করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক দূর করে গোগ্রাসে খান চিকেন, জানাচ্ছে বেঙ্গল পোলট্রি ফেডারেশন

16

নীল বনিক, আমাদের ভারত, কলকাতা, ২৯ ফেব্রুয়ারি: রাজ্যে মুরগির মাংস থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্ক ছড়িয়েছে। যার জেরে এক ধাক্কায় কমেছে মুরগির মাংসের বিক্রি। এই আতঙ্কে অনেকেই মুরগির মাংস খেতে চাইছে না। স্বভাবতই কমছে মুরগির মাংসের দামও। এই পরিস্থিতিতে মাথায় হাত মুরগির মাংসের ব্যবসায়ীদের। কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে পোলট্রি ব্যবসার সঙ্গে যুক্তদেরও। সত্যিই কি করোনা ভাইরাস মুরগির মাংস থেকে ছড়িয়ে পড়তে পারে। বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন আতঙ্ক তৈরি হওয়ায় এই প্রশ্ন সামনে আসছে। এই পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে উদ্যোগী হল ওয়েস্ট বেঙ্গল পোলট্রি ফেডারেশন। শনিবার কলকাতা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করে সংগঠনের তরফে জানানো হল মুরগির মাংস থেকে কোনও ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্ক সম্পূর্ণ গুজব। উদাহরণ দিয়ে ওয়েস্ট বেঙ্গল পোলট্রি ফেডারেশনের সম্পাদক মদনমোহন মাইতি জানান মানুষের থেকে মানুষ করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। তবে কোনও পশু বিশেষ করে মাংসের মধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কোনও প্রমাণ মেলেনি। তাই পোলট্রি কর্তাদের আবেদন গুজবে কান না দিয়ে নিশ্চিন্তে খাওয়া যেতে পারে মুরগির মাংস।

তথ্য বলছে শহর কলকাতায় এক সপ্তাহে প্রয়োজন হয় ৬০ লক্ষ কেজি চিকেনের। প্রতিদিন গড়ে যার পরিমাণ ৮.৬ লক্ষ কেজি। তবে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের জেরে এই চাহিদা এক ধাক্কায় অনেকটাই নেমেছে। করোনা ভাইরাস আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার পর শহরের সাপ্তাহিক চাহিদা ২৪ লক্ষ কেজি এবং প্রাত্যহিক চাহিদা ৩.৫ লক্ষতে ঠেকেছে। যা স্বাভাবিকভাবেই ভাবাচ্ছে মুরগির মাংসের ব্যবসা এবং পোলট্রি ফার্মের সঙ্গে যুক্ত কারবারীদের। তাই সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তুলতে উদ্যোগী হলেন তারা। তবে আতঙ্কের পরিবেশের পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণ মানুষ কতটা পোলট্রি ফেডারেশনের আশ্বাসে আশ্বস্ত হবেন তা সময়ই বলবে।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here