পৃথক পৃথক ল্যাবের রিপোর্টে বিভ্রান্তি ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর পরিবারে

পৃথক পৃথক ল্যাবের রিপোর্টে বিভ্রান্তি ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর পরিবারে

স্নেহাশিস মুখার্জি, আমাদের ভারত, নদিয়া, ২০ সেপ্টেম্বর: ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসায় বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বিভিন্ন প্যাথলজি ল্যাবের পৃথক পৃথক রিপোর্টে। সূত্রের খবর, রানাঘাট মহকুমার বিস্তীর্ণ এলাকায় জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। রানাঘাট মহকুমা হাসপাতাল ও শান্তিপুর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে জ্বরে আক্রান্ত রোগীর রক্তে ডেঙ্গুর জীবাণু মিলেছে এমন রোগীর সংখ্যাও প্রায় পঞ্চাশ ছাড়িয়েছে। আর এর মধ্যেই বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বিভিন্ন ল্যাবের রক্তের নমুনা পরীক্ষার পৃথক রিপোর্টে।

জানা গেছে, রানাঘাটের নাসরা মধ্য পল্লীর বাসিন্দা শিবাণী ঘোষ গত কয়েকদিন আগে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রানাঘাট মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হন। পরিবারের অভিযোগ, হাসপাতালের ল্যাবে শিবাণী দেবীর রক্ত পরীক্ষা করার পর তাতে ডেঙ্গুর জীবাণু মেলে এবং রক্তে প্লেটের কাউন্টিং ছিল ১৫ হাজার। অভিযোগ, এর পর ওই দিনই রানাঘাটের আরও দুটি নাম করা বেসরকারি ল্যাব থেকে ডেঙ্গু আছে কিনা তা যাচাই করতে শিবাণী দেবীর রক্ত পরীক্ষা করান তার পরিবার। আর এর পরই দুই ল্যাবের রক্ত পরীক্ষার রিপোর্টে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। রিপোর্ট দেখে বিভ্রান্ত হন চিকিৎসকও।অভিযোগ, হাসপাতালের ল্যাবের রিপোর্টে যেখানে প্লেটরেটের পরিমাণ ১৫০০০ ছিল, সেখানে বেসরকারি সংস্থার দুটি রিপোর্টের একটিতে প্লেট রেটের পরিমাণ ১ লক্ষেরও বেশি এবং একটিতে ৩৫০০০। এই ধরণের পৃথক রিপোর্ট একদিকে যেমন রোগীর পরিবারকে চিন্তিত করেছে তেমন বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে চিকিৎসকদের মধ্যেও।

যদিও রানাঘাট মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসক হাসাপাতালে হওয়া রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী চিকিৎসা চালালেও চিন্তিত রোগীর পরিবার রোগীকে হাসপাতাল থেকে অন্যত্র নিয়ে যেতে চাইছে। পরিবারের দাবি, এই ধরণের ল্যাবগুলো কি পদ্ধতিতে রক্ত পরীক্ষা করছে তার ওপর নজরদারি রাখুক স্বাস্থ্য দপ্তর। যদিও ল্যাব কর্তৃপক্ষের দাবি, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর প্লেটরেট বিভিন্ন হতেই পারে।এতে বিভ্রান্তির কিছু নেই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × three =

amaderbharat.com

Welcome To Amaderbharat.com, Get Latest Updated News. Please click I accept.