৬০ হাজার টাকা দিয়ে পুজো ভাড়া করেছে তৃণমূল, বিস্ফোরক মন্তব্য দিলীপ ঘোষের

আমাদের ভারত, ২ অক্টোবর: ৬০ হাজার টাকা দিয়ে পুজো ভাড়া করেছে তৃণমূল। সপ্তমীর সকালে এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন দিলীপ ঘোষ। বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি তথা মেদিনীপুরের বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ নয়াদিল্লি যাওয়ার আগে কলকাতা বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে এভাবেই তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনায় সরব হয়েছেন।

তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে বলা হয় ইউজেডসি অডিটোরিয়ামে বিজেপির দুর্গাপুজো আসলে রাজনৈতিক দেউলিয়াপনার পরিচয়। তার পাল্টা দিতে গিয়ে মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, “ওরা ভাড়া করেছে। ৬০ হাজার টাকা দিয়ে সব পুজোকে ভাড়া করেছে। না হলে একজনও ডাকবে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। যদি টাকা না দেয় বাকি চোরদেরকে কেউ ডাকবে না। সেই জন্যই বড় বড় কথা বলে গরিব লোকের টাকা নিয়ে পুজো ভাড়া করা হচ্ছে। আর উদ্বোধন করে ফুটানি দেখানো হচ্ছে। সেই টাকা দেওয়া বন্ধ করা হলে ওদের মুখের দিকে কেউ তাকাবে না।”

হুগলির গুড়াপের দুর্গা প্রতিমার হাতে তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা দেখা গিয়েছিল। এই ঘটনাকে তৃণমূল স্তরের কর্মীদের আবেগের বহিঃপ্রকাশ বলে দাবি করেছিলেন কুণাল ঘোষ। কিন্তু এর পাল্টা দিতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, “সবে শুরু হয়েছে, কতদূর যেতে হয় ওরা জানে না। অসামাজিক চোর-ডাকাত দিয়ে পার্টি চলে। তাই পুজোকে অপবিত্র করা হচ্ছে, মন্ত্রকে অপবিত্র করা হচ্ছে। পিতৃপক্ষের পূজা উদ্বোধন করা হচ্ছে। অসামাজিক যত লোক তারা সেই পার্টির মধ্যে রয়েছে।”

চাকরি প্রার্থীরা নিজেদের অধিকার লড়াইয়ে এখনো পথে। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু একাধিকবার তাদের পরামর্শ দিয়েছে, দুর্গা পুজোর সময় ধর্নায় না বসে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে। এই ঘটনায় দিলীপ ঘোষ বলেন, নিজেদের ন্যায্য দাবি নিয়ে আন্দোলন করছে তারা। তাদের ১০০ ভাগ অধিকার আছে আন্দোলন করার। তাদের সেই দাবি মেটানো সরকারের দায়িত্ব।”

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here