বর্ষাকালে বাড়তে পারে সংক্রমণ, পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজ্যগুলিকে তৈরি থাকার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

আমাদের ভারত, ২৭ এপ্রিল:এমনিতেই বর্ষাকালে ভাইরাসের বাড়বাড়ন্ত হয়। তাই আসন্ন বর্ষায় করোনা ভাইরাসের প্রকোপও ব্যাপক বাড়তে পারে। সেই আশঙ্কার কথা আগে থেকেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের জানিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে হওয়া বৈঠকে লকডাউন পরবর্তী পর্যায়ে পরিকল্পনা ঠিক করতে বর্ষার সময় কি কি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেওয়ার আগাম পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিনের বৈঠকে ৩মের পর লক ডাউন পুরোপুরি উঠে যাচ্ছেন না বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। দেশের চিহ্নিত হওয়া হটস্পট এলাকাগুলিতে তথা জেলাগুলিতে লকডাউন জারি থাকবে বলেই জানা গেছে। সূত্রের খবর কেন্দ্রের করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে মে মাসের পর থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত দেশে অংকের হিসেবে আক্রান্তের হার বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এই সংক্রমণকে একটি গণ্ডির মধ্যে আটকে রাখতে লকডাউনের পর নির্দিষ্ট কিছু কৌশল ঠিক করার কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

বিজ্ঞানীরা এখনো পর্যন্ত নির্দিষ্ট করে বলতে পারেননি বর্ষাকালে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়বে কিনা। তবে আবহাওয়ার এই পরিবর্তনে সংক্রমণ বাড়ার একটা আশঙ্কা থেকেই যায়। কারণ করোনার মতো ভাইরাস শুষ্ক আবহাওয়ায় বেশিদিন টিকে থাকতে পারে। শীতকালে এই ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। তাই আদ্রতাতেও এই ভাইরাস বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বেশি তাপমাত্রায় এই ভাইরাস বাঁচতে পারে না। কিন্তু বর্ষায় তাপমাত্রা অনেকটাই কম যাবে। জলীয় আবহাওয়ায় ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আর সেই জন্যই আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিজ্ঞানীরাও। তাই মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে হাওয়া বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীও সেই ভয়ের কথাই তুলে ধরেছেন আজ।

লকডাউন সব জায়গায় না উঠলেও অনেক জায়গায় কিছুটা শিথিল হবে। তবে মাস্ক এবং সামাজিক দূরত্বের বিধি মেনে চলতে হবে। বর্ষার সময় ভাইরাসের আক্রমণ বাড়তে পারে, তাই সুরক্ষার সরঞ্জাম মজুদ রাখতে হবে রাজ্য গুলিকে। এমনিতেই বর্ষায় সর্দি-কাশি সংক্রমণ বাড়ে। আর করোনার অন্যতম উপসর্গ এই সর্দি কাশি। তাই এই সময় অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হবে বলেও জানিয়েছেন মোদী। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন রাজ্যগুলিকে রেড জোনকে অরেঞ্জ জোন এবং অরেঞ্জ জোনকে গ্রিন জোনে আনার কাজ খুব তাড়াতাড়ি করার চেষ্টা চালাতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন লকডাউনের কারণে কয়েক হাজার মানুষের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। এখন থেকে “দো- গজ কি দূরি” এই মন্ত্রকে জীবনের মন্ত্র করে তুলতে হবে। “মন কি বাত” অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মনে করিয়ে দিয়েছেন মাস্ক এখন থেকে সভ্য সমাজের প্রতীক হয়ে উঠতে চলেছে। এটি যাতে মানুষের জীবনের অন্যতম অঙ্গ হয়ে ওঠে সে ব্যাপারে জোর দিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here