ইনস্পেক্টর রাজ বেশি চলছে, জনস্বার্থে কাজ বেশি চাই, উত্তরবঙ্গের প্রশাসনিক বৈঠকে হুঁশিয়ারি মুখ্যমন্ত্রীর, একাধিক প্রকল্প ঘোষণা

রাজেন রায়, কলকাতা, ২৯ সেপ্টেম্বর: দীর্ঘ ৬ মাস ধরে করোনা পরিস্থিতি থাকায় রাজ্যের কোনও জেলাতেই প্রশাসনিক বৈঠকে যেতে পারেননি মুখ্যমন্ত্রী। তবে উত্তরবঙ্গ সফর দিয়ে আপাতত ফের সফর শুরু করেছেন তিনি। এবার মঙ্গলবার উত্তরকন্যাতেও প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী সরাসরি বললেন,’ইনস্পেক্টর রাজ বেশি চলছে। জনস্বার্থে কাজ বেশি চাই। ১০০ পার্সেন্ট কাজ চাই, ১০০ পার্সেন্ট অভিযোগের সমাধান করতে হবে। উন্নয়নের কাজ যেন কোনওভাবে আটকে না থাকে। উদ্বাস্তুদের জমি সমস্যা থেকে শ্রম দপ্তরে জমা অভিযোগ, তফসিলি জাতি-উপজাতির শংসাপত্র, সবকিছুই যেন দ্রুত নিষ্পত্তি করা হয়।’

আগামী তিন মাসের মধ্যে আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ি জেলার সব কাজ শেষ করার জন্য ডিএম-এসডিও-বিডিওদের নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। অকারণে কাজে ঢিলেমি দেখালে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হবে সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের সেই হুঁশিয়ারিও দেন তিনি।
বুধবার উত্তরের আরও তিন জেলা দার্জিলিং, কোচবিহার ও কালিম্পংয়ের রিভিউ বৈঠক করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

তবে প্রশাসনিক বৈঠক ছাড়াও উত্তরবঙ্গের জন্য একাধিক নতুন প্রকল্প ও পদক্ষেপ ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। উত্তরবঙ্গের ৩৭০টি চা বাগানের গৃহহীন শ্রমিকদের জন্য ‘চা সুন্দরী’ নামে নতুন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‘চা সুন্দরী’ প্রকল্পে ইতিমধ্যে ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ারের মোট ৭টি চা বাগানের ৩,৬৯৪টি পরিবার এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। তার মধ্যে আলিপুরদুয়ারে ৫টি চা বাগানের ২,৬৪১টি পরিবার রয়েছে। আর জলপাইগুড়িতে ২টি চা বাগানে ১,০৫৩টি পরিবার থাকছে। তিন বছর ধরে এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়া যাবে।

তাছাড়া এদিন মুখ্যমন্ত্রী জল্পেশ মন্দিরের পুরোহিত বিজয় চক্রবর্তীর হাতে ভাতা তুলে দিয়ে রাজ্য পুরোহিত কল্যাণ প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন। প্রসঙ্গত, এই প্রকল্পে ১০০০ টাকা ভাতা ছাড়া পুরোহিতদের বাড়ির জন্য ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী জানান, রাজ্যের ২৩টি জেলায় ১৮,৩১১টি মন্দির চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া ১৮,২২৩ জন পুরোহিত ভাতা পাওয়ার যোগ্য। এছাড়াও এদিন কামতাপুরি ভাষা ও সংস্কৃতি উন্নয়ন কল্পে কামতাপুরী ভাষা অ্যাকাডেমির পক্ষে অতুল রায়ের হাতে ৫ কোটি অনুদান ৫ কোটি টাকা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here