রাজ্যে সংক্রমণের সংখ্যা ৯ হাজারে পৌঁছাতে পারে, জুলাইয়ের ৩য় সপ্তাহ থেকে কমবে সংক্রমণ, বলছে দেশের গবেষকদের সমীক্ষা

আমাদের ভারত, ২০ মে: জুন মাসের শেষের দিকে সংক্রমণ চরম পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে ভারতে। তবে জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে দেশজুড়ে ধীরে ধীরে গতি কমতে শুরু করতে পারে। আর অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে সংক্রমণ একেবারে কমের দিকে পৌঁছাবে। এদিকে পশ্চিমবঙ্গে করোনায় সংক্রমণ নয় হাজার পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে। সমীক্ষার পর এমনটাই মত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকও দেশের আরোও তিনটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গবেষকদের।

এপ্রিলের প্রথম দিকে কেন্দ্রীয় সরকারের সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চ বোর্ড দেশের বিজ্ঞানী ও গবেষকদের কাছে ভারতের পরিপ্রেক্ষিতে করোনা মডেল তৈরির প্রস্তাব দেয়। তাতে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় সহ দেশের আরওএগারোটি শিক্ষাকেন্দ্র ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান এই সমীক্ষা সুযোগ পেয়েছে।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ম্যাথমেটিক্যাল বায়োলজি অ্যান্ড ইকোলজিকাল কো-অর্ডিনেটর এবং গণিত বিভাগের শিক্ষক নন্দদুলাল বৈরাগী এই প্রোজেক্টের মূল ইনভেস্টিগেটর। নন্দ দুলাল বাবু বলেন, কতদিন চলবে এই অতি মারি, সংক্রমনের সংখ্যাই বা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, কিভাবে সংক্রমণ বাড়বে, কত মৃত্যু হবে তা নিয়ে সমীক্ষা করা হয়।

তার মতে, জুনের শেষ সপ্তাহে সংক্রমণ বাড়ার আশংকা সবচেয়ে বেশি। সেই সময় দিনের সাত হাজার থেকে সাড়ে সাত হাজার জন সংক্রমিত হতে পারেন। তবে জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে সংক্রমণের হার খুব ধীর গতিতে কমতে শুরু করবে। আর অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে তা একেবারে কমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সমীক্ষার রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে সংক্রমনের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে ৫ লক্ষ পেরিয়ে যাবে। পশ্চিমবঙ্গে সংক্রমণের সংখ্যা ৯ হাজার মত দাঁড়াবে।

শুধু কলকাতা নয়, দিল্লি গুজরাট তামিলনাড়ু মহারাষ্ট্রের সংক্রমনের বিষয়টিও দেখা হয়েছে।

নন্দদুলাল বাবুর কথায় অনেকদিন ধরে যে লড়াই চালাতে হবে তা মানুষকে বোঝাতে হবে। এই সংক্রমণ চেষ্টা করলেও আটকানো যাবে না। পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে কিছু সংক্রমণের আশঙ্কা থেকেই যাবে। সমীক্ষায় সংক্রমনের সময় গণপরিবহন বন্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here