মরা ব্যক্তিরাও পদ পেল তৃণমূলে! চোখ কপালে উঠল দক্ষিণ দিনাজপুরের নেতা কর্মীদের, মুখ চেপে হাসলেন বিরোধীরা

পিন্টু কুন্ডু, বালুরঘাট, ২৩ নভেম্বর: মরা ব্যক্তিরাও পেল তৃণমূলের পদ, অবাক দলের নেতা কর্মীরা। মুখ চেপে হাসলেন বিরোধীরা। শুক্রবার দক্ষিণ দিনাজপুরে তৃণমূলের অঞ্চল ও ব্লক কমিটি ঘোষণার পরে এমন চিত্র সামনে আসতেই রীতিমতো হাসির রোল পড়েছে বিভিন্ন মহলে। যদিও এই ঘটনাকে অনেকেই রাজনৈতিক অদূরদর্শিতা বলেই ব্যক্ত করেছেন। ঘটনা নিয়ে তৃণমূলকে কটাক্ষ করতে পিছপা হয়নি বিজেপি। তাদের দাবি জীবিতরা নয়, মরা ব্যক্তিরাই এখন তৃণমূল করবে। তৃণমূলের অবশ্য দাবি, ঘোষণার দু’মাস আগে এই নামগুলি পাঠানো হয়েছিল। আর সেই কারণেই দলের ওইসব গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্বদের নাম থেকেই গেছে।

রাজ্যের নির্দেশে ১৮ নভেম্বর দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সমস্ত ব্লক ও অঞ্চল কমিটি ঘোষণা করে তৃণমূল নেতৃত্বরা। যেখানেই উঠে আসে একাধিক ভুলভ্রান্তি। যা দেখে রীতিমতো চোখ কপালে ওঠার জোগাড় তৃণমূল নেতৃত্বদের। কোথাও পদে বসানো হয়েছে মৃত ব্যক্তিদের, কোথাও আবার একই ব্যক্তি পেয়েছেন একাধিক পদ। শুধু তাই নয়, বিরোধী শিবিরের বেশকিছু নেতৃত্বদের নামও উঠেছে সেই তালিকায়। যা দেখে শুধুমাত্র চোখ কপালেই ওঠেনি, দলের অন্দরে শুরু হয়েছে নেতৃত্বদের রাজনৈতিক অদূরদর্শীতা নিয়ে জোর আলোচনাও। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে যেখান থেকেই মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে দলের অন্দরের কোন্দল। জেলা তৃণমূলের ঘোষিত সেই তালিকায় দেখা যাচ্ছে বালুরঘাটের বোল্লা অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট হয়েছেন সুকুমার নন্দী। যিনি বেশকিছুদিন আগেই মারা গেছেন। অন্যদিকে বালুরঘাটের ডাঙা অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট হয়েছেন সুজন দাস। তিনিও বেশ কয়েকদিন আগেই মারা গেছেন। একইভাবে বেশকিছু ভুল রয়েছে কুমারগঞ্জেও। তালিকার ১৯ নম্বরে থাকা রিয়াজুল মন্ডল যাকে বসানো হয়েছে ব্লকের সম্পাদক পদে। তিনিই আবার ওই তালিকার ২৮ নম্বরে রয়েছেন সদস্য হিসাবেও। এখানেই শেষ নয়, বিরোধী দলের বেশকিছু লোকেরও জায়গা হয়েছে এবার তৃণমূলের অঞ্চল ও ব্লক কমিটিতে। অন্যদিকে নতুন এই তালিকা থেকে বাদ পড়ে গিয়েছেন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির মতো ব্যক্তি থেকে শুরু করে দলের গুরুত্বপূর্ণ ও পুরনো একাধিক মুখ। যাকে ঘিরেই রীতিমতো ক্ষোভের সঞ্চার হতে শুরু করেছে দলের অন্দরে। পঞ্চায়েত নির্বাচনে যা শাসক দলের অন্যতম মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে উঠবে বলেই মনে করছেন অনেকেই।

যদিও এ ব্যাপারে জেলা তৃণমূল সভাপতি মৃণাল সরকার জানিয়েছেন, দু’মাস আগে লিস্ট পাঠানো হয়েছিল। তারপরে তাদের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া টাইপিং ও প্রিন্টিং মিসটেকে কিছু ভুল হয়েছে। যেগুলো নেতৃত্বদের সাথে আলোচনায় বসে দ্রুত সমাধান করা হবে।

বিজেপির জেলা সভাপতি স্বরূপ চৌধুরী জানিয়েছেন, তৃণমূল দলটা জীবিত লোকরা আর করবে না। তাই মরা লোকেদেরই বেছে বেছে কমিটিতে রেখেছে তারা।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here