দাবি করেন। তারা জগজিতবাবুর নামে আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ করেন। এরপর পাঁচজন অঞ্চল সভাপতি সহ ওই দুই নেতা কর্মীরা ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেন দলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতির কাছে। ব্লক সভাপতি পরিবর্তনের পরে পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোনা এলাকায় তৃণমূলের কোন্দল ঠেকাতে বৃহস্পতিবার তড়িঘড়ি আলোচনায় বসেন, তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি। সেই বৈঠকে যোগ দিতে বৃহস্পতিবার ওই ব্লকের কয়েকজন নেতা মেদিনীপুরে যান। সেই বৈঠকের পরে অজিত মাইতি সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়ে দেন, দলের নির্দেশ মেনে চলতে হবে। কোনও ভাবেই
বিজেপিকে সুযোগ দেওয়া যাবে না। দলের কর্মীদের বোঝানো হয়েছে। অজিতবাবু আরো বলেন, সাময়িক উত্তেজনার বশে এই ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার ফায়দা বিজেপি যাতে না তুলতে পারে সে বিষয়টিও দেখা হবে এবং ওই ব্লকের সভাপতি কে হবেন তা নিয়ে রাজ্য নেতৃত্ব সিদ্ধান্ত নেবেন।

আগামী বিধানসভা নির্বাচনে চন্দ্রকোনা বিধানসভা
আসনটিতে যাতে তৃণমূল জিততে পারে এখন থেকেই সেই লড়াই শুরু হবে বলে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here