লকডাউনে সোনারপুরে শুরু হল ডিজিটাল স্কুল

আমাদের ভারত, সোনারপুর, ৩ এপ্রিল: করোনা আতঙ্কের জেরে বন্ধ হয়েছে স্কুল। কবে নতুন করে শুরু হবে স্কুল তার কোনও নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু এই ভাবে চলতে থাকলে নির্ধারিত সময়ে শেষ করা যাবে না সিলেবাস। এই পরিস্থিতিতে সোনারপুরের একটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের উদ্যোগে শুরু হল ডিজিটাল ক্লাস। অনলাইনে পঠন পাঠন।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চলছে এই পঠন পাঠন। স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকাদের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে ব্ল্যাক বোর্ড। একটি বিশেষ মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করে সংযোগ করা হচ্ছে ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে। সোম থেকে শনি নিয়মিত চলছে এই স্কুল। ক্লাস ওয়ান থেকে ক্লাস টেনের ছাত্র ছাত্রীরা এই পরিষেবা পাচ্ছে। শিক্ষক শিক্ষিকারা নিজের বাড়িতে বসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চালাচ্ছেন পঠন পাঠন। ফলে স্কুল চলছে বাড়িতে বসেই। ছাত্র ছাত্রী থেকে শুরু করে শিক্ষক শিক্ষিকারা সকলে এই নতুন পদ্ধতির স্কুলকে পছন্দ করছেন। লকডাউনে বাড়িতে সকলে আটকে থাকলেও স্কুলের পড়াশোনায় কোনও সমস্যা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন তারা।

স্কুলের রসায়নের শিক্ষিকা দিপাক্ষী গুহ বলেন, “ করোনা মোকাবিলার জন্য লকডাউন চলছে। যেহেতু স্কুল বন্ধ আমরা ছাত্রছাত্রীরা কেউই স্কুলে যেতে পারছি না ফলে কিছুতো একটা উপায় বের করতে হবে যাতে আমাদের পড়াশোনাটা বন্ধ না হয়। তাই এই ডিজিটাল মাধ্যমে অনলাইনে স্কুল শুরু হয়েছে। এর মাধ্যমে আমাদের সব ক্লাস স্কুলের নির্দিষ্ট নিয়ম মেনেই চলছে। তবে সময়ের কিছুটা পরিবর্তন করা হয়েছে”। শুধু লেখাপড়া নয়, ডান্স, যোগার মত ক্লাসগুলিও চলছে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে। বাড়িতে পড়ুয়ারা ছুটির মেজাজে থাকলেও এই নতুন পদ্ধতিতে ক্লাস করতে তারাও যথেষ্ট আনন্দ পাচ্ছে।

সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী সুকন্যা রায় বলেন, “ স্কুলে যেতে পারছি না বলে প্রথমে মন খারাপ হচ্ছিল। পড়াশোনা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে এই স্কুল শুরু হওয়ায় আমরা খুব খুশি। নতুন এই পদ্ধতি আমাদের খুব পছন্দ হয়েছে”।

এই ভাবে স্কুল চালু হওয়ায় খুশি অভিভাবকরাও। তারা বলেন, “ অনির্দিষ্ট কালের জন্য স্কুল বন্ধ। ভাবছিলাম কিভাবে সিলেবাস শেষ হবে। স্কুল খুললে বাচ্চাদের উপর একটা সাঙ্ঘাতিক প্রেসার চলে আসবে। কিন্তু স্কুলের এই অনলাইন ক্লাস শুরু হওয়ায় সেই চিন্তা থেকে আমরা মুক্তি পেয়েছি। স্কুলের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই”।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here