মহারাষ্ট্রের মতো পশ্চিমবঙ্গেও জন্মাতে পারে একনাথ শিণ্ডে, মিঠুনের পর ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য সুকান্ত মজুমদারের

আমাদের ভারত, ৯ আগস্ট: তৃণমূল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়লেও ২৬ পর্যন্ত এই সরকার টিকবে না এমনটাই বার বার দাবি করেছেন বিজেপির নেতারা। তাদের বলতে শোনা গেছে ২৪-এ লোকসভা ও বিধানসভা ভোট হবে একসাথে। পার্থ কাণ্ডের পর সেই বিষয়টি আরও জোরদার ভাবে বলতে শুরু করেছেন তারা। এমনকি মহারাষ্ট্র মডেল এখানে হতে পারে বলেও ইঙ্গিত পূর্ণ মন্তব্য করেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার নিজে।

২৪ -এর আগেই কি তৃণমূল সরকার পড়ে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে? ঠিক যেমন মহারাষ্ট্রে হয়েছে। তেমনটাই কি পশ্চিমবঙ্গেও হতে চলেছে। এই প্রশ্ন এখন রাজ্যের সাধারণ মানুষের মনেও। এই প্রসঙ্গে বঙ্গ বিজেপি সভাপতিকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, “মহারাষ্ট্রের মতো ঘটনা এখানে ঘটবে কিনা তা নির্ভর করছে মহারাষ্ট্রের মত একনাথ শিণ্ডে এখান থেকে বেরোবে কিনা তার ওপর।” সুকান্ত মজুমদার বলেন, “দেখা যাক মহারাষ্ট্রের মতো এখানে কোনো একনাথ শিণ্ডে জন্ম নেয় কিনা।”

বিজেপি রাজ্য সভাপতির এই মন্তব্যকে যথেষ্ট ইঙ্গিত পূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। তার এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে জল্পনা এখন তুঙ্গে উঠেছে। তাহলে কি বঙ্গ বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে একনাথ শিণ্ডেকে পেয়ে গেছে? কে সেই তৃণমূলে থাকা একধার শিণ্ডে? যার হাত ধরে পশ্চিমবঙ্গেও রাতারাতি সরকার পরিবর্তন হয়ে যাবে। নাকি একধার শিণ্ডের সন্ধান চলছে?

এই প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা তথা বাংলা সিনেমার মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তিও প্রায় একই ইঙ্গিত দিয়েছেন কয়েকদিনে আগেই। তিনি দাবি করেছিলেন, কে বলতে পারে সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে দেখবো পশ্চিমবঙ্গেও সরকার পাল্টে গেছে। তার দাবি ছিল প্রায় ৩৮ জন তৃণমূল বিধায়ক সাংসদ বিজেপির সাথে সরাসরি যোগাযোগ রাখছে। এরমধ্যে সুকান্ত মজুমদারের এই মন্তব্য সেই জল্পনাকে আরও খানিকটা উস্কে দিল বলা যায়।

যদিও বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার এও বলেছেন যে, ২৪ এ লোকসভার সাথেই হবে বিধানসভা নির্বাচন। তাঁর কথায় “রাজ্য সরকারের যে পরিস্থিতি আমরা দেখতে পাচ্ছি, তাতে রাজ্য মন্ত্রিসভার যে কেন্দ্রীয় চরিত্র গুলি রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি এই মুহূর্তে জেলে। এরপরে শুনতে পাচ্ছি অনুব্রত মণ্ডলকে ইডি সিবিআই ডাকছে। এদিকে আপনারও দেখছেন কলকাতা হাইকোর্টে ১৯ জন বাঘা বাঘা তৃণমূল কংগ্রেস নেতা, যাদের মধ্যে কয়েকজন আবার এই মুহূর্তে আমাদের মধ্যে নেই। তাদের নামে আয় বহির্ভূত সম্পত্তির মামলা হয়েছে। সেই মামলায় ইডি যুক্ত হয়েছে। কারো কারো সম্পত্তি ২০০ শতাংশেরও বেশি বেড়েছে শেষ কয়েক বছরে। স্বাভাবিকভাবেই এদের যদি তদন্ত হয়, তাহলে এদের অর্ধেকেরও বেশি জেলে থাকবে। স্বাভাবিকভাবেই সেই সরকার থাকবে না। আর সরকার যদি না থাকে তাহলে ২৪-এ লোকসভা বিধানসভা নির্বাচন একসাথে হবে।”

তবে পশ্চিমবঙ্গে মহারাষ্ট্র মডেলে আসবে পরিবর্তন নাকি ২৪ -এ লোকসভা বিধানসভা নির্বাচন হবে একসাথে তার দিকে তাকিয়ে রাজ্যবাসী।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here