এবারও পুজো মন্ডপের মাইকের গান শুনে কি ঘুম ভাঙবে? আশঙ্কায় সাউন্ড সিস্টেম ব্যবসায়ীরা

স্বরূপ দত্ত, উত্তর দিনাজপুর, ৭ অক্টোবর: প্রকৃতির নিয়ম মেনে এবারেও আকাশে বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে সাদা পেঁজা তুলো মেঘ। আপন মনে সাদা কাশফুল মাথা দোলাচ্ছে।ভোরের বেলা শিশির ভেজা শিউলি ফুল জানান দিচ্ছে শরৎ এসেছে। মায়ের আগমনী সুর দিকে দিকে। প্রকৃতি পুজোর জানান দিলেও করোনার আবহে পুজোর সেই গন্ধ এবার আসছে না। নীল আকাশের বুকে সাদা পেঁজা তুলোর মেঘ খুশীতে ভেসে বেড়ালেও এবার পুজোয় মন ভার আনন্দের অন্যতম প্রধান উপকরন সাউন্ড সিস্টেম ও মাইক ব্যাবসায়ীদের।

এবার নমো নমো করে পুজো কমিটিগুলো মায়ের আরাধনা সারবে তাই মাইকে বা সাউন্ড সিস্টেমে গান কি এবার আদৌ বাজবে মন্ডপে মন্ডপে! সেই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে মাইক ব্যাবসায়ীদের মাথায়। কেননা এখনও পর্যন্ত কোনও পুজো কমিটিই সাউন্ড সিস্টেম বা মাইক বাজানোর জন্য অর্ডার দিয়ে যায়নি। সব পূজো কমিটিই কাটছাঁট করেছে তাদের বাজেটে। সেই বাজেট কাটছাঁটে কোপ পড়তে পারে মন্ডপে মাইকের ব্যাবহারেও। এই আশঙ্কাতেই রয়েছেন উত্তরবঙ্গের অন্যতম সেরা রায়গঞ্জ শহরের মাইক ও সাউন্ড সিস্টেম ব্যাবসায়ীরা।

পুজোতে প্রতিটি পূজো মন্ডপে থিম ও আলোকসজ্জা যেমন মানুষের নজর কাড়ে তেমনি, সাউন্ড সিস্টেমও পুজোতে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। মাইক ও সাউন্ডবক্স ছাড়া পূজো যেন বেমানান। পূজোতে প্রাণের সঞ্চার করে এই মাইক ও সাউন্ডবক্স। পুজোর আর মাত্র কয়েকটা দিন বাকি। কিন্তু এবছর করোনার কারনে সবকিছু যেন থেমে রয়েছে। রায়গঞ্জের বিগ বাজেটের পুজো থেকে ছোট পুজো কমিটিগুলো এবার পুজো সারছেন একেবারে নমো নমো করেই। ফলে পুজোর বাড়তি আনন্দ দিতে মাইকের ব্যবহার আদৌ পুজো কমিটিগুলো রাখবে কিনা তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন রায়গঞ্জের মাইক ব্যাবসায়ীরা। এমনিতেই করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশজুড়ে চলা লকডাউনে সমস্ত সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে রাজনৈতিক সভা মিটিং বন্ধ হয়ে পড়েছিল। কাজ হারিয়েছিলেন মাইক ব্যাবসায়ীরা। তাদের গুদাম ঘরে মাইক ও সাউন্ড সিস্টেমগুলোর উপর জমে গিয়েছে ধূলো আর মাকড়শার জাল।

রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন মাইক ব্যাবসায়ীরা। আশায় ছিলেন দুর্গাপুজয় মন্ডপে মন্ডপে মাইক বাজিয়ে কিছুটা রোজগার হবে। কিন্তু এখনও পুজো কমিটিগুলো অর্ডার না দেওয়ায় আশঙ্কায় দিন গুনছেন তাঁরা। রায়গঞ্জের এক পুজো কমিটির কর্মকর্তা জানালেন, করোনার কারনে তারা এবার চরম আর্থিক সংকটে পড়েছেন তাই এবারের পূজোতে মাইকের ব্যাবহার একেবারেই না করার মতো করে হবে। অনেকেই জানাচ্ছেন এই দুঃসময়ে মাইক বাজিয়ে আনন্দ উৎসব করার মতো পরিস্থিতি নেই। প্রতিবার পুজোর সকালে পাড়ার পুজো মন্ডপের মাইকের গান শুনে ঘুম ভাঙার রেওয়াজটা বোধহয় এবার থমকে যেতে চলেছে। পাড়ার পুজো মন্ডপের মাইকে এবার হয়তো আর শোনা যাবেনা কিশোর, আশা, লতা, কুমার শানু কিংবা অরিজিৎ সিং বা শ্রেয়া ঘোষালের মিষ্টি মধুর পূজোর গান।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here