ক্যানিংয়ে করোনা আতঙ্কে পরিবারের সদস্যদের মারধর, আহত চার

আমাদের ভারত, ক্যানিং, ১৫ এপ্রিল: করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আতঙ্কে এলাকার একটি পরিবারের উপর হামলার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশিদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিন ২৪ পরগণার ক্যানিং থানার অন্তর্গত ট্যাংরাখালি সর্দার পাড়া এলাকায়। এই ঘটনায় ঐ পরিবারের পাঁচজন জখম হয়েছেন। আক্রান্তদের অভিযোগ, তাদের করোনা আক্রান্ত সন্দেহ করেই গ্রামবাসীরা মারধর করেছে। এ বিষয়ে ক্যানিং থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্তরা। অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ক্যানিং থানার পুলিশ। যদিও এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কাউকে আটক বা গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ বুদ্ধিশ্বর মণ্ডল, কমল মণ্ডল ও দুরন্ত মণ্ডলরা গত ছয় মাস ধরে বাইরে ছিলেন। কিছুদিন আগে তারা বাড়ি ফিরেছেন। তাদের বাড়িতে থাকতে বলা হলেও তারা বাড়িতে থাকছেন না। বাইরে বেড়িয়ে পড়ছেন। এলাকায় ঘরাঘুরি করছেন। এরফলে এলাকায় সংক্রমণের ভয় থেকে যাচ্ছে। তাদের এ বিষয়ে বলা হলে উল্টে গ্রামের মানুষজকে গালাগাল করছেন, এমনকি আশা কর্মী ও পঞ্চায়েত সদস্যদেরও গালাগাল করেছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদ করেছেন এলাকার মানুষজন।

স্থানীয় ক্লাবের সদস্যরা এদের বাড়িতে থাকতে বললে তারা উল্টে এলাকার বাসিন্দাদের মারধর করে বলে অভিযোগ। যদিও আক্রান্ত পরিবারের দাবি, কলকাতার একটি হাসপাতালে সাফাইকর্মী হিসেবে কাজ করেন তারা। গত ২৯ মার্চ তারা কাজ থেকে বাড়িতে ফিরেছেন। হাসপাতাল থেকে তাদের বাড়িতে ফিরে হোম কোয়রান্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। সেই নির্দেশ অনুযায়ী তারা বাড়িতেই দুসপ্তাহ ধরে হোম কোয়রান্টিনে ছিলেন। সেই বিধিনিষেধ কেটে যাওয়ার পর পরিবারের বাকি সদস্যদের সাথে মেলামেশা শুরু করেছেন। তাদের অভিযোগ,পরিবারের বাকি সদস্যদের সাথে মেলামেশা শুরু হতেই ঐ পরিবারের সাথে খারাপ ব্যবহার শুরু করেন প্রতিবেশীরা। বাজারঘাটে যেতে বাধা দেওয়ার পাশাপাশি পাড়ার টিউবওয়েলে জল নিতেও ঐ পরিবারকে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। এই ঘটনার প্রতিবাদ করলেই তাদের উপর চড়াও হয়ে প্রতিবেশী যুবকরা বেধড়ক মারধর করেন। ঘটনায় চারজন গুরুতর জখম হয়েছেন। আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশংকাজনক। তাঁকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে চিকিৎসার জন্য।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here