“সাদা খাতা জমা দেওয়া পরীক্ষার্থীরাই চাকরি পেয়েছে”, চুঁচুড়া পুরসভার কর্মী নিয়োগ নিয়ে বিস্ফোরক বিদায়ী ভাইস চেয়ারম্যান অমিত রায়

আমাদের ভারত, হুগলী, ২৫ জুন: হুগলীর চুঁচুড়া পুরসভার কর্মী নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল আগেই, এবার সাদা খাতা জমা দেওয়ার বিস্ফোরক অভিযোগ আনলেন বিদায়ী বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান অমিত রায়।

হুগলীর চুঁচুড়া পুরসভার পিয়ন এবং মজদুর পদে নিয়োগের জন্য পরীক্ষা নেওয়া হয় মার্চ মাসে। মোট ৭৬টি পদের জন্য প্রায় বারো হাজার প্রার্থী পরীক্ষায় বসেন।অনেকের এডমিট কার্ড না পৌঁছানোয় পরীক্ষায় বসতে পারেননি। পরীক্ষায় সফল প্রার্থীদের তালিকা বেরনোর পর দেখা যায়, কাউন্সিলর, কাউন্সিলরের ছেলে- মেয়ে, জামাই, ভাইপো- ভাইজি নিকট ত্মীয়রাই চাকরি পেয়েছেন। স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলে সরব হয় বিরোধীরা। পুরসভায় চলতে থাকে ধর্না বিক্ষোভ।

হুগলী জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের অবজারভার পুরো ও নগর উন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়ে দেন নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। যদিও নিয়োগ বাতিলের কোনো লিখিত চিঠি পুরসভায় এসে পৌঁছায়নি। তাই যথারীতি সফল প্রার্থীরা কাজে যোগ দেন। এ নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক।আজ বিদায়ী পুরো বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান অমিত রায় সরাসরি অভিযোগ করেন, এই নিয়োগের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না তবে তিনি দেখেছেন যে সাদা খাতা জমা দিয়েছে অনেকে। আর তারাই চাকরি পেয়েছে। সঠিক তদন্ত হলে কেঁচো খুঁড়তে কেউটে বেরিয়ে আসবে। লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে এই নিয়োগ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তোলে বিজেপি।

বিজেপির রাজ্য নেতা স্বপন পাল অভিযোগ করেন, পুরসভায় নিয়োগে স্বজন পোষণের পাশাপাশি লক্ষ লক্ষ টাকা নেওয়া হয়েছে।এব্যাপারে সিবিআই তদন্তের দাবি করেন তিনি।

আপনাদের মতামত জানান

Please enter your comment!
Please enter your name here