আরও খবর জেলার খবর

অভিনব শোভাযাত্রা! দাদুর শ্মশান যাত্রায় ২৪ নাতি ডিজেতে বাজাল হরিনাম

আমাদের ভারত, সিউড়ি, ৭ নভেম্বর: হেলে দুলে শ্মশান ঘাটে চললেন শংকর চরণ মাল। বয়স ৯২। বুধবার রাত্রে তাঁর শ্মশান যাত্রা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। তাই বৃহস্পতিবার সকালে জেনারেটর লাগিয়ে ডিজে বক্স বাজিয়ে তাঁকে শোভাযাত্রা করে শ্মশানে নিয়ে চলল নাতি, সহ তাদের ছেলে পিলেরা। মৃত্যুকে ঘিরে এমন আনন্দ মিছিল বের করল সিউড়ির আনন্দপুর ডাঙ্গা পাড়ায় তাঁর আত্মীয়রা।

প্রথম ট্রাকে জেনারেটর, সঙ্গে চারটে যেবিএলের ডিজে। তাতে গান বাজছে, আমি হেলে দুলে যাব শ্মশান ঘাটে। মাঝের ট্রাকে ২৪ জন নাতি, তাদের ছেলে পুলে। তৃতীয় ট্রাকে শংকর চরণ মাল। তার বর্নময় জীবনের মতই মৃত্যুর শোভাযাত্রা করতে চেয়েছিল তাঁর নাতি এবং মেয়েরা।

জীবন শুরু করেছিলেন চাষবাস দিয়ে। পরে স্কুল পরিদর্শকের দফতরে সরকারি চাকরি। তখনই সিউড়ি চলে আসা। পুত্র সন্তান না থাকার আপশোস ভুলিয়েছে তাঁর দশ মেয়ে। তাদের পাত্রস্থ করেছেন। রেখেছেন নিজের ঘরের কাছাকাছি। আনন্দপুর ডাঙ্গা পাড়াতেই সকলকে নিজের নিজের বাড়ি করে দিয়েছেন বলে মেয়েদের দাবি। মেয়ে তনু মাল বলেন, বাবা বেশ কিছুদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। দু’দিন আগে সিউড়ি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখান থেকে বাড়ি ফিরে আসেন। সোমবার থেকে বাকরুদ্ধ হয়ে যান।

জামাই তপন বাগদি বলেন, চাষ দিয়ে জীবন শুরু। কিন্তু চাকরী থেকে অবসরের পর বসে থাকেননি। বহু পান গুমটির দোকান এলাকার বসিয়েছেন। জমিজমা বিক্রির মধ্যস্থতা করতেন। জীবন ছিল তাঁর বর্নময়। তাই তার শেষ যাত্রাকে স্মরনীয় করতে বর্নাঢ্য করতে চেয়েছে নাতি- পুতিরা। ডিজের গান। সঙ্গে হরিনামও ছিল।

মেয়ে টুলু মাল বলেন, বাবা ছিলেন হাসিখুশির মানুষ। নাতিরা তাই বাবার এই ৯২ বছরের জীবন মুক্তিকে আনন্দময় করতে চেয়ে এই বক্স বাজিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। বাবা নেই এটাও যেমন দুঃখের। তেমন ২৪ জন নাতি এবং তাদের সন্তানাদি দেখে বাবার এই স্বর্গযাত্রাও আমাদের কাছে সুখের। তাই সিউড়ি থেকে বক্রেশ্বর শ্মশানের যাত্রা পথে মানুষ বিসর্জন ভেবে ছুটে এসেছে। নাতিদের কথায় এটাও এক অর্থে বিসর্জন। দাহ করার আগে বিসর্জনের আনন্দে মেতেছি আমরা। তাই কাঁধে তুলে দাদুকে নিয়ে নাচছে নাতিরা। ডিজেতে তখন গান বাজছে, এই হরিনাম যাবে যেদিন সাথে…।

Leave a Comment

17 + 1 =

Welcome To Amaderbharat. We would like to keep you updated with the Latest News.