করোনায় মৃতের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে রাজ্য সরকার, সুপ্রিম কোর্টে জানাল কেন্দ্র

আমাদের ভারত, ২২ সেপ্টেম্বর: করোনায় মৃতদের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে রাজ্য সরকারকে। বুধবার দেশের শীর্ষ আদালতে এই কথা জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। করোনায় মৃতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে গাইডলাইন তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছিল দেশের শীর্ষ আদালত। কোভিডে মৃতদের পরিবারকে ঠিক কতটা ক্ষতিপূরণ দেওয়া যেতে পারে তা খতিয়ে দেখার জন্য জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছিলেন তিন বিচারপতির বেঞ্চ। সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্র সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, করোনায় মৃত্যু হলে সেই ব্যক্তির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দায়িত্ব থাকবে রাজ্য সরকারের ওপরই। সরকারের বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিল থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়া হবে। এই ব্যাপারে দায়িত্ব নেবে জেলা বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর।

কিভাবে এই ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়া যাবে বা কিভাবে তার জন্য আবেদন করা যাবে তা আদালতে দেওয়া হলফনামায় বিস্তারিত জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। হলফনামায় বলা হয়েছে ২০২০ জানুয়ারি মাস থেকে এখনো পর্যন্ত দেশে করোনায় ৪.৪৫ লক্ষ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। মৃতদের পরিবারকে রাজ্যগুলির বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিল থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়া হবে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের বিপর্যয় মোকাবিলা তহবিলের মাধ্যমে টাকা দেওয়া হবে। তবে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের গাইডলাইন মেনে মৃত্যুর সার্টিফিকেট অবশ্যই কারণ হিসেবে করোনার উল্লেখ থাকতে হবে বলে জানানো হয়েছে।

করোনায় ক্ষতিপূরণে আবেদনের জন্য ফর্ম প্রকাশ করবে রাজ্য সরকারগুলি। সেই ফর্ম পূরণ করে তার সঙ্গে মৃত্যু সার্টিফিকেট ও প্রয়োজনীয় নথি জমা দিতে হবে মৃতের পরিবারকে। সমস্ত নথি খতিয়ে দেখে গোটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে জেলা বিপর্যয় মোকাবিলা প্রশাসন। নথি জমার ৩০ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণের টাকা পরিবারকে দেওয়া হবে। আধার লিঙ্ক রয়েছে এমন মাধ্যমে সরাসরি হস্তান্তরে লেনদেন হিসেবে দেওয়া হবে ক্ষতিপূরণের টাকা।

গোটা প্রক্রিয়ায় পরিবারের কোনও অভিযোগ থাকলে তা খতিয়ে দেখার জন্য কমিটির নিযুক্ত করা হয়েছে। জেলা স্তরের ওই কমিটিতে সংশ্লিষ্ট জেলার অ্যাডিশনাল ডিস্ট্রিক্ট কলেক্টর, সিএমওএইচ, অ্যাডিশনাল সিএমএইচ, বিশেষজ্ঞ এবং সেই জেলায় যদি কোনও মেডিকেল কলেজ থাকে তবে সংশ্লিষ্ট কলেজের মেডিসিন বিভাগের প্রধান থাকবেন। পরিবারের জমা দেওয়া নথিও খতিয়ে দেখার দায়িত্বে থাকবে কমিটি। সেই কমিটির সিদ্ধান্ত সর্বশেষ বলে পরিগণিত হবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here