দুর্গাপুজোয় আয়করকে ‘জিজিয়া  কর’-এর সঙ্গে তুলনা করলেন মমতা 

দুর্গাপুজোয় আয়করকে ‘জিজিয়া  কর’-এর সঙ্গে তুলনা করলেন মমতা 

চিন্ময় ভট্টাচার্য 

আমাদের ভারত, ১৩ অগস্ট: বিভিন্ন দুর্গাপুজো কমিটির থেকে আয়কর আদায়ের চেষ্টাকে ‘জিজিয়া কর’-এর সঙ্গে তুলনা করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মধ্যযুগে ভারতে ইসলামি শাসনে ‘জিজিয়া কর’ হিন্দুদের ওপর লাগু করা হয়েছিল। ধর্মাচরণের জন্য হিন্দুদের এই কর দিতে হত। তৃণমূল সুপ্রিমো মনে করেন, বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে মধ্যযুগের ইসলামি আমলের শাসকদের বিশেষ পার্থক্য নেই। তফাত শুধু, মধ্যযুগের ইসলামি শাসকরা ছিলেন হিন্দু বিদ্বেষী। আর বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার বাঙালি বিদ্বেষী। সেক্ষেত্রে বাঙালি হিন্দু না-মুসলিম, সে ব্যাপারে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের কোনও মাথাব্যথা নেই বলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ধারণা। 

আয়কর দপ্তরের এই ন্যক্কারজনক ভূমিকা নিয়ে, সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি ক্ষোভও উগরে দিয়েছেন। এই অবস্থায়, দুর্গাপুজো ইস্যুতে আয়কর দপ্তরের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে আজ পথে নেমেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। রাজা সুবোধ মল্লিক স্কোয়্যারে তৃণমূল নেতৃত্ব ধরনায় বসেছিলেন। ভবিষ্যতেও তাদের এই আন্দোলন চলবে বলে, আজ তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে। 

গোটা ঘটনায়, তৃণমূল কংগ্রেস সূত্রে খবর, ধর্মাচরণের স্বাধীনতার কথা মাথায় রেখে গঙ্গাসাগর মেলা আয়োজন থেকে কর প্রত্যাহার করেছে রাজ্য সরকার। কিন্তু, মোদি সরকার নিম্নরুচির এক প্রশাসন চালাচ্ছে। বাঙালির সর্ববৃহৎ উৎসব দুর্গাপুজো। সেকথা জানার পরও স্রেফ বাঙালি এবং পুজো কমিটিগুলোকে হেনস্তা করতে নোটিস পাঠিয়েছে আয়কর দপ্তর। তৃণমূল সূত্রে খবর, এই ব্যাপারে যে ভাষায় প্রতিরোধ দরকার, পুজো কমিটিগুলো সেই ভাষা প্রয়োগ করবে। পাশাপাশি, এই ব্যাপারে দলগতভাবে পুজো কমিটিগুলোর পাশেই থাকবে তৃণমূল কংগ্রেস। 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 3 =